শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন

দেওবন্দের কাছে ক্বারী জুবায়েরের অনৈতিক আবদারের ভয়ংকর ষড়যন্ত্র ফাঁস (অডিও সহ)

দেওবন্দের কাছে ক্বারী জুবায়েরের অনৈতিক আবদারের ভয়ংকর ষড়যন্ত্র ফাঁস (অডিও সহ)

বাংলাদেশে তাবলীগ সংকটের অন্যতম কারিগর ক্বারী জুবায়ের সাহেবসহ নেপথ্যের খলনায়কদের মুখোশ উম্মোচন হল এবার। গোপন ষড়যন্ত্র ও দেওবন্দের কাছে অনৈতিক আব্দারের বিষয়টি এবার উন্মোচিত হয়ে গেছে।

অারশাদ মাদানী দা.বা এর সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে মাওলানা জুবায়ের সাহেব তাঁকে অনুরোধ করলেন, সরকারের তরফ থেকে যে জামাত দেওবন্দ যাবে সে জামাতকে যেন লিখিত কিছু না দেওয়া হয়। অারশাদ মাদানী বললেন, সে কোথায় যাবে অার কোথায় যাবে না, এটা তো অামাদের বলার দায়িত্ব নয়। তখন জুবায়ের বললেন, অাপনারা যদি এমনকিছু লিখে দেন, তাহলে তারা এটাকে বাহানা বানাবে। পরবর্তী কথায় বুঝা গেলো, অারশাদ মাদানীর কাছে উনারা যে উদ্দেশ্যে গিয়েছিলেন তা পেয়ে বিফল মনোরথে ফিরতে হয়েছে। আসল কথা হলো, প্রতিনিধি দলের একজন সদস্য হয়ে জুবায়ের সাহেব এমন কথা কিভাবে বলেন? এমন প্রশ্ন এখন দেশজুুড়ে। অডিওটি শুনতে নিচের লিংকে প্রবেশ করিঃ https://youtu.be/ExW9k9dQgO8

ঘটনার সময় : ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ রোজ শনিবার, সকাল ০৬:৩০ মিনিট। স্থান : বসুন্ধরা, ব্লক : এফ, রোড : ১৫, বাড়ী : ৪১

প্রতিনিধিদল : ১ – মাওলানা শাহরিয়ার মাহমুদ ( মরহুম রুহুল কিশ্তের জামাতা ) ২ – মাওলানা ওবাইদুল্লাহ ফারুক ( শাইখুল হাদীস, জামেয়া মাদানিয়া বারিধারা ) ৩ – ইঞ্জিনিয়ার মাহফুয ( কাকরাইল মসজিদ ) ৪ – কারী জুবায়ের ( কাকরাইল মসজিদ ) ৫ – মাওলানা আবদুল বার ( মুহাদ্দিস, জামেয়া এমদাদিয়া ফরিদাবাদ ) ৬ – মাওলানা আবদুল কুদ্দুস ( মুহতামিম, ফরিদাবাদ মাদরাসা )

– আলমী শুরা প্রতিনিধিদল : আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহ।
– মাওলানা আরশাদ মাদানী : ওয়ালাইকুমুসসালামু ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ।
– কারী জুবায়ের : হযরত, চট্টগ্রামে আমাদের প্রোগ্রাম। এখনই ফ্লাইট। হযরত, একটা কথা বলার ছিলো। এখানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে যে মিটিং হয়েছে, তাতে তারা এ চেষ্টা করেছে যে, তারা দেওবন্দে পুনরায় যাবে। দেওবন্দের কাছে দেওবন্দের অবস্থান জানতে চাইবে। তারা চাচ্ছে, ” দেওবন্দ ওয়ালারা অন্তত এতটুকু বলে দিক বা লিখে দিক যে, বাংলাদেশে মাওলানা সাদ সাবের আসাতে কোন সমস্যা নেই। অথবা আমাদের কোন আপত্তি নেই। অথবা আপনারা এভাবে লিখে দেন যে, এনিয়ে আমাদের কোন উদ্বেগ নেই। অথবা কোন সম্পর্ক নেই”। এইজন্য দরখাস্ত হচ্ছে যে, তারা যদি যায়, তাহলে এজাতীয় কোন কথা মৌখিক বা লিখিত আকারে না দেওয়া হোক।
– মাওলানা আরশাদ মাদানী : দেখেন, দারুল উলুমের উপর অনেক প্রেশার ক্রিয়েট হচ্ছে। দারুল উলুম তো কোন এক ব্যক্তি নয়। এর আগে ওয়াসিফুল ইসলাম চাচ্ছিলেন যে, লিখিত দেওয়া হোক যে, বাংলাদেশে যাওয়াতে কোন আপত্তি নেই। মানা করা হয়েছিলো একথা বলে যে, এর সাথে আমাদের কী সম্পর্ক? তিনি যেতেন। তখন কি আমাদের মর্জীতে যেতেন? এটা আমাদের কোন মাসআলাই না। জামাতের কোন মাসআলায় আমরা দখলদার না।
– কারী জুবায়ের : বিগত বছর আমি হাজির ছিলাম (দেওবন্দে)। তখন মুহতামিম সাহেব বলেছিলেন যে, “ভাই! উনি কোথায় যাবেন, কী করবেন, এনিয়ে আমাদের উদ্বেগ নেই”। তারা চাচ্ছে, এ কথাই লিখে দেন। তাহলে তারা এ কথাকেই বাহানা বানাবে। লিখিত আকারে কোন কিছু না হোক।
– মাওলানা ওবাইদুল্লাহ ফারুক : আমাদের দরখাস্ত হচ্ছে, (প্রতিনিধিদলকে এতটুকু বলে দেওয়া) বাংলাদেশে যাওয়ার ব্যপারে বাংলাদেশের উলামারা জানে। আমাদের সাথে কোন সম্পর্ক নেই।
– মাওলানা আরশাদ মাদানী : না। এর সাথে ওলামাদের কি সম্পর্ক? বাংলাদেশবাসী জানে।
– মাওলানা ওবাইদুল্লাহ ফারুক : জী, বাংলাদেশবাসী জানে।
– মাওলানা আরশাদ মাদানী : আমি থাকতে পারি বা না পারি, তবে বাহ্যত তারা লিখিত আকারে কিছু দেবেনা। আমার ব্যক্তিগত ধারণা এটাই যে, কোন কিছু লিখিত আকারে দেবেনা। বাকি কী হয়, দেখা যাক।
– কারী জুবায়ের : ব্যস, তাদের ফিরিয়ে দেয়া। … হযরত ক্ষমা চাচ্ছি, বিমানের সময় কাছাকাছি।
– মাওলানা আরশাদ মাদানী : না। কোন ব্যপার না। আল্লাহ খায়ের।

 

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!