রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ১০:৪২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চলতি মাসেই চালু হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ অনলাইনে বিভিন্ন গ্রুপ ও পেইজ এডমিনদের নিয়ে মাশোয়ারার  বাংলাদেশে আরবি বিস্তারের মহানায়ক আল্লামা সুলতান যওক নদভী (দা.বা) দেওবন্দে গেলেন হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধলভী দা.বা. মনসুরপুরীকে নিয়ে সাইয়্যেদ সালমান হুসাইনি নদভির স্মৃতি চারণ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীর ইন্তেকালে বিশ্ববরেণ্য আলেমদের শোক আমীরুল হিন্দ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীঃ জীবন ও কর্ম আমার একান্ত অভিভাবক থেকে বঞ্চিত হলাম : মাহমুদ মাদানী মানসুরপুরীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের গভীর শোক প্রকাশ দেওবন্দের কার্যনির্বাহী মুহতামিম সাইয়েদ কারী মাওলানা উসমান মানসুরপুরী আর নেই
জাতীয় প্রেসক্লাবে মাদরাসা দখলের ষড়যন্ত্রকারীদের ভূয়া সাংবাদিক সম্মেলন

জাতীয় প্রেসক্লাবে মাদরাসা দখলের ষড়যন্ত্রকারীদের ভূয়া সাংবাদিক সম্মেলন

জাতীয় প্রেসক্লাবে মাদরাসা দখলের ষড়যন্ত্রকারীদের ভূয়া সাংবাদিক সম্মেলন

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

রাজধানীর গুলশান এলাকাধীন ভাটারা থানার কোকাকোলা এলাকায় আল  মাদরাসাতু মুঈনুল ইসলাম নিয়ে গত ১২ই আগস্ট বুধবার বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাব ভিআইপি লাউঞ্জে কতিপয় দুষ্কৃতকারী একত্রিক হয়ে একটি ভুয়া সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে।  সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সেই চিহ্নিত শাহরিয়ার মাহমুদ, যিনি মাদরাসার শুরা কমিটির নাম ভাঙ্গিয়ে সম্পূর্ণ অবৈধ ও সাংবিধানিকভাবে নিজেকে অত্র মাদরাসার সভাপতি দাবী করে আসছেন।  যদিও মাদরাসা দখলের ষড়যন্ত্র হিসাবে এই চিহ্নিত বহিরাগত চক্রটি বারিধারার জমিয়ত নেতা মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমীকে ক্ষেত্র বিশেষে সভাপতি হিসাবে প্রচার করে থাকে।

প্রথমতঃ ঢাকার শীর্ষ আলেমরা এই দখলবাজ মিথ্যাবাদীদের সকল ষড়যন্ত্রকে ঘৃনাভরে প্রত্যাখ্যান করেছেন ।  পরবর্তীতে বেফাকের কিছু চিহ্নিত দূর্নীতিবাজকে তারা নিজেদের পক্ষে ব্যবহারের জন্য খাড়া করে।  তারাও স্থানীয় সাথীদের বিপত্তির মুখে বাহ্যত পিছু হটলেও আড়াল থেকে ষড়যন্ত্রের গুটি চালতে থাকে।  তখন তারা আইনসংবিধানের তোয়াক্কা না করে সরাসরি উগ্রতা ও হিংস্রতার আশ্রয় নেয়।  সর্বশেষ পদক্ষেপ হিসেবে কুরবানীর ঈদকে কেন্দ্র করে এক ভয়াবহ জঙ্গীবাদী তাণ্ডবলীলা ঘটানোর প্রস্তুতি নেয় ।  কুরবানীর পশু জবাইয়ের অযুহাতে তারা মাদরাসায় ছুড়ি, চাপাতি ইত্যাদি জমাতে থাকে এবং ঈদের আগের দিন রাতে মসজিদমাদরাসার কর্তৃপক্ষ ও স্টাফদেরকে বিভিন্ন আকার ইঙ্গিতে ছুড়ি, চাপাতি দেখিয়ে ভীতি প্রদর্শন করতে থাকে।  এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে সবাই। এটি জানাজানি হলে কিছু মাদরাসার স্টাফ, আশপাশ ও পার্শ্ববর্তী এলাকার বাসিন্দাদের সম্মিলিত প্রতিরোধে তারা পিছু হটতে বাধ্য হয়।  তখন তারা থানার দ্বারস্থ হয়।  অথচ পুলিশি তদন্ত ও প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যমতে ষড়যন্ত্রকারীদেরকে প্রতিরোধ করার সিদ্ধান্তটি সময়োচিত ছিলো ।  ফলে ভাটারা থানার ওসি মামলা নিতে অস্বীকৃতি জানান।  এতে তারা স্থানীয় প্রশাসনের কাছে বারবার গিয়ে বিফল হয়ে ফিরে আসে।  তখন ষড়যন্ত্রের নতুন ছক আঁকতে শুরু করে।  যার ধারাবাহিকতায় গত ১২ই আগষ্টের ভুয়া সাংবাদিক সম্মেলনটি অন্যতম।

ষড়যন্ত্রের মূল হোতা শাহরিয়ার মাহমুদ সাংবাদিক সম্মেলনে নিজেকে সভাপতি দাবী করে।  এছাড়াও সম্মেলনটিতে বারাবার ঢাকার অনেক আলেমের নাম উল্লেখ করে উপস্থিত হবেন বলে ঘোষণা দিলেও শেষ পর্যন্ত কেউ হাজির হন নি।  এর আগেও এই চিহ্নিত গুটিকয়েক ষড়যন্ত্রকারী সারাদেশের আলেম উলামাকে ভুল তথ্যদিয়ে ওজাহাতি জোড় ,  সাংবাদিক সম্মেলন ও সারাদেশে ভুয়া পোষ্টারিং করে দেশে ধর্মীয় সংঘাত তৈরীর হীন চেষ্টা করে চরম ভাবে ব্যার্থ হয়।।  তাই এবার তাবলীগকে বাদ দিয়ে মাদরাসা দখলের ঘৃনীত ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের নীল নকশা আঁকতে শুরু করেছে।  যা দেখে পুরো উলামা সমাজ আর লজ্জিত।

মিরপুরের শাহরিয়ার মাহমুদ ও পুরান ঢাকার আমানুল হক নামের চিহ্নিত দুই বহিরাগত ওজাহাতি গডফাদার কর্তৃক এই মাদরাসা দখল করার ষড়যন্ত্র নিয়ে মিথ্যাচার দেখে খোদ জাতীয় প্রেসক্লাবের সাংবাদিকগণও বিস্মিত হন ।  ভাটারা থানার ওসির প্রদত্যাগের মতো ন্যাক্কারজনক দাবী থেকে তাদের আসল মানসিকতা বেরিয়ে আসে।  তাদের সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাহসী পদক্ষেপ অন্তরায় হওয়ায় এবার তারা সরাসরি ওসি সাহেবের অপসারণ দাবী করায় বহিরাগত এই চিহ্নিত দখলবাজদের চক্রান্ত আরো স্পষ্ট হয়ে উঠে সাংবাদিকসহ সকল সচেতন মহলের কাছে।  এরা যে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয় এবং আইন শৃঙ্খলা বিঘ্নকারী দখলবাজ চক্র তা ভাটারা থানার ওসির পদত্যাগ নিয়ে মাদরাসাকে জড়িয়ে সংবাদিক সম্মেলনে আরো স্পষ্ট হয়ে উঠে।

 এই চক্রটি গত এত তারিখ আলমাদরাসাতু মুঈনুল ইসলাম দখলের সুগভীর ষড়যন্ত্র করলে স্থানীয় মুসল্লীগন তাদের প্রতিহত করে। এতে ব্যার্থ হয়ে এরা এখন ভূয়া সাংবাদিক সম্মেলন করে জাতীকে বিভ্রান্ত করতে চায়। উল্লেখ্য যে তাবলীগ জামাত নিজামুদ্দীন অনুসারী বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন ও কাকরাইলের মুরুব্বি মুফতী আাতাউর রহমান ইন্তেকাল করেন। তার মৃত্যুর পর মুফতী আতাউর রহমান সাহেবের শশুর ও অত্র মাদরাসার শায়খুল হাদীসসদরুল মুদাররিসিন শায়খুল হাদীস মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক কাসেমীকে মুহতামিম বানানো হয়। মুফতী আতাউর রহমান রহ মৃত্যুর আগে অত্র প্রতিষ্ঠানের দলিলে উক্ত মাদরাসাকে নিজামুদ্দীন মারকাজের অনুসারী আকেমদের পরিচালনায় চালানোর কথা লিখে দিয়ে যান। এই চিহ্নিত ষড়যন্ত্রকারী গডফাদার বহিরাগত চক্রটি এসব তথ্যকে আড়াল করে বরাবরের মতোই বেফাকের নাম ভাঙ্গিয়ে মাদরাসা দখলের উদ্দেশ্যে এই ভুয়া সাংবাদিক সম্মেলন করে। 

 এরাই বিগত দুই বছর বেফাকের বিতর্কিত মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কদ্দুস ও শফীপুত্র আনাস মাদানীকে ব্যাবহার করে কওমী শিক্ষাবোর্ড বেফাককে ব্যাবহার করে তাবলীগ দখলের ঘৃনীত ষড়যন্ত্র করে, বেফাক থেকে মুফতী ইজহারুল ইসলাম চৌধুরীর লালখান বাজার মাদরাসামুফতী আাতাউর রহমান রহ এর প্রতিষ্ঠিত আলমাদরাসাতু মুঈনুল ইসলাম বহিষ্কার করার ঘোষনা দেয়। পরে মুফতী আতাউর রহমান রহ বেফাকের বিরোদ্ধে হাইকোর্টে রীট করেন। এই রীটের পর আদালত অবমাননা করলে বেফাক সভাপতি আহমদ শফীর বিরোদ্ধে আদালতে মামলা না করে বিবেকের তাড়নায় মুফতী আতাউর রহমান রহ জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড নামে দেশের সহস্রাধিক কওমী মাদরাসা নিয়ে আলাদা বোর্ড গঠন করেন। এখন তারই মৃত্যুর পর বেফাকের নাম ভাঙ্গিয়ে বেফাক ও আলমাদরাসাতু মুঈনুল ইসলামের বহিরাগত এই লোকগুলো চক্রান্তে মেতে উঠে।  সচেতন মহল মনে করছে বেফাক ও আলমাদরাসাতু মুঈনুল ইসলাম নিয়ে আবার সংঘাতময় পরিস্থিতি তৈরী করতে। আমরা আশা করি সচেতন উলামায়ে কেরাম আর কখনো এই চিহ্নিত ষড়যন্ত্রকারী ও মিথ্যাবাদীদের ফাঁদে পা দিবেন না।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com