শুক্রবার, ২০ নভেম্বর ২০২০, ০৭:২৬ অপরাহ্ন

এক মেডিকেল ছাত্রীর বিস্ময়কর দাওয়াতী মেহনত

এক মেডিকেল ছাত্রীর বিস্ময়কর দাওয়াতী মেহনত

এক মেডিকেল ছাত্রীর বিস্ময়কর দাওয়াতী মেহনত

মাওলানা হাকীম সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স-মাস্টাস করা মেয়েটির বিয়ে হয় ঢাকার এক বুয়েট পাশ ইঞ্জিনিয়ারের সাথে। স্বামী দাওয়াত ও তাবলীগের সাথে জড়িত। একসময় স্ত্রীকে নিয়ে বের হলেন মাস্তুরাতসহ পুরুষ জামাতে। মাত্র তিন দিনে জাদুমন্ত্রের মতো মেয়েটি সম্পূর্ণ বদলে গেল। শুধু কি বদলে যাওয়া? না, শরীয়া পর্দা পালন, সুন্নাতে নববীর পরিপূর্ণ অনুসরণ আর আমলের জজবার সাথে একজন দাঈ ইলাল্লাহ হয়ে গেল।

সে।তার বদলে যাওয়ার সাথে সাথে তার প্রভাব আর আখলাক ও দাওয়াতের মেহনতে বদলে যেতে লাগল শ্বশুর বাড়ি, বাবার বাড়ি, ভাই-বোনসহ চারদিক। তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ছিলেন ঢাকার একজন নামকরা মহিলা ডাক্তার অধ্যাপিকা। তার সাথে সম্পর্কের গভীরতার ফলে তিনি তাকে দাওয়াত দিলেন। স্বামীসহ ডাক্তার দম্পতি বের হলেন একবার তাদের সাথে তিন দিনের জন্য। ব্যস, বদলে গেলেন এই দম্পতিও। তারা কাজ করতে লাগলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী আর মেডিক্যালের ডাক্তার-নার্সদের মাঝে। মেডিক্যাল থেকে দলে দলে ছেলেরা বের হলো।

এদের প্রচেষ্টায় আজ দেশের সবকটি মেডিক্যাল কলেজে দাওয়াতি কাজের এক চমৎকার পরিবেশ তৈরি হয়েছে। অনেক মেডিক্যালে ঢুকলে বিস্মিত হতে হয়, কলেজ না মাদরাসা এ নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়তে হয়। যেন ছাত্র-শিক্ষকের মাঝে সুন্নাত পরিপালনে এক প্রতিযোগিতার আসর বসেছে।

শুধু কি তাই, সেই ডাক্তার ম্যাডামের একজন পেশেন্ট ছিলেন দেশের এক সময়ের খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নায়িকা। তিনি তার সামনে ইসলামের মহান সৌন্দর্য আর আখেরাত তুলে ধরে দাওয়াত দিলেন। দাওয়াত পেয়ে এক সময় নায়িকা তার ছেলেসহ তিন দিনের জন্য বের হলেন।

এরপর ১০ দিন, তারপর এক বছর, তারপর এবার চিল্লার জন্য বের হয়েছেন কিছুদিন আগে। এসেছিলেন আমার বাসায়। তার মুখে শোনা এই পুরো ঘটনা আমার স্ত্রী বর্ণনা করলেন। এখন রাত জেগে তেলাওয়াত, নামাজ, চোখের অশ্রু ঝরানো এবং দাওয়াত ও তওবাই তার জীবনের কাজ। চলচ্চিত্রের অনেকেই এসেছেন তার দাওয়াতে এ পথে। প্রতি বছর কাকরাইলে মাস্তুরাতের পয়েন্টে  সময় দেন। এখন দ্বীন আর দ্বীনের মেহনতই তার জীবনের একমাত্র স্বপ্ন।

আলহামদুলিল্লাহ! আমি ইতিমধ্যে স্ত্রী ও আম্মাকে নিয়ে বেশ কয়েকবার সময় লাগিয়েছি মাস্তুরাতসহ জামাতে। তাদের ভেতরে অনেক পরিবর্তন। কালির কলমে সেকথা লিখে ও ব্যাখ্যা করে বুঝানো মুশকিল। যারা বের হয়েছেন তারাই কেবল বলতে পারবেন।

মাহরাম পুরুষের সাথে আল্লাহর রাস্তায় বের হওয়ার জন্য রয়েছে জায়েযের বাইরেও বেশ কিছু তাকওয়ার শর্ত। নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করে স্থানীয় তাবলীগ মারকায থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর বের হতে হয়। আজ আসুন, আমাদের\ নারীদেরকে কেবল ঘরনী না বানিয়ে ধরনীকে বদলে দিতে জয়িতা বানাই। বের হই তাদের নিয়ে আল্লাহর রাহে। কবুল কর মেহেরবান মওলা।0f 4170
n

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com