রবিবার, ২২ নভেম্বর ২০২০, ১০:৪১ পূর্বাহ্ন

মায়েরকোলে শিশুর প্রাক প্রাথমিক সিলেবাস

শিশুর প্রাথমিক সিলেবাস

মাওলানা সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ

পরিচালক, সিলেবাস বিভাগ; জাতীয় রকওমী মাদরাসা শিক্ষার্বোড বাংলাদেশ

ভূমিকা

দয়াময় মেহেরবান আল্লাহর নামে শুরু করে তাঁরই প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই যিনি আমাদের মুসলিম পরিবারে স্থান করে দিয়েছেন, আলহামদুলিল্লাহ। আজ মুসলিম হিসেবে নিজেকে ইস্তিকামাত রাখা ও পরিবারকে মুসলিম হিসেবে গড়ে তোলা খুবই চ্যালেঞ্জিং হয়ে দাঁড়িয়েছে। শয়তানী শক্তি নব নব পরিকল্পনা দিয়ে প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে মুসলিম পরিবারে ভাংগন ও ঈমানের পথ থেকে সরানোর সকল প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এমতাবস্থায় মুসলিম পিতা মাতার আরো বেশী সচেতনতার সাথে প্রযুক্তির ব্যবহার দিয়েই সন্তানদের আদর্শ মুসলিম হিসেবে গড়ে তোলার আরো বেশী পরিশ্রম করে যেতে হবে। সর্বোপরি নিজেরা বাস্তব জীবনে দ্বীনের অনুসারী হয়েই মহান রবের কাছে কায়মনোভাবে দু’আ করে যেতেই হবে।

প্রত্যেক শিশুই ফিতরাত তথা আল্লাহর তাওহীদবাদ ও একত্ববাদের স্বীকৃতি দিয়ে পৃথিবীতে আসে। কিন্তু পরবর্তীতে তার পিতা-মাতা ইয়াহুদী, খ্রীষ্টান অথবা অগ্নিপূজক বানায়। বুখারী ও মুসলিম শরীফ

ইমাম গাজ্জালি রহ. বলেছেন: ‘সন্তান মাতা-পিতার কাছে আমানত। সন্তানের হৃদয় নকশা- ইমেজমুক্ত এক সরল-স্বচ্ছ  মুক্তা, যা যেকোনো নকশা- ইমেজ ধারণ করতে প্রস্তুত। তাকে যে দিকেই হেলানো হবে সে সে দিকেই ঝুঁকে পড়বে। যা কিছু উত্তম ও ভালো তা যদি তাকে শেখানো হয়, তাকে যদি এগুলোর প্রতি অভ্যস্ত করে নেয়া হয় তবে সেভাবেই সে বড় হবে। ফলে তার মাতা-পিতা দুনিয়া ও আখেরাতে সৌভাগ্যবান হবে। তার উস্তাদ ও আদব-কায়দার শিক্ষকগণও তৃপ্তি অনুভব করবে। এর বিপরীতে তাকে যদি খারাপ বিষয়ে অভ্যস্ত করা হয়, জন্তু জানোয়ারের মতো তাকে লাগামহীন করে দেওয়া হয়, তাহলে সে ভাগ্যবিড়ম্বিত হবে, অতঃপর নিক্ষিপ্ত হবে ধ্বংসের গহ্বরে। আর এর দায়ভার বর্তাবে তাদের ঘাড়ে যারা ছিল তার কর্ণধার, যাদের দায়িত্ব ছিল তাকে মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার।

মহান আল্লাহ আমাদের আহবান করে বলেছেন-

হে মুমিনগন! তোমরা নিজদিগকে এবং তোমাদের পরিবার পরিজনকে রক্ষা কর আগুন থেকে যার ইন্ধন হবে মানুষ ও পাথর। সূরা আত তাহরীমঃ ৬

মানুষ যখন মারা যায়, তখন তার আমল বন্ধ হয়ে যায়। তবে তিনটি আমল চলতে থাকে। সাদাকায়ে জারিয়া অথবা এমন ইলম যা দ্বারা কল্যান লাভ করা যায় অথবা নেককার সন্তান, যে তার জন্য দু’আ করে। সহিহ মুসলিম

সন্তানদের সঠিক শিক্ষা ও পরিবেশ দিয়ে গড়ে তোলা আজ বড় একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কুর’আন ও হাদীসের শিক্ষাকে সামনে রেখে প্রতিটি পরিবারে পিতা মাতাকে সচেতন ও পরিকল্পিতভাবে সন্তান গঠনে সময় ও শ্রম দিতে হবে। উভয়ের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ও উপযুক্ত পরিবেশের স্পর্শে মহান আল্লাহ সেই পরিবারের সন্তানকে সঠিকরুপে গড়ে তোলার সহায়ক উপাদান দিবেন ইন শা আল্লাহ।

এই বইটিতে ছোট পরিসরে ১-৫ বছর শিশুর জন্য একটি সিলেবাস ও দু’আ সন্নিবেশিত করা হলো। মহান আল্লাহ আমাদের সন্তানদের ও তাদের পরিবারকে জান্নাতী হিসেবে গড়ে দিন ও কবুল করে নিন এবং আমাদের ক্ষমা করে জান্নাতী হিসেবে কবুল করে নিন।

 

সন্তান গঠনে পর্যায়ক্রমিক শিক্ষাদানের ছোট একটি সিলেবাসঃ

অভিজ্ঞতার আলোকে একটি ছোট্ট সিলেবাস উল্লেখ করা হলো। এটা একটি পরামর্শভিত্তিক সিলেবাস। আপনারা নিজের মত করে এর সাথে আরো কিছু পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করে নিতে পারেন।

জন্মের পর-১ মাসঃ সিলেবাস ও করনীয়ঃ

এই ক্ষেত্রে  মা বা সন্তানের তদারক  যিনি করবেন তাকে কিছু দু’আ শিখে নেয়া উত্তম।

  • মা যখন বুকের দুধ খাওয়াবেন তখন দুধ পানের দু’আ শিশুকে শুনিয়ে বলা।
  • এই সময় মা তেলাওয়াত শুনার কাজ করবেন বা নিজেই তেলাওয়াত করবেন।
  • শিশুকে মাঝে মাঝেই জড়িয়ে এমনভাবে ধরুন যেন চামড়ার সাথে চামড়ার সংস্পর্শ হয়,

সেই সময় মহান রবের কাছে বিভিন্ন দু’আ করা।

  • ঘুমের সময় যে যিকির রয়েছে তা শব্দ করে বলা যেন শিশুর কানে যায়।
  • খাবার খাওয়ার শুরুতে ও শেষ করার দু’আ সমূহ শব্দ করে বলা যেন শিশুর কানে যায়।
  • পায়খানা/প্রস্রাব করানোর পূর্বে বা পরিষ্কার করার পূর্বে টয়লেট এর দু’আ সমূহ শব্দ করে

শুনিয়ে বলা।

  • পরিধেয় বস্ত্র পরিবর্তন করার সময় শিশুকে শুনিয়ে দু’আ পাঠ করা
  • জন্মের এক ঘন্টার মধ্যে রবের নাম নিয়ে বুকের দুধ খাওয়ান
  • বাচ্চাকে যখন খাড়া করে ধরবেন মাথায় সাপোর্ট দিন
  • প্রায়ই বাচ্চাকে মাসাজ্‌ করুন এবং জড়াজড়ি করে আদর করুন
  • যতবার সম্ভব বাচ্চার সাথে কথা সুন্দর করে বলুন, ভালো কিছু পড়ুন।
  • টিকাদান কার্ড সঠিকভাবে সঠিক সময়ে পূরন করুন।

বর্জনীয় কাজঃ

বাদ্যযন্ত্র বা মিউজিক ও গান( তথাকথিত বাংলা ইংরেজী রাইমস) ছেড়ে শুনাবেন না।

মোবাইল বা টিভির সামনে মিউজিক ধরনের শব্দ থেকে দূরে রাখুন শিশুকে।

মাথার কাছে মোবাইল বা ডিভাইস যা ইন্টারনেট সম্বলিত রাখবেন না।

জন্মের পর ২-৩ মাসঃ সিলেবাস ও করনীয়ঃ

* এই সময়েও সন্তান যখন বিছানায় শুয়ে হাত পা নাড়াবে, তখন কুর’আন তেলাওয়াত ছেড়ে শুনানো।

  • সন্তানের সাথে হাসি মুখে মহান আল্লাহর নাম সমূহ বার বার বলা।
  • সন্তানকে যখন দুলাবেন তখন উপরে উঠানোর সময় আল্লাহু আকবার ও নীচে নামানোর সময় সুবহানা আল্লাহ শুনিয়ে শুনিয়ে বলুন।
  • সুবহান আল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ ও আল্লাহু আকবার সহ কলেমার যিকিরসমূহ করা। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ স. বলা।
  • ইসলামিক গান বা ছড়া( অবশ্যই মিউজিক ছাড়া) শুনাতে পারেন।
  • হাসিমুখে আস্তে ধীরে কথা বলা।
  • মায়ের সান্নিধ্যে ঘুমাতে দেয়া

বর্জনীয় কাজঃ  

উত্তেজিত কণ্ঠে কোন কথা বলা বা শুনা থেকে দূরে রাখা।

বাদ্যযন্ত্র বা মিউজিক ও গান( তথাকথিত বাংলা ইংরেজী রাইমস) ছেড়ে শুনাবেন না।

মোবাইল বা টিভির সামনে মিউজিক ধরনের শব্দ থেকে দূরে রাখুন শিশুকে।

মাথার কাছে মোবাইল বা ডিভাইস যা ইন্টারনেট সম্বলিত রাখবেন না।

 

জন্মের ৪-৬ মাস  সিলেবাস ও করনীয়ঃ  

  • এই সময় শিশুকে আল্লাহু আকবার,আলহামদুলিল্লাহ ও সুবহানা আল্লাহ শেখান বার বার বলে।
  • যতবার সম্ভব শিশুর সাথে হাসিমুখে সুন্দর কথা বলুন, শব্দ করে কিছু (হাদীস বা জীবনী) পড়ুন বা তেলাওয়াত শোনান।
  • হাসি মুখে খেলা করুন। বিছানায় একা হাত পা নাড়তে দিন তাতে ব্যয়ামের কাজ হবে ও ক্ষুধা লাগবে।
  • গোসলের আগে হালকা মেসেজ করে দিন।
  • বাচ্চাকে একটা পরিস্কার, নিরাপদ সমতলে রাখুন, যেন মুক্তভাবে নড়াচড়া করতে পারে এবং  জিনিষপত্র ধরতে পারে,
  • বাচ্চাকে তুলে ধরুন এমনভাবে, যেন সে আশপাশে কী হচ্ছে দেখতে পায়
  • দিনে রাত্রে, বুকের দুধ খাওয়ানো চালু রাখুন, তার সাথে অন্য খাবারও দিতে শুরু করুন ( ৬থেকে ৮

মাস বয়স পর্যন্ত দিনে দুবার, ৮ থেকে ১২ মাস পর্যন্ত দিনে তিন থেকে চারবার)।

 

জন্মের ৭-৯ মাসঃ সিলেবাস ও করনীয়ঃ   

  • এই সময় ছোট ছোট যিকির শুনিয়ে হাসিমুখে খেলা করা,
  • ছোট ছোট সূরা শুনিয়ে বার বার তেলাওয়াত করা
  • আযানের সময় চুপ করে আযান শুনতে দেয়া ও শুনিয়ে আযানের জবাব দেয়া
  • সন্তানের গোসল খাওয়াসহ সকল কাজেই আনন্দের সাথে মহান আল্লাহর নামে করা যা সন্তানকেও

বুঝতে দিতে হবে।

  • ছোট ছোট বর্ণ বা ব্লক দিয়ে কনস্ট্রাকটিভ খেলায় সময় দিতে হবে মা বা বাবাকেই।
  • এই সময় নিজেদের বিছানাসহ শিশুর বিছানা ফ্লোরে নীচে কিছুদিনের জন্য করে নিতে পারেন যেন

শিশু পড়ে না যায়।

  • ছোটদের নবী কাহিনী থেকে শব্দ করে পড়ে শুনানো, শিশু না বুঝলেও শুনার অভ্যাস গড়ে উঠবে।

বর্জনীয় কাজঃ  

  • উপহার পাওয়া মিউজিকসহ খেলনা দিয়ে খেলা করা।
  • গৃহকর্মীর কাছে একা খেলতে ছেড়ে দেয়া।
  • নিজ কাছের বা দূরের আত্মীয় বিশেষ করে বিপরীত লিংগের কাছে একা ছেড়ে দেয়া।
  • একা ঘরে ঘুমন্ত রেখে চলে যাওয়া(সজাগ হয়ে হামা দিয়ে পড়ে যেতে পারে)

জন্মের ১০-১২ মাসঃ সিলেবাস ও করনীয়ঃ   

 

  • ছবি বা কোন জিনিষের দিকে দেখিয়ে তার নাম বলুন ও তাকেও বলতে দিন এবং সাথে সাথে আলহামদুলিল্লাহ বলুন।
  • মসজিদ, মক্কা, জায়নামায, ফল ফুল ও প্রানীর ছবি দেখান ও শেখান।
  • শিশুর সাথে প্রায়ই খেলুন ও সুন্দর করে কথা বলুন
  • মাঝে মাঝে খুব অল্প সময় কম্পিউটারে ইসলামিক ছোটদের অনুষ্ঠান মিউজিক ছাড়া নিজে বসে থেকে দেখান ।
  • পরিবারের সাথে একসাথে টেবিলে প্লেট চামচ দিয়ে/হাতে খেতে বসিয়ে দিন।
  • অতিথিদের সামনে নিজে সাথে নিয়ে যান ও সালাম দিতে শেখান।
  • অতিথির সন্তানদের সাথে মিশতে দেয়া ও লক্ষ্য রাখা।
  • অতিথিদের বা কারো বিদায়ের সময় দরজার কাছে যেয়ে সালাম দিয়ে বিদায় দেয়া শেখান।
  • সালাতের সময় হলে নিজে সালাতে দাঁড়িয়ে পাশেই আরেকটি জায়নামায দেয়া যেন শিশুটি বুঝতেশেখে।
  • ঘুম,গোসল, খাবারের নির্দিষ্ট সময় করে অভ্যস্থ করুন।
  • খেলনা সাথে নিয়ে গুছানো ও বুঝিয়ে বলা।
  • দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য বাচ্চার আশপাশ যতটা সম্ভব নিরাপদ রাখুন,
  • বুকের দুধ খাওয়ানো চালু রাখুন এবং খেয়াল রাখুন যেন পর্যাপ্ত সকল পুষ্টিখাবার
  • শিশুর সব টীকাকরণ এবং পরামর্শ মত সব মাইক্রোনিউট্রিয়েণ্ট বিকল্প দেওয়া নিশ্চিত করুন
  • যদি শিশুর বিকাশ ধীরে হয় বা কোন অসামর্থ্য থাকে, যেসব সামর্থ্য আছে তাতে জোর দিন এবং

বাড়তি উদ্দীপনা ও বেশী মেলামেশা করুন।

বর্জনীয় কাজঃ  

কোন মানুষ বা ভূত জীনের ভয় দেখিয়ে খাওয়ানো বা ঘুম পাড়ানো।

অনৈসলামিক গান শুনিয়ে ঘুম পাড়ানো।

টিভিতে প্রানী (geography channel)ও কার্টুন দেখায় বসিয়ে রাখা

অন্য শিশুদের সাথে খেলনা শেয়ার করতে না দেয়া।

একাকী বিপরীত লিংগের কাছে ছেড়ে দেয়া আত্মীয় বা অনাত্মীয়

সন্তানের ঘর সাজাতে কোন প্রানীর বা কার্টুনের ছবি দেয়ালে  সাজানো

জন্মের ১-২ বছরঃ সিলেবাস ও করনীয়ঃ 

  • মা বাবার সান্নিধ্যেই বেশী সময় রাখা।
  • নির্দিষ্ট সময়ে যেমন সকাল ও বিকালে যিকিরগুলো নিজে করা ও শিশুকে একটি একটি করে শেখানোর প্রচেষ্টা চালানো।
  • প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে কুর’আন তেলাওয়াত শুনানো।
  • আযান এর জবাব ও সালাত আদায়ের সময় সাথে নিয়ে করা।
  • সুর দিয়ে তেলাওয়াত করতে উদ্বুদ্ধ করা।
  • আদর দিয়ে সুন্দর করে ডাক দেয়া ও তাকেও অভ্যস্থ করা যেন জবাব প্রতিক্রিয়া যেন সুন্দর হয়।
  • নিজে সুন্দর করে গল্প বলুন বা সুন্দর ঘটনা বলুন।
  • কনষ্ট্রাক্টিভ খেলায় শিশুকে যুক্ত করুন। ছবি আঁকার মাধ্যমে কিছু শেখানো।
  • বাচ্চার সাথে পড়ুন, শিশুকে বই দিন পড়ার জন্য(ভাববে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে অন্যদের মত)
  • বাচ্চাকে বিপজ্জনক জিনিষ এড়িয়ে যেতে শেখান
  • বাচ্চার সাথে সাথে স্বাভাবিকভাবে কথা বলুন, বাচ্চাদের মত করে কথা বলবেন না
  • বুকের দুধ খাওয়ানো চালু রাখুন এবং নিশ্চিত করুন যেন বাচ্চা যথেষ্ট খাবার পায় এবং বাড়ীর অন্য খাবারও  বাচ্চাকে খেতে উৎসাহ দিন, জোর করে নয় বুঝিয়ে গল্পের ছলে।
  • সাধারণ কিছু নিয়ম এবং যুক্তিসংগত কিছু প্রত্যাশা বলে বুঝতে দিন
  • বাচ্চার করা কাজের জন্য প্রশংসা করুন
  • পরিবারের কিছু নিয়ম আছে সেটা সকলেই পালন করে বুঝতে দিন।

বর্জনীয় কাজঃ  

সাজ গোজের ও আয়নার সামনে থাকা বেশী উৎসাহিত করা

রাগ বা অভিমান করার দিকে খুব বেশী নজর দেয়া

ভালো কাজের পর কোন প্রতিক্রিয়া না দেখানো

খারাপ কাজ করে ফেললে অতিরিক্ত বকা বা প্রতিক্রিয়া দেখানো

ভুল করে ফেললে নির্লিপ্ত থাকা বা কিছু না বলা

শিশুর অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয়া বা মেনে নেয়া

অন্যের সামনেই শিশুর ভুলগুলো তুলে ধরা

অন্যের সামনে শিশুর যা নেই তা বলে প্রশংসা করা

জন্মের ২-৩ বছরঃ সিলেবাস ও করনীয়ঃ

  • এই সময় সন্তানকে আরো বেশী কাছে রেখে সময় দিন।
  • কলেমা ও ছোট সূরা শেখানোর পরিকল্পনা নিন।
  • মহান রবের নাম শেখান।
  • যেকোন সুন্দর দৃশ্য বা ছবি দেখে মহান রবের বড়ত্ব তুলে ধরুন।
  • ছোট ছোট দু’আ যেমন খাবারের পূর্বে ও পরে, ঘুমের সময় ইত্যাদি শেখান ও অভ্যস্থ করুন।
  • হাত ধুয়া ও টয়লেট থেকে পরিচ্ছন্ন হওয়ার আদব শেখান
  • নিজের কাপড় চোপড়, জুতা ও খেলনা বই গুছিয়ে রাখানো শেখান।
  • পরিবারের অন্যদের সাথে সহায়ক ভূমিকা রাখাও সাথে নিয়ে উদ্বঅদ্ধ করুন।
  • বিকালে বাইরে খোলা আকাশের নীচে সবুজ ঘাসের সান্নিধ্যে নিয়ে যাওয়া মাঝে মাঝে।

জন্মের ৩-৫ বছরঃ

আমাদের সমাজে অনেক পরিবারেই দেখা যায় শিশুকে ৩ বছর হলেই স্কুলে ভর্তি করার জন্য খুব জোর প্রচেষ্টা চালাতে থাকেন। প্রিস্কুলের পড়াশুনাটা মা বাবা নিজেরাই বাসায় শিশুকে দিলে সবচেয়ে ভালো ও উন্নত শিক্ষা লাভ করতে পারে শিশুটি, এইক্ষেত্রে শিশুর সুন্দর বিকাশ ও মানসিক প্রশান্তি ও পরিবারে নিজেদের মধ্যে বন্ধন আরো গভীর হয়। ৫ বছর পর্যন্ত শিশুটিকে নিজ হাতে পরিবারের সুন্দর পরিবেশে শিক্ষা দিলে সবচেয়ে উত্তম। তবে অনেক ক্ষেত্রেই চাকরিজীবী হওয়ার কারনে বা অল্প শিক্ষিত বা অসুস্থতার কারনে সন্তানের শিক্ষা দিতে অপারগ পরিবার পূর্বেই স্কুলে দিয়ে থাকেন, এইক্ষেত্রে অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে যেন একটি আদর্শ সুন্দর ও ঘরোয়া পরিবেশে শিক্ষাদানের ব্যবস্থা করা যায়। মূলত বাবা মা নিজেরাই যদি স্কুল কলেজের পড়াশুনার গাইড দিতে পারেন সেটা হবে সন্তানের জন্য অনেক বড় নি’আমত এবং এই শিশুরা অন্যরকম ভালো হয়ে গড়ে উঠে তা বাস্তবতার আলোকেই বুঝা যায়।

৩-৫ বছরের সন্তানদের জন্য বাংলা ইংরেজী পড়ার সাথে সাথে দীনী সিলেবাসঃ

মনে রাখতে হবে বাংলা ইংরেজী শেখাতে যেয়েও এমন জিনিষের সাহায্য নেয়া যাবে না যা শরীয়ত অনুমোদন করে না। যেমন মিউজিক সহ অন্য জাতির অনুসরনীয় রাইমস বা গল্প বা ছবি।

বয়স ও সামর্থ অনুসারে শেখান ও বাস্তবে আমল করান।

  • কলেমা তাইয়েবা ও কলেমা শাহাদাত
  • মহান আল্লাহর পরিচয়
  • মহান আল্লাহর নাম-১০টি অর্থসহ
  • তাওহিদ ও সুন্নাত উদাহরন দিয়ে বুঝানো
  • শিরক ও বিদ’আত উদাহরন দিয়ে বুঝানো
  • আল্লাহর হক ও বান্দাহর হক কি বুঝানো?
  • ছোট সূরা অর্থ সহঃ ফাতিহা, ইখলাস, কাউসার ফালাক ও নাস, ফীল, কুরাইশ,তাকাসুর,নসর,লাহাব,যিলযাল,আয়াতুল কুরসী,সুরা বাকারার শেষ ২ আয়াত,
  • ছোট ছোট দু’আঃ

প্রাত্যহিক জীবনের জন্য ও মহান রবের কাছে চাওয়া

  • গল্পের মত করে শুনান—

রাসূল স.এর শিশুবেলা থেকে কিশোর জীবন

চার খলিফাসহ বিভিন্ন সাহসী ও বিরত্ব্মূলক ঘটনা

উম্মুল মু’মিনীনদের কথা ও ঘটনা বিশেষ করে খাদীজা ও আয়েশা রা.এর জীবনী।

হযরত আদম আ.এর কথা

হযরত ইবরাহীম আ. ও ইসমাইল আ. এর কথা / কুরবানীর ঘটনা

জুম’আ ও দুই ঈদের কথা

জান্নাত ও জাহান্নামসহ ইবলিশের কথাও শুনান

কুর’আনের বিভিন্ন ঘটনা- গুহাবাসী, মুসা আ.ও বনী ইসরাইল, পিপড়া ও সুলায়মান আ. মৌ্মাছির কথা,

উটের কথা, মাকড়সার কথা

  • মৌলিক ইবাদাত প্রশিক্ষন (৫টি ভিত্তি সম্পর্কে জ্ঞান)

সহিহভাবে অযু

পবিত্রতা বিশেষ করে ইস্তিঞ্জা থেকে পবিত্রতা

সালাত ও সালাতে পঠিত বিষয় সমূহ সহিহ করে অর্থ বুঝিয়ে শেখা ও এর শিক্ষা জানানো।

সঠিকভাবে  হাত ধোয়া

  • আরবী বর্নমালাসহ আরবী মাসের নাম, সংখ্যা ওয়াহেদ-আশারা
  • জান্নাত ও জাহান্নামের নাম সমূহ শেখান
  • সহীহ তেলাওয়াত শেখানো

 

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com