বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন

মাদরাসার ছাত্র দিয়ে মাঠ দখলের রাজনীতি: দেশজুড়ে নিন্দার ঝড়

মাদরাসার ছাত্র দিয়ে মাঠ দখলের রাজনীতি: দেশজুড়ে নিন্দার ঝড়

  1. তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম | গতকাল থেকে বাংলাদেশের অধিকাংশ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় টঙ্গীর ইজতেমার মাঠ দখলে কওমী মাদরাসার কোমলমতি শিশু কিশোরদের ব্যাবহার ‘টক অব দ্যা কান্টি’ তে পরিণত হয়েছে। গনমাধ্যম থেকে শুরু করে সকল সচেতন মহল ও অবিভাভকদের পক্ষ থেকে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

 

খোদ এই হীন স্বার্থসিদ্ধির রাজনীতিতে ক্লাস বন্ধ রেখে পুরো সাপ্তাহ ছাত্রদের ব্যাবহারের বিষয়ে অবাক হচ্ছেন মিডিয়া কর্মিরা। অবিভাবকদের  পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে এর প্রতিবাদ জানিয়ে দেশব্যাপি গণসাক্ষর কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। তাবলীগের মূলধারা সাথীরা বাধ্য হয়েই  সাংবাদিক সম্মেলন করে এর নিন্দা জানিয়েছেন। এর প্রতিবাদো সাধারণ মানুষের পক্ষ থেকে ‘সোচ্চার  হোন’ আহব্বানে লিফলেট ছাড়া হয়েছে সারা দেশে।

 

এসব কারনে বিষয়টি এখন চতম ঘৃনীত একটি কাজ হিসাবে স্বীকৃতি পাচ্ছে। এর ফলে ৫মে শাপলা চত্তরে এভাবে ছাত্রদের ব্যাবহার করা ও রাতের আধারে কোমলমতি শিশু কিশোরদের রেখে দেশ বিদেশে পালিয়ে যাওয়া চক্রটি সম্পর্কে নতুন করে আলোচনা উঠে এসেছে সর্বত্র।

গতকাল তাবলীগের সাথীরা মিডিয়ার সামনে সাংবাদিক সম্মেলনে স্পষ্ট করেই বলেন, আগামী ৩০নভেম্বর শুক্রবার থেকে টঙ্গির ময়দানে দাওয়াত ও তাবলীগের পুরানো সাথীদের, ৫দিনের জোড়  ইনশাল্লাহ অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত জোড়ে সারাদেশের অন্তত ৬লক্ষ তাবলীগের তিন চিল্লার সাথী অংশ গ্রহন করবে।

আপনারা নিশ্চয় জানেন, বিগত ৬০বছর যাবৎ দিল্লীর নিজামুদ্দিন মারকাজ ও কাকরাইলের মুরুব্বীদের তত্বাবধানে এই জোড় অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। বিগত ১বছর আগে এই জোড়ের ফায়সালা হয়েছে। বাংলাদেশের তাবলীগের মূলধারার মুরুব্বীগন এই বছরের ৫দিনের জোড় করার ব্যাপারে চুড়ান্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন।

কিন্তু, সম্প্রতি দুঃখজনক সংবাদ হল, যা ইতোমধ্যে বিভিন্ন অনলাইন গনমাধ্যমে এসেছে যে, উক্ত  ৫দিনের জোড়কে বানচাল করতে,  বিগত কয়েকদিন  যাবৎ টঙ্গীর  ময়দান পাহারার নামে ঢাকা ও আশপাশের জেলা থেকে কওমী মাদরাসার কোমলমতি ছাত্রদের লাটিসোটাসহ টঙ্গির ময়দানে জড়ো করা হয়েছে।

ধর্মীয় সংঘাতময় কাজে এভাবে শিশু কিশোরদের ব্যবহার করা সামাজিক, রাষ্ট্রীয়, মানবিক ও শিশু আইনে মারাত্বক অপরাধ ও অন্যায় গর্হিত কাজ বলে বিবেচিত। ৫দিনের তিনচিল্লার সাথীদের জেড়ের দিন কোনভাবেই টঙ্গীতে ছাত্রদের থাকার সুযোগ নেই। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে সারা দেশের  তাবলীগের সাথীরা যথানিয়মে টঙ্গীর ইজতেমার ময়দানে পৌছবে।

এতে করে যদি মাদরাসার ছাত্রদের কেউ রাজনৈতিক হীনস্বার্থে উস্কে দিয়ে সেদিন কোন প্রকার, দুঃঘটনা বা সংঘর্ষ  বা সংঘাত  ঘটায়, তাহলে  এরদ্বায়ভার অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কওমী মাদরাসা  শিক্ষাবোর্ড,  মাদরাসার উস্তাদ, মুহতামিম, কতৃপক্ষ ও তাবলীগের মূলধারাচ্যুত গুটি কয়েক মুরুব্বীকেই নিতে হবে।

অপরদিকে সারাদেশে অবিভাভকদের পক্ষ থেকে গণসাক্ষর কর্মসূচিতে বলা হয়েছে, ” আমাদের কলিজার টুকরো সন্তানকে ওরাসাতুল আম্বিয়া ও আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলার জন্য আমরা কওমী মাদরাসায় ভর্তি করেছি। তারা মনোযোগ দিয়ে পড়ালেখা করবে, নিয়মিত মাদরাসার ক্লাসে অংশগ্রহণ করবে,আমরা এমনটিই কামনা করেছিলাম।

আমাদের আশা ছিল, আমাদের সন্তানরা উলামায়ে কেরামের তত্বাবধানে  বিনয়ী, নম্র, ভদ্র, শান্তিপ্রিয় সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠবে।কিন্তু সাম্প্রতিক  আমরা লক্ষ্য  করছি, মাদরাসার ক্লাস বন্ধ করে মাদরাসার সম্মানিত মুহতামিম ও শিক্ষকগণ আামাদের সন্তানদের রাজনৈতিক সভা সমাবেশ, মিছিল মিটিংয়ে ব্যাবহার করছেন।

মাদরাসার ছাত্রদের চাপ দিয়ে সাম্প্রদায়িক,সংঘাতময় ও ধর্মীয় বিতর্কিত কাজে  বারবার ব্যাবহার করা হচ্ছে। এমনকি আামাদের কলিজার টুকরো সন্তানদের হাতে লাঠি তুলে দিয়ে,কখনো কাফনের কাপড় পড়িয়ে সংঘর্ষে নামিয়ে দিচ্ছেন।  ফলে ক্রমশ তারা উগ্র, অবাধ্য,ও সহিংস হয়ে উঠছে বা তাদের মন মানসিকতাকে পরোক্ষভাবে উগ্রপন্থী করে তোলা হচ্ছে। ফলে আমরা আমাদের সন্তসনদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ক্রমশ উদ্বিগ্ন হয়ে উঠছি।

এছাড়া নানান সংঘাতের মুহূর্তে  পুঁজি হিসেবে বারবার মাদরাসার অবুঝ  কোমলমতি ছাত্রদের সামনে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। যেমন, মসজিদ দখল, ইজতেমার মাঠ দখল, দিনের পর দিন ক্লাস বন্ধ করে সাম্প্রদায়িক উস্কানিমূলক ওজাহাতি জোড়ে ব্যাবহার করা ইত্যাদি।

আমরা আশা করছি, বিষয়টি বিবেচনা করে আমাদের সন্তানদের নিরাপদ ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে, দেশের সকল দেশপ্রেমিক  সচেতন অভিভাবক,মাদরাসার কমিটি মহোদয়, প্রসাশনিক কর্মকর্তা, গনমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, শান্তিপ্রিয় আলেম উলামা, দ্বীনদ্বার বুদ্ধিজীবী মহল যথোপযুক্ত পদক্ষেপ  গ্রহণ করবেন।”

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com