রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:৫১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড এর শোক হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ ঘোষনা এক আল্লাহ জিন্দাবাদ… হাটহাজারী মাদরাসায় ছাত্রদের বিক্ষোভ ভাঙচুর : কওমীতে নজিরবিহীন ঘটনা ‘তাবলিগের সেই ৪ দিনে যে শান্তি পেয়েছি, জীবনে কখনো তা পাইনি’ তাবলীগের কাজকে বাঁধাগ্রস্থ করতে লাখ লাখ রুপি লেনদেন হয়েছে: মাওলানা সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী দা.বা. (অডিওসহ) নিজামুদ্দীন মারকাজ বিশ্ব আমীরের কাছে বুঝিয়ে দিতে আদালতের নির্দেশ সিরাত থেকে ।। কা’বার চাবি দেওবন্দের বিরোদ্ধে আবারো মাওলানা আব্দুল মালেকের ফতোয়াবাজির ধৃষ্টতা:শতাধিক আলেমের নিন্দা ও প্রতিবাদ একান্ত সাক্ষাৎকারে সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী :উলামায়ে হিন্দ নিজামুদ্দীনের পাশে ছিলেন, আছেন, থাকবেন

 দুই আলেমের গল্প

 দুই আলেমের গল্প

( নিজামুদ্দিন থেকে উৎসারিত চিন্তাধারার বৈশিষ্ট্য)

সৈয়দ ইসমত

 মাদ্রাসার এক আলেম এলেন তাবলীগের এক আলেমের কাছে । বললেন ,
—- চল ভাই অমুক ভদ্রলোকের সাথে দেখা করি একটু ।
—– কি উদ্দেশ্য ?
—- ভদ্রলোক বেশ নামাজি , আর্থিক সচ্ছলতাও আছে । যাই দেখি মাদ্রাসার জন্য কোনো অনুদান পাওয়া যায় কিনা ।
তাবলীগের আলেম ভদ্রলোক একটু অস্বস্তিতে পড়ে গেলেন । জায়েজ কাজ হলেও তাবলীগের সাথীরা সাধারণত চাঁদা আদায়ের কাজে যান না । মাওঃ আশরাফ আলী থানভী রঃ এরও দৃষ্টিভঙ্গী এমনই ছিলো যে দাওয়াত ডিপার্টমেন্টের দায়িত্ব প্রাপ্ত আলেমরা কখনও চাঁদা আদায় করতে যাবেন না । কারণ এতে করে মানুষের সামনে তাঁদের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় ,তাঁদের কথার গ্রহণযোগ্যতা কমে যায় , ফলে দাওয়াতের কাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয় । কিন্তু কি আর করা ! আগন্তুক ভদ্রলোক একজন
আলেম । একেতো মেহমানের কদর করা , উপরে আলেমের কদর করা । অতএব তাবলীগের আলেম আর ট্যাঁফোঁ করলেন না । তৈরী হয়ে নিয়ে দুজনে রওনা হয়ে গেলেন ।
 গন্তব্যে পৌছে বাড়ীওয়ালার বসার ঘরে বসে অনেক কথা হলো । তাঁর মন যখন নরম হয়ে এসেছে তখনই অন্দরমহল থেকে দরজায় টোকা পড়লো — অর্থাৎ নাশতা তৈয়ার । বাড়ীওয়ালা উঠে ভিতরে চলে গেলেন । নিরিবিলি হতেই তাবলীগওয়ালা জিজ্ঞাসা করলেন মাদ্রাসাওয়ালাকে
—- ভাই এখন কি করা যায় ?
—- কি ব্যাপারে ?
—- চাওয়ার ব্যাপারে ? মনেতো হয় মন বেশ নরম হয়েছে । এখন যা’ চাইবো , কিছু হলেও পাওয়া যাবে ।
—- হাঁ, আমারও তাই মনেহয় ।
—- তা’হলে কি করবো ? হাজার দশেক টাকা চাইবো ? নাকি তাকে তাশকিল করবো আল্লাহর রাস্তায় বের হওয়ার জন্য ?
—- আপনিতো ভাই চিন্তায়ই ফেলে দিলেন
—- চিন্তারই ব্যাপার বটে । এখন যদি তাঁকে ৩ দিনের জন্য আল্লাহর রাস্তায় বের হওয়ার জন্য অনুরোধ করি আর তিনি
রাজী হয়ে যান তবে হয়তো এই যাওয়া তাঁর পুরা জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেবে । তাঁর সামনে নুতন দুয়ার খুলে দেবে। তাঁর বাকি জীবন আলোকিত হয়ে যাবে । দ্বীনের মুখলিস দাঈ বনতে পারলে তাঁর হাত ধরে আরও কত মানুষের জীন্দেগী পাল্টে যাবে ।
 আর এখন যদি আমরা দশ হাজার টাকা নিয়ে চলে গেলাম — দ্বীনের এতেবারে বেচারা যেখানে ছিলো সেখানেই পড়ে থাকলো , তাহলে তো আমার মনে হয়……..
—- কি মনে হয় ?
—- মনেহয় যেন আমরা মলম পার্টির মত কাজ করলাম । ওরা ধুতরা খাইয়ে সেন্সহারা করে দেয় , তারপর টাকা নিয়ে চলে
যায় । আমরা আখেরাতের কথা বলে বলে তার সেন্সের উপর প্রভাব খাটিয়ে পকেট থেকে টাকা টেনে বের করে নিয়ে চলে গেলাম । তাছাড়া আরও কথা আছে
—- কি কথা ?
—– আমরা টাকা নি
য়ে চলে যাবো । আজ হোক কাল হোক , তাঁর মনে এই কথা আসবে যে — “আমার টাকার কারণেই
দ্বীন আগে বাড়ে । সুতরাং আমার টাকা কামাইয়ের মেহনতই উত্তম মেহনত “। আল্লাহর উপর ভরসা করার চাইতে টাকার উপর ভরসা তার আরও বেড়ে যাবে । টাকার উপর তার একীন বেড়ে যাবে । অর্থাৎ তার টাকাও আমরা নিলাম সেই সাথে তাঁর একীনকেও নষ্ট করে দিয়ে গেলাম । তাই বলছিলাম আপনাকে যে এখন কি চাইবো আমরা তাঁর কাছে ? দশ হাজার টাকা নাকি তিন দিনের সময় ?
Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com