শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০৩:৩১ অপরাহ্ন

একটু মানবিকতার প্রচেষ্টা ও কিছু অনুভূতি

একটু মানবিকতার প্রচেষ্টা ও কিছু অনুভূতি

সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ

এক তাবলীগের সাথী অস্ট্রেলিয়া থেকে জাকাতের ২৮হাজার টাকা পাঠিয়েছিলেন কিছু গরীব আলেম উলামা ও দাঈদের কাছে পৌছে দিতে। এই শ্রেনীর মানুষজন উপবাসে থাকেন কিন্তু ত্রান আনতে জাননা, কিংবা মানুষের কাছে হাত পাতেন না। নিরবে নিভৃতে পরিবার পরিজন নিয়ে কেবল জায়নামাজে বসে আল্লাহর কাছেই ফরিয়াদ জানান। যাদেরকে কেউ হাদীয়া বা জাকাত দেয়ার প্রয়োজন বোধ করেন না। কিন্তু বাস্তবতা হলো তারা এই মুহুর্তে অনেক অসহায়।

আমি লেখালেখির মানুষ হিসাবে আমার লেখা পাঠ করে অনেকে আপন মনে করে, এমন কিছু সাথী আমাকে নিজেদের অবস্থা জানিয়ে ম্যাসেজ দিয়েছিলেন, কোন সুযোগ থাকলে যেন তাদের কথা স্মরন করি।

একজন আলেমের বিকাশ নাম্বারে পাঁচ হাজার টাকা পাঠালাম। তিনি সেহরীর সময় ফোন দিয়ে কেঁদে দিলেন। মাদরাসার বেতন এনে অসুস্থ পিতার চিকিৎসার ঋন দিয়ে দিয়েছিলেন। দোকান থেকে বাকি আনেন না দিবেন কোথা থেকে এই ভয়ে। আজ ১০/১১দিন যাবত তেলছাড়া খিচুড়ি পাকিয়ে খেয়েই তারা রোজা রাখছেন, ছোট বাচ্চাদেরও এটিই খাওয়াচ্ছেন। বললেন, আজ ১১দিন পর মাছ তরি-তরকারী চাল ও মসলা কিনে রান্না করে ভাত খেলাম। আল্লাহ আপনাকে উত্তম বদলা দান করেন।

এরকম যে কয়েকজনকে টাকাগুলো দিলাম তাদের প্রত্যেকেরই অবস্থা করুণ। আমার কাছে তখন একটি বিষয় মনে হলো আমরা যাকাত দেই ঠিক কিন্তু খোঁজে খোঁজে সঠিক জায়গায় অনেক সময় পৌছে দিতে পারি না।

একজন দ্বীনদ্বার সাথীর কথা জানি যিনি স্ত্রীর কঠিন অসুস্থতার  চিকিৎসা করাতে এখন তিনলক্ষ টাকা ঋন গ্রস্থ। তার দেয়ার মতো এখন কিছু নেই। তিনি পাওনাদারের চাপে ফেরারী হয়ে এতিম সন্তনদের নিয়ে ঘরবাড়ি ছাড়া। আমি তাকে পাঁচ হাজার টাকা দিলাম। তিনি বলেন হযরত এটিতো আমার কাছে পাঁচলাখের মতো। তার কথা স্বরন হলে মনে কুরআনের ভাষায় জাকাতের বড় হকদার এই দ্বীনদ্বার সাথী। বাহলুলের ঘটনা আমরা ফাজায়েলে সাদাকাতে পড়েছি তিনি উমর ইবনে আব্দুল আজিজ রহ এর স্ত্রী জুবায়দার কাছে জান্নাতের ওয়াদা করেছিলেন এমন এক ঋনগ্রস্থ লোককে সাহায্য করতে গিয়ে। কত মানুষ আছেন যাদের কাছে এমন টাকা কেন ব্যাপারই নয়। এর চেয়ে অনেক বেশি জাকাত আসে।

এতিম শিশু ও অসহায় বিধবা মুসলিম জাতির আমানত। আয়হীন গরিব মানুষ, অসুস্থতায় আক্রান্ত সয্যাশায়ী ব্যাক্তি, ঋণে জর্জরিত লোক, কারাগারে বন্দির পরিবার, আকস্মিক রোগব্যধিতে আক্রান্ত দুঃখী মানুষ, সন্তানহীন বৃদ্ধ ও অথর্ব বয়স্ক নারী-পুরুষ আপনার দানের অপেক্ষায়। এদের মধ্যে যারা যাকাত পাওয়ার মতো তাদের যাকাত দিন।

যারা সাধারণ দান পেলে বিপদমুক্ত হয় তাদের দান-সাদাকাহ করুন। আল্লাহর রাস্তায় সফরকারী ও তার পরিবারকে জাকাত দেয়া উত্তম। ইলেমের অন্বেষাকারী ছাত্রদেরকে জাকাত দিলে তা সদকায়ে জাড়িয়া হয়ে থাকবে।

যাকাত কেবল নিজের পিতা-মাতা ও স্ত্রী-সন্তানদের দেয়া যায় না। এছাড়া যাকাত নেয়ার উপযুক্ত চাচা-মামা, ভাই-বোন ইত্যাদি সকল আত্মীয়কে দেয়া যায়। গরীব নিকট আত্মীয় প্রতিবেশি ও অসহায় বন্ধু বান্ধব আপনার জাকাতের প্রথম হকদার।

যাকাত দেয়ার সময় গ্রাহককে বলে দেয়া মোটেও জরুরি নয়। বরং যাকাত না বলে গিফট, ঈদ উপহার, সৌজন্য বা সহায়তা ইত্যাদি যে কোনো শোভনীয় কথা বলে দিয়ে দেয়াই উত্তম।

যাকাত-ফিতরা ছাড়াও সাধারণ অর্থ থেকে আলেম, ইমাম, মুয়াজ্জিন, দাঈ  খাদেম, ভদ্র দরিদ্র পরিবার, চেনা-জানা মানুষ, প্রতিবেশি, সহকর্মী, শ্রমিক-কর্মচারী, কাজের লোক, ড্রাইভার-দারোয়ান প্রভৃতি সার্কেলে ঈদের বাজার খাদ্য ও পোষাক উপহার হিসেবে দেয়া খুবই উত্তম। এতে প্রচুর সওয়াবের পাশাপাশি সামাজিক মিল-মহব্বত দৃঢ় হয়। শারীরিক-মানসিক সুস্থতা, চেহারায় নূর, সুখী জীবন, দীর্ঘায়ু ও অপরিসীম আধ্যাত্মিক তৃপ্তি লাভ করা যায়। অতএব, যাকাত ও সাধারণ দানের এ সময়টি কাজে লাগান। সময় কিন্তু খুব দ্রত বয়ে যাচ্ছে।

একজনকে জাকাত দিতে চাইলাম তিনি বললেন আমি নসলগত কারণে জাকাতের হকদার নই। তবে আর্থিক সংকট এতো বেশি কোন হাদীয়া এলে কবুল করতে পারি। এই যে একটি বিষয়, আমরা কয়জন এটি মাথায় আনতে পারি। কাদের জাকাত দেয়া যাবে। কাদের যাবে না। কারা যাকাতের প্রকৃত হকদার তা অনেকেই তাহকীক করেন না।

তাবলীগ নিউজের লেখকদের হাদীয়া দেয়ার বিষয়ে আমরা আমাদের পাঠকদের মনযোগ আকর্ষন করেছিলাম। এক ভাই একহাজার টাকা আরেকজন দুই হাজার টাকা পাঠিয়েছিলেন।  মোট তিন হাজার টাকা এসেছিল। আমরা নিয়মিত দুইজন লেখককে তা পৌছে দিয়েছি।

এক সাথী ফোন দিলেন, যে কিছু ইন্টারেসটিং এর টাকা আছে এটি কি তাবলীগ নিউজ বিডি’র কাজে লাগাতে পারবেন? একজন ভাই বললেন আমি কিছু জাকাতের টাকা দিতে চাই। আমি তাদেরকে বিনয়ের সাথে বলেছি, আমরা অনেক কষ্ট করে এটি চালিয়ে নিচ্ছি ঠিক, এর দ্বারা উম্মতের উপকার হচ্ছে, আপনি এই ভাল কাজে,ইলমি, দ্বীনী দাওয়াতের একটি তাহকীকী কাজে কেন মালের “ময়লা” দিবেন। আপনার পবিত্র মাল থেকে এর সহযোগীতায় এগিয়ে আসতে পারেন। লেখকদের হাদীয়া দিতে পারেন। আলেম উলামার খেদমত করতে পারেন। আল্লাহ আপনার জীবনে কল্যান দান করবেন।

আর যারা যাকাতের সত্যকারের হকদার তাদের কাছে আপনি তা পৌছে দিন। আল্লাহ তায়ালা আপনার মালে বরকত দান করবেন। আপনার জিন্দেগী সচ্চলতায় ভড়ে দিবেন। আমীন।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!