শনিবার, ১৯ Jun ২০২১, ০৮:৫৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চলতি মাসেই চালু হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ অনলাইনে বিভিন্ন গ্রুপ ও পেইজ এডমিনদের নিয়ে মাশোয়ারার  বাংলাদেশে আরবি বিস্তারের মহানায়ক আল্লামা সুলতান যওক নদভী (দা.বা) দেওবন্দে গেলেন হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধলভী দা.বা. মনসুরপুরীকে নিয়ে সাইয়্যেদ সালমান হুসাইনি নদভির স্মৃতি চারণ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীর ইন্তেকালে বিশ্ববরেণ্য আলেমদের শোক আমীরুল হিন্দ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীঃ জীবন ও কর্ম আমার একান্ত অভিভাবক থেকে বঞ্চিত হলাম : মাহমুদ মাদানী মানসুরপুরীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের গভীর শোক প্রকাশ দেওবন্দের কার্যনির্বাহী মুহতামিম সাইয়েদ কারী মাওলানা উসমান মানসুরপুরী আর নেই

তাসবীহ এখন বৃক্ষে

তাসবীহ এখন বৃক্ষে

মুহাম্মাদ আইয়ুব

রাস্তাঘাটে বেশ কয়েক বছর যাবত যে দৃশ্যটা আমাকে ভীষণ ভাবনায় ফেলে তা হচ্ছে গাছে গাছে তিন তাসবীহ তথা সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহু আকবারের সাথে লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু’র বাহারি সমন্বয়।

গাছে কিংবা খাম্বায় লেমিনেটিং করা রং বেরংয়ের কাগজে এই তাসবীহগুলো শোভা পাচ্ছে। মাশাআল্লাহ, খুব সুন্দর।

এই তাসবীহগুলো প্রতিনিয়ত পথচারী, পথিক ও আরোহী ব্যক্তিদের বারবার স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে যে,তুমি একজন আল্লাহর সৃষ্টি আশ্রাফুল মাখলুক্বাত।

গরু গাধা আর ছাগলের মত উদ্দেশ্যহীন বেপরোয়া জীবন তোমার নয়।
তোমাকে যেন তেন ভাবে চললে হবে না, হৃদয়টাকে আল্লাহ বিহীন করা যাবে না, মাওলাকে ভুলে গেলে চলবে না।
আর এজন্য তোমাকে সৃষ্টিও করা হয়নি।

তোমাকে তো উঠতে-চলতে,
বসতে- ফিরতে এক আল্লাহকে স্মরণ করা দরকার।

কিন্তু এই যে গাছে গাছে তাসবীহ ঝুলিয়ে দেওয়ার নতুন সংস্কৃতি এতে আমি যারপরনাই শংকিত ও বিস্মিত। আল্লাহর বাস তো বৃক্ষে নয় বরং বনী আদমের হৃদয়ে!

অথচ এমন এক সময়ে আমাদের এই মর্ত্যে বাস, যে সময়ে সাইনবোর্ড দিয়ে মনে করিয়ে দেওয়া লাগছে যে,আমি একজন মুসলমানের বাচ্চা মুসলমান।

আমাকে জিকির করা দরকার, আল্লাহকে ডাকা দরকার। আজ হৃদয়ের তাসবীহগুলো গাছে বাসা বেঁধেছে, কাল যখন বৃষ্টি বাতাসে সাইনবোর্ড ধুয়ে মুছে যাবে বা কেউ ছিড়ে, উপড়ে ফেলবে তখন পরশু আমি আল্লাহকে কি করে ডাকব?
কারণ আমি যে আল্লাহ কে চিনি না আর চিনার শেষ সম্বল কাগজটা কেউ ছিড়ে ফেলেছে!
আছে কোন গবেষক চিন্তাশীল,
যিনি বিষয়টা নিয়ে ভাববেন, চিন্তা করবেন?
আজ আমরা আওয়াম খাওয়াস সবাই এস্টাবলিশমেন্টের ধান্ধায় আছি।

বড় ভাই শহর থেকে ফোন দিয়ে বলছেন, তোরা এত এত শিক্ষিত হয়ে গ্রামে পড়ে আছিস!
আসলে তোদের কোন কালেই উন্নতি হবে না।
উদ্দেশ্য পরিষ্কার, দুনিয়া দুনিয়া এবং কেবলই দুনিয়া।

এই যে দুনিয়ার পিছনে নিরন্তর ছুটে চলা কিন্তু দিনশেষে ইয়াব্বড় এক অশ্বডিম্ব।
কি লাভ এতে?

আজ হৃদয় থেকে তাসবীহ গেছে গাছে
কাল কি হবে কেউ কি তা জানে?
আজ যখন আমরা ভাস্কর্য ইস্যু নিয়ে ইসলামের বয়ান শুনাই তখন মুসলমানের সন্তানরা মৌলবাদের বিরুদ্ধে মাঠে ময়দানে পাল্টা মিছিল করে, সমাবেশ করে, হুংকার দেয় আফগানিস্তান পাকিস্তানের পথ দেখিয়ে দেয়!
কিন্তু কেন?

কোনদিন কি এ প্রশ্ন মনে উঁকিঝুঁকি দিয়েছে?
নাস্তিক নাস্তিক গলা ফাটিয়ে কাপের পর কাপ চা শেষ করছি ভাঙা গলা জোড়া লাগাতে কিন্তু স্থায়ী সমাধান কি কখনো বের করেছি?

ভাববার সময় এখনো ফুরিয়ে যায়নি কান্ডারী!
আসুন সমাজ বিনির্মাণের সঠিক ও যুগোপযোগী পথ এখনো খুঁজে বের করি।

প্রিয় নবীজীর কলজে ছেঁড়া ধনকে জাহান্নামের বদলে জান্নাতের পথে তুলে দিতে সচেষ্ট হই।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com