শনিবার, ১৯ Jun ২০২১, ০৯:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চলতি মাসেই চালু হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ অনলাইনে বিভিন্ন গ্রুপ ও পেইজ এডমিনদের নিয়ে মাশোয়ারার  বাংলাদেশে আরবি বিস্তারের মহানায়ক আল্লামা সুলতান যওক নদভী (দা.বা) দেওবন্দে গেলেন হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধলভী দা.বা. মনসুরপুরীকে নিয়ে সাইয়্যেদ সালমান হুসাইনি নদভির স্মৃতি চারণ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীর ইন্তেকালে বিশ্ববরেণ্য আলেমদের শোক আমীরুল হিন্দ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীঃ জীবন ও কর্ম আমার একান্ত অভিভাবক থেকে বঞ্চিত হলাম : মাহমুদ মাদানী মানসুরপুরীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের গভীর শোক প্রকাশ দেওবন্দের কার্যনির্বাহী মুহতামিম সাইয়েদ কারী মাওলানা উসমান মানসুরপুরী আর নেই
একটি হৃদযগ্রাহী মোনাজাত

একটি হৃদযগ্রাহী মোনাজাত

হে আল্লাহ তুমি কবুল করো…
সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ
========================================
হে আল্লাহ, তুমি কত বুঝিয়েছো কিন্তু আমরা কেউ বুঝিনি, তুমি বাঁধা দিয়েছ কিন্তু আমরা কেউ থামিনি। তুমি সর্তক করেছে, আমরা সর্তক হইনি । তুমি কত সুযোগ দিয়েছে,আমরা গ্রহন করিনি। তুমি বুকে টেনেছ, আমরা কাছে যাই নি। তুমি ধমক দেয়ার পরেও আমরা বুঝি নি।
আমাদের এই সকল অক্ষমতাকে তুমি ক্ষমা করে দিয়ে আমাদের ঈমানকে তাজা করে দাও। ঈমানের স্বাদ, মজা ও লজ্জত আমাদের জীবনে দান করো।
ইয়া আল্লাহ!
এ নতুন চাঁদকে আমাদের নিরাপত্তা, ঈমান, শান্তি ও ইসলামের সঙ্গে উদিত করুন। আর আপনি যা ভালোবাসেন এবং যাতে সন্তুষ্ট হন, সেটাই আমাদের তাওফিক দান করুন।
হে চাঁদ! আল্লাহই তোমার এবং আমাদের রব।’
.
হে আমার মালিক ! মাসুম বাচ্চারা যেমন অভিমান করে বাপ মা ছেড়ে দূরে যেয়ে ছন্ন ছাড়া হয়ে ঘুড়ে বেড়ায় আমাদের অবস্থাও তোমার থেকে দূরে যেয়ে এমনই হয়ে গেছে যে আমরা ছন্নছাড়া হয়ে গেছি। আমাদের চারদিকে এখন অন্ধকার, তুমি আমাদের অন্ধকারে ডুবিয়ে মারো না। তোমার নুরের আলোয় আমাদেরকে আলোময় করো। আমাদের সমানে পেছনে, উপর নিচে, ডানে বামে তোমার নুর দিয়ে ঢেকে দাও।
.
হে মোর মালিক, সামনে কোন রাস্তাও দেখতে পাইনা, কোন উপায়ও চোখে আসেনা। আমরা জুলুম করেছি নিজের নফসের উপর। জুলুম করেছি তেমার হক আদায়ে, জুলুম করেছি এই উম্মতের হক আদায় করতে। আমাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব আমরা পালন করিনি। বরং দায়িত্ব অবহেলা করতে করতে কখন যে, নিজেরাই জালেমের কাতারে পৌছে গেছি তা টেরও পায় নি। মাবুদ , আমাদেরকে জালিম হিসাবে চিহ্নিত করে তুমি আযাবে পাকড়াও না করো না। আমাদের নবীর সুন্নত ছেড়ে, তরীকা ছেড়ে, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পথ ও পদ্ধতি ছেড়ে আমরা মনমতো খায়েশাতের উপর চলেছি, মওলা, তোমার হাবিবের দেখানো পথে আমাদেরকে পরিচালনা করো। দ্বীনের হাকীকী বুঝ দান করো।
.
ইয়া মাবুদ! আমরা পবিত্র মাসের পবিত্র মকবুল কত সময়ে, তোমার পবিত্র ঘরে একত্রিত হয়ে, তোমার সামনেই তো হাত পাতি আমরা, ভিক্ষার ঝুলি ফেলি যে তুমি আমাদের হয়ে যাও। এখন সেপথটিও সংকোচিত হয়ে আসছে। আমরা কোথায় যাবে হে মওলা। তোমার ঘর থেকে আমাদের গেনাহের কারণে তুমি তাড়িয়ে দিও না মওলা। তেমার সকল বান্দাকে নিয়ে মসজিদে তোমার দরগাহে সেজদায় লুটিয়ে পড়তে আমাদেরকে তাওফিক দাও।
.
তোমার ঘরের দরজা আমাদের জন্য বন্ধ করো না হে আল্লাহ। তোমার ঘর থেকে, তোমার দরবার থেকে তাড়িয়ে দিলে আমরা কেথায় যাবো? তোমার ঘরে আমাদের আশ্রয় দাও। মাবুদ আমরা তোমার ঘরের হক আদায় করি নি, আমাদের এই জুলুমকে ক্ষমা করে দিয়ে, সকল উম্মতকে এক ও নেকে করে দাও।
.
হে আল্লাহ, তোমার ঘর ছাড়া আমাদের কোন ঠিকানা নেই। তোমার দরবার ছাড়া যাওয়ার কোন জায়গা নেই। তোমাকে সেজদা করা ছাড়া আমাদের আর কোন ইলাহ নেই। আমাদেরকে তেমার ঘর থেকে বের করে দিয়ে, পরস্পরে বিচ্ছিন্ন করো না। এক্যবদ্ধভাবে তেমার রজ্জুকে আঁকড়ে ধরার তাওফিক দাও।
মাবুদ, তুমি আমাদেরকে তোমার মখলুকের হাওলা করো না। ইলমে ইলাহির আলোতে আমাদেরকে সঠিক পথের উপর রেখো। অন্তরে ইলমের হাকীকত দান করো। আমাদের বে-পথে চলার কারণে তোমার রহমত আর দয়া থেকে বঞ্চিত করোনা। তোমার জিকির থেকে আমাদের দ্বীল দেমাগ ও জবানকে মাহরুম করো না। গাফলাতির হালতে মৃত্যু দিও না। তুমি সহায় না হলে মালিক, আমাদের কোন অস্তিত্ব থাকবে না। আমাদের বেপরোয়া জীবনের উপর তুমি রহম করো। আমাদের মাথাকে যেভাবে পবিত্র রেখছো তোমাকে সেজদা করা ছাড়া আর কাউকে আমরা সেজদা করি না, মাবুদ এভাবে আমাদের হাতকেও পবিত্র রাখো, যেন তুমি ছাড়া আর কারো কাছে হাত না পাতি। তুমি ছাড়া যেন কারো কাছে সাহায্য না চাই। মওলা এমন কঠিন পরীক্ষায় অবতীর্ণ করো না, যে পরীক্ষায় পতিত হয় তোমাকে ভুলে যাই। আমরা দুর্বল, কমজোড়, তুমিই একমাত্র সাহায্যকারী।
.
আমাদের হৃদয় এটার যোগ্য না যে তোমার ভালোবাসা লাভ করবো, কিন্তু আল্লাহ তুমি তো যোগ্য, তোমার রহমত তো যোগ্য যে আমাদের গন্ধ হৃদয়কে তুমি ধুয়ে দাও, পরিষ্কার করে দাও আর একে তোমার রহমত লাভের ব্যাপারে কবুল করে নাও, যোগ্য করে দাও। আমাদের ক্ষুদ্র ভগ্নহৃদয়ের দুর্বল কমজোড় ঈমান ও আমলের উপর রহম করো। আমাদের আমল খারাপ, আখলাক খারাপ। এর জন্য তুমি মানুষের সামনে দুনিয়া ও আখেরাতে লজ্জিত করো না। আমাদের চরিত্রকে সুন্দর করে দাও। আমাদের আখলাককে উন্নত করে দাও। আমাদের হাত জবান ও দেমাগকে গেনাগ থেকে পবিত্র রাখার তাওফিক দাও।
.
আমার মালিক ! ভালো হওয়ার চেষ্টা করতে করতে ধুকে গেছি। হে মওলা, অনেক চেষ্টা করেছি কিন্তু যেভাবে তুমি পছন্দ করো সেভাবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারিনি। বারবার ভুল করেছি, ভুল পথে চলেছি, মন চাহি পথে জীবন যাপন করেছি, এখন যদি মওলা তুমি মানুষের সামনে আমাদের গোনাহগুলোকে প্রকাশ করে দাও। আমাদের গেপন পাপকে উম্মেচিত করে দাও। তোমার ইজ্জতের পর্দা আমার উপর থেকে সড়িয়ে নাও, তাহলে মাওলা আমি ধ্বংস হয়ে যাব। তুমি যেভাবে দুনিয়াতে আমার পাপের উপর পর্দা দিয়ে আমাকে সম্মানিত করেছ, তমনি কেয়ামতের দিন আখেরাতে তোমার সকল বনি আদমের সামনেও আমাদের গেনাহগুকেকে ক্ষমা করে দিয়ে সম্মানিত করিও । আমাদের মাথায় তোমার পেয়ারা হাবিবের তেফায়েলে সেদিন ইজ্জতের তাজ পড়িয়ে দিও।
.
হে আমার মালিক ! আমাদের ব্যাপারে তো জানোই তেমার, আমরা তোমার নবীর যামানার কত পরে এসেছি। সেই যামানার লোকেরা তো চারপাশে কত পূন্যের, তাকওয়ার পরিবেশের মাঝে থাকত, কিন্তু আমাদের দিকে একবার চেয়ে তো দেখ পুরো দুনিয়াতে কি চলছে , কত রকম নিত্য নতুন গুনাহ প্রতিনিয়ত সংঘটিত হচ্ছে। কত শত ফেৎনা বানের পানিরে ন্যায় ভেসে আসছে প্রতিনিয়ত। মাওলা জামানার ফেৎনায় যেন আমরা ভেসে না যাই, তুমি আমাদের হেফাজত করো। হককে হক চিনে চলার, মানার ও বুঝার তাওফিক দান করো। আমার নামাজ, আমার রোজা, আমার তাসবিহ তাহলিল, আমার তারাবি, আমার কিয়ামুল লাইল, আমার জিকর-তেলাওয়াত, আমার দান সদকা, আমার ঈমানী মেহনত সবকিছু যেন কেবল তোমার জন্যই হয় মওলা। তুমি এখলাস দান করো। রিয়া আর শিরিক থেকে আমাদের পবিত্র রেখো।
.
হে আল্লাহ, এক কদম তোমার দিকে চলি তো দশ কদম উলটো দিকে আসি। সকালে তওবা করি সন্ধ্যায় আবার গুনাহ করি, সন্ধ্যায় তওবা করি সকালে আবার গুনাহ করি। কিন্তু তোমার রহমতের, ক্ষমাশীলতার উচ্চতার সামনে আমাদের গুনাহ এর উচ্চতাই বা কতটুকু ? মওলা আমাদের গোনাহ যতে বড়, তোমার মাগফিরাত তার চেয়ে অনেক বড়। তোমার রহমান ও রহিম নামের খাতিরে আমাদের গোনাহগুলোকে নেকীর দ্বারা বদলিয়ে দাও। আমাদের তওবাকে কবুল ফরমাও। তেমার দেখানো পথে, তোমার রাস্তায় চলত চলতে ইজ্জতের মওত দান করো।
.
হে মালিক ! কেয়ামতের দিনে যখন প্রথম দিক-কার লোকেরা আসবে, ওদের কাছে তো বড় তাকওয়া থাকবে, বড় বড় আমল থাকবে, তারপর যখন আমরা এই যামানার লোকেরা আসব, আমরা তো ইয়া আল্লাহ একদম খালি হাত হবে, আমাদের ঝুলিও তো ফাঁকা থাকবে। কোথাও লুকানোরও তো জায়গা থাকবেনা যে চুপ করে লুকিয়ে পড়ব।
.
হে মোদের রব ! আমাদের সম্বল বলতে তো কেবল তোমার রহমত আর তোমার হাবীবের ভবিষ্যদ্বানী। তিনি বলেছিলেন, “ওরাই তো আমার ভাই যারা আমাকে না দেখেই বিশ্বাস করবে, আমার উপর ঈমান আনবে”
হে মালিক, আমরা তো দেখিনি পিয়ারা হাবিবকে, আমরা কোরআন নাযিল হওয়াও দেখিনি। আমরা তো এই যামানায় চারিদিকে শুধু দেখে চলেছি নোংরা নোংরা নগ্ন সংস্কৃতি আর শুনে চলেছি গুনাহর আওয়াজ।
.
হে আল্লাহ ! তোমার হাবীব তো আমাদের জন্য দুয়া করে গেছেন। তুমি তো তাকে কথা দিয়েছিলে যে তাকে তুমি তাঁর উম্মতদের ব্যাপারে তাকে খুশী করে দিবা। আমরা তার উম্মতও আর তিনি আমাদের তাঁর ভাইও বলেছেন।
.
হে আল্লাহ কিছুই নাই আমাদের কাছে, আমাদের নবী অনেক কষ্ট করে গেছেন তোমার দ্বীনের পথে, সে উছিলায় হলেও তুমি আমাদের কে ক্ষমা করে দাও। আর নবীর দেখানো পথে, তাঁর সিরাত ও সুন্নাহকে আকঁড়ে ধরে আমাদের পথ চলার তাওফিক দাও। তাঁর রেখে যাওয়া নববী জিম্মাদারী নিয়ে চলার তাওফিক দান করো। আমাদেরকে হেদায়ত দাও, তোমার হেদায়তের উপর দৃঢ় রাখো, এই উম্মতের হেদায়তের জড়িয়া হিসাবে কবুল করো।
.
হে মাবুদ, তুমিতো মা এর থেকে বেশি ভালোবাসা স্থাপনকারী, বাপের থেকে বেশি যত্নকারী ! আমাদের কাছে জান্নাতে যাবার মত একটা আমলও নাই, শুধু তোমার রহমত আর তোমার হাবীবের শাফায়াত আছে ।এই দুইটা ছাড়া আমাদের কাছে আর কিছুই নাই।
আমরা ফকির, আমাদের বিবিরা ফকির, আমাদের বাচ্চারা ফকির। আমাদের আরব অনারব, কালো ফর্সা, ধনী গরীব, আলেম আওয়াম সবাই ফকির তোমার রহমত ছাড়া।
.
হে আমাদের রব, আজকেই ফায়সালা করে দাও। আমাদের সকল গুনাহ মাফ না করিয়ে উঠবনা আমি। আমাদের পবিত্র করে হাকীকী ঈমান দান করো, সাহাবাওলা ঈমান হাসিলপর তািফিক দান করো। মৃত্যুর সময় আমাদের এখলাসের কালেমা নসিব করিও।
মৃত্যুর পর, আমাদেরকে তোমার আশ্রয়ে আশ্রিত করো। তোমার জান্নাত তো এত বড়! কোন কোনা কাঞ্চিতে করুনা করে একটু জায়গা করে দিলে তো কেউ জানতেও পারবেনা যে আমার মত গুনাহগার সেখানে স্থান পেয়েছে ।
ওহ আল্লাহ, তোমাকে চ্যালেঞ্জ করার মত কে বা আছে ? তোমাকে প্রশ্নকারীই বা কে আছে তুমি আমাদের ক্ষমা করে দিলে ?
.
হে মুহম্মদ (সাঃ) এর রব,
হে মূসা কালিমুল্লাহ এর রব,
হে ইব্রাহীম খালিল এর রব,
হে ঈসায়ী রুহু কে রব, হে অনাথদের রব, আমাদের কারোর না কারোর অশ্রু, কারোর দুয়ার হাত তো পছন্দ করে আমাদের সবার দুয়া কবুল করে নাও। আমাদের উপর তোমার করোণা বর্ষিত করো। আমাদের তো শুধুই তুমি আছো। কেবল তুমিই আমার রব। তুমিই কেবল মালিক। তুমি যদি তাড়িয়ে দাও আমি কোথায় যাবো, আমার তো আর কোন রব নাই তুমি ছাড়া। দয়াময় তুমি আমাকে কবুল করো।
আমীন।
May be an image of one or more people and text
Ahmed Said, এইচ এম জাকারিয়া and 1 other
1 share
Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com