বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:২৫ পূর্বাহ্ন

ভয়ংকর পোস্টার জালিয়াতি; আবারো ফারুক হেফাজতীদের দাবার গুটি (ভিডিওসহ অনুসন্ধানী রিপোর্ট )

ভয়ংকর পোস্টার জালিয়াতি; আবারো ফারুক হেফাজতীদের দাবার গুটি (ভিডিওসহ অনুসন্ধানী রিপোর্ট )

ষ্টাফ রিপোর্টার, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম  | ১লা ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে মাদরাসার ছাত্রদের সাথে তাবলীগের সাথীদের সংঘর্ষের পর বাংলাদেশের কিছু আলেম লাগাতার মিথ্যাচার করে গুজব ছড়িয়ে যাচ্ছেন। গতকাল রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় তৌহিদী জনতার নামে তাবলীগের বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ কান্ধলভী ও তাবলীগের সাথী এবং মূলধারার আলেমদের ফাঁসি চেয়ে পোষ্টার সাঁটানো হয়।

আর সেই পোষ্টারে ২০১৩সালের ৬ই এপ্রিলে হেফাজতের লংমার্চে যাবার পথে আহত হাফেজ ফারুকসহ ৫মে শাপলা চত্তরের একাধিক ছবি ব্যবহার করে টঙ্গীর ঘটনা বলে প্রচার চালিয়ে সাম্প্রদায়িক সংঘাত তৈরির অপচেষ্টা চলছে বাংলাদেশে।

কেন এই মিথ্যাচার? ১লা ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে টঙ্গীর ময়দানে তাবলীগের সাথীদের হাতে মাদরাসার ছাত্র ও আলেমদের হতাহতের ঘটনা বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে বিগত কয়েক বছরের পুরাতন ছবি। ঢাকার অলিগলিতে সাঁটানো ছবিগুলোর অনুসন্ধানে দেখা গেছে, কিছু ছবি ২০১৩ সালের শাপলা চত্বর ও হেফাযতের অন্যান্য ভয়ংকর ছবিগুলো থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। কিছু ছবি ২০১৬ সালে সোমালিয়ায় শিশু নির্যাতনের বিভিন্ন ডকুমেন্ট থেকে নেওয়া হয়েছে।

কিছু ছবি ২০১৭সালে আরাকানে রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর বার্মার সেনাবাহিনী কতৃক নির্যাতনের ঘটনা থেকে নেওয়া হয়েছে। নিরীহ তাবলীগের সাথীদেরকে ফাঁসানোর হীণস্বার্থে কেন এই মিথ্যাচার? কেনইবা ভুয়া ছবির অপব্যবহার? তাহলে কি টঙ্গীতে ছাত্র নির্যাতনের বিষয়টি একেবারই ভূয়া? আর সেই ভুয়া-মিথ্যাকে সত্য প্রমাণ করে ধর্মীয় অনুভূতি উস্কে দিয়ে সাধারণ সরলমনা জনগনকে ক্ষেপিয়ে কোন স্বার্থ হাসিল করতে চায় তারা?

কেনইবা বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে হেফাজতের শাপলা চত্বরের ছবি দিয়ে পোষ্টার করে দেশকে অস্থিতিশীল করার পায়তারা হচ্ছে? কাদের স্বার্থে? কোন হীন উদ্দেশ্যে? বিষয়টি তদন্তের দাবী রাখে। সারাদেশে এসব রঙ্গিন পোষ্টারিং এর টাকার উৎসই বা আসছে কোত্থেকে? কারা শাপলা ট্রাজেডির পুরানো ক্ষতকে আবার উস্কে দিয়ে বাংলাদেশে পাকিস্তানের মতো সাম্প্রদায়িক সংঘাত ও গৃহযুদ্ধ বাঁধাতে চায়? আজ সকালে বিষয়টি নিয়ে ফারুকের ভিডিও সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন এই প্রতিবেদক। প্রতিবেদনটির সর্বনিচে সাক্ষাৎকারটি সংযুক্ত করা হয়েছে।

আজ সকালে  সাক্ষাৎকারে ফারুক নিজেই বলছে, ১লা ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে সে টঙ্গীতে আসেই নাই; আহত হওয়ার তো প্রশ্নই উঠে না। বর্তমানে সে পুরোপুরি সুস্থ আছে। তার সাথে ব্যক্তিগত ফোন নাম্বারে (০১৭১৮-৩২০৪৬১) তার পুরাতন ছবি জালিয়াতে করে পোস্টার তৈরি করার বিষয়টি নিয়ে কথা বললে তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। স্বেচ্ছায় তিনি প্রতিবেদকের সাথে সাক্ষাতে আসেন ও মনের ক্ষোভ প্রকাশ করেন। জালিয়াতির কয়েকটি নমুনা দেখুনঃ

 

কে এই ফারুক?  হেফাজতের নাস্তিক ব্লগার বিরোধী লংমার্চ হায়নাদের আক্রমনে প্রথম আকান্ত সারাদেশে আলোচিত ব্যক্তি হলেন এই ফারুক। ৬মার্চ ২০১৩ সালে লংমার্চে যাবার পথে সে  অবরোধকারীদের নিসংশতা ও নিষ্টুর আক্রমনে শিকার হয়। পরদিন ৭এপ্রিল দৈনিক মানবজমিন, দৈনিক আমার দেশ, দৈনিক নয়া দিগন্ত পত্রিকায় প্রথম পাথায় বড় শিরোনামে তার ছবি ছাপা হয়। দেশের শীর্ষ সকল পত্রিকায় তার ছবিটি লিড নিউজ হয়ে তখন পুরো বিশ্বের দৃষ্টি কাড়ে। হেফাজত কর্মি ফারুকের ছবি দেখিয়ে সে সময় হেফাজত নেতারা মাঠে ময়দানে হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনকে চাঙ্গা করার চেষ্টা করেন।ফেসবুক, ইন্টারনেটে ছবিটি চেতনার বানিজ্য হিসাবে ব্যাপক আলোচিত হয়। তারপর হেফাজতের ইস্যুতে প্রতি বছরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচিত এই ছবিটি কার? তিনি কি করেন? কেমন আছেন? কোথায় থাকেন?

এসব নিয়ে, আলেম মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী সাংবাদিক সৈয়দ আনেয়ার আব্দুল্লাহ অসহায় গরীব হাফেজ ফারুককে নিয়ে একটি সচিত্র প্রতিবেদন তৈরি করেন২০১৬ সালের ৬ই এপ্রিল।

তখন ফের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবার ব্যাপকভাবে হাফেজ ফারুকের সেই রক্তাক্ত মুখায়বের ছবি আবার ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ” হেফাজতের আহত নিহিতদের নিয়ে কোটি কোটি টাকা দেশ বিদেশে কালেকশন করে নেতারা দামী গাড়ি ও বাড়ির মালিক হলেও হেফাজতের প্রথম আহত কর্মী আলোচিত হাফেজ ফারুক গরিব মানুষটি একটি টাকাও পায় নি কারো কাছ থেকে। এরপর সে চট্রগ্রাম পাহারতলী চক্ষু হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার সুবাদে হাটহাজারী  মাদরাসাতে গিয়ে হেফাজত মহসচিব জুনাইদ বাবুনগরীর সাথে দেখে করলে, তিনি তাকে পাঁচশত টাকা দিয়ে দোয়া করে দেন। হাফেজ ফারুকের ভাষায়, এই ৫শ টাকা আর দোয়াই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া।

হিফজখানার শিক্ষক (বতর্মানে টমটম অটোরিকশা চালক) হাফেজ ফারুক তার বাবা সহ সেদিন গুরুত্বর আহত হন। দীর্ঘদিন চিকিৎসার পর সুস্থ হলেও মাথায় আঘাতের কারনে  আর মাদরাসায়  পড়ানো হয়নি ফারুকের। অভাবের সংসার হবিগন্জ জেলার বাহুবল উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাবনাকান্দি গ্রামের সহজ সরল, মুখলেছ দ্বীনের কর্মি হাফেজ ফারুক এখন টমটম চালক। তার সংসারের বিবি বাচ্চাদের ভরন পোষন আর দরিদ্রতার গ্লানি তাকেই বহন করতে হয়। আলোচিত হাফেজ ফারুককে নিয়ে দেশে বিদেশে চেতনা আর অর্থ বানিজ্য হলেও বাস্তব চির সত্য হলে হেফাজতের কোন নেতা তার খবর নেন নি।

২০১৩সালে মিডিয়াতে ফারুকঃ

রবিবার, ০৭ এপ্রিল ২০১৩ ইংরেজি দৈনিক মানব জমিন পত্রিকায় “নারায়ণগঞ্জ থেকে পায়ে হেঁটে লক্ষাধিক মুসল্লি ঢাকার সমাবেশে” শিরোনামে নিউজে হাফেজ ফারুকের রক্তমাখা ছবি ও সংবাদ ছাপা হয়। সংবাদে বলা হয়, ” স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে: হরতালের কারণে কোন ধরনের যানবাহন না পেয়ে তীব্র তাপদাহকে উপেক্ষা করে নারায়ণগঞ্জ শহর ও এর আশপাশের উপজেলা থেকে লক্ষাধিক মুসল্লি পায়ে হেঁটে হেফাজতে ইসলামের ব্যানারে লংমার্চ করে ঢাকার সমাবেশে যোগ দিয়েছেন।

এদিকে পায়ে হেঁঁটে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা ঢাকা যাওয়ার পথে রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকায় যুব ও শ্রমিক লীগের হামলার মুখে পড়ে। তাদের হামলায় হেফাজতে ইসলামের ১০ সদস্য গুরুতর আহত হন। এদের দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক…

এদিকে ভৈরব, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নরসিংদী, মাধবদী থেকে আসা হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের একটি বিশাল মিছিল ভুলতা অতিক্রম করাকালে ভুলতা ও গোলাকান্দাইল… হামলা চালিয়ে ১০ জনকে পিটিয়ে আহত করে। হামলায় আহত হন #হবিগঞ্জের বাহুবল থানার ও মৌলভীবাজার শমসেরনগর মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ মাওলানা #ফারুক আহম্মেদ, মাওলানা হাবিবুর রহমান, ভৈরব এলাকার সিদ্দিকুর রহমান, ইসমাইল হোসেন, আবদুল আউয়াল, হাফেজ জসিমউদ্দিন, নরসিংদী জেলার রায়পুরার মিজানুর রহমান। তাদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ফারুক আহম্মেদ ও হাবিবুর রহমানের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

 

ভুলতা ইউনিয়ন যুবলীগের জাকির হোসেন, বাদল মিয়া, শ্রমিক লীগের ইসমাইল হোসেন, শফিক মিয়া, কবির মোল্লা, গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের আলী আকবর, নজু ভুঁইয়াসহ ২০-২২ জন নেতাকর্মী লাঠিসোটা নিয়ে হেফাজত ইসলামের লোকজনের ওপর হামলা চালায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

 

এদিকে পায়ে হেঁঁটে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা ঢাকা যাওয়ার পথে রূপগঞ্জের ভুলতা এলাকায় যুব ও শ্রমিক লীগের হামলার মুখে পড়ে। তাদের হামলায় হেফাজতে ইসলামের ১০ সদস্য গুরুতর আহত হন। এদের দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক…

 

 

জালিয়াতি পোস্টার নিয়ে ফারুকের ভিডিও সাক্ষাতকার

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com