বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১২:৪০ অপরাহ্ন

হাটহাজারীতে ৬ প্রতীকে বিভক্ত ইসলামী দল। তাবলীগের বিভক্তি কিভাবে মেটাবেন আহমদ শফী

হাটহাজারীতে ৬ প্রতীকে বিভক্ত ইসলামী দল। তাবলীগের বিভক্তি কিভাবে মেটাবেন আহমদ শফী

নিউজ ডেস্ক: তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম| আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ভোটযুদ্ধে লড়ছে ৬ ইসলামী দলের ৩৬৭ জন প্রার্থী। এর মধ্যে হাটহাজারী আসন (চট্টগ্রাম – ৫) থেকে ইসলামী দলগুলো থেকে লড়ছেন ৫ জন প্রার্থী।

হাটহাজারী আসনের ধর্মপ্রাণ ভোটাররা কাকে রেখে কাকে ভোট দিবেন? আল্লামা আহমদ শফী প্রথম দিকে সকল প্রার্থীকে প্রত্যাহার করার চেষ্টা করেন রহস্যজনক কারণে। পরে একজন রাখার জন্য হাটহাজারী মাদরাসায় একাধিক বৈঠক করে ব্যর্থ হন।

বাংলাদেশে ধর্মীয় অঙ্গনে চট্টগ্রামের হাটহাজারী আসন একটি বিশেষ গুরুত্ব রাখে। কারণ, এ আসনে বাংলাদেশের জমহুর আলেমদের সংগঠন “হেফাজতে ইসলাম”এর কেন্দ্রীয় কার্যালয়।

হেফাজতের কেন্দ্রীয় আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী, দলের মহাসচিব মাওলানা জুনাইদ বাবুনগরীসহ একাধিক সহসভাপতি ও কেন্দ্রীয় নেতা এই সম্মানজনক আসনের ভোটার। বাংলাদেশের সর্ববৃহত কওমী মাদরাসা দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসা এই আসনেই অবস্থিত।

পাঁচ ইসলামী দলের প্রার্থীর বাহিরে খোদ হেফাজত ও হাটহাজারী মাদরাসায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপির পক্ষে আলাদা আলাদা বলয় রয়েছে। আল্লামা আহমদ শফীর বলয়ের লোকজন নৌকার পক্ষে নীরব ভুমিকায় থাকলেও দলের মহাসচিব রয়েছেন বিএনপি বলয়ে। নির্বাচন নিয়ে সরকার বিরোধী একটি কবিতা লিখেও সম্প্রতি মিডিয়াতে আলোচিত হয়েছেন জুনাইদ বাবুনগরী।

সবকিছু মিলিয়ে চট্টগ্রাম-৫ আসন হাটহাজারী ধর্মপ্রাণ মানুষদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এই আসনের আলেম উলামারা আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে রয়েছেন অস্বস্তিকর ও বিবর্তকর অবস্থায়। ভোটাররা বলছেন, আল্লামা আহমদ শফী এই ছোট্ট একটি আসনের আলেমদেরকে এক প্লাটফর্মে আনতে ব্যার্থ হলেন, তিনি কিভাবে সারাদেশের আলেম ও তাবলীগকে এক করে রাখবেন? নিজের ঘরের আগুন নেভাতে যিনি অক্ষম তিনি পরের ঘর কিভাবে রক্ষা করবেন?

হযরত মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজ্জি হুজুরের প্রতিষ্ঠিত দল ‘বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন’ এর পক্ষ থেকে হাটহাজারী আসনে বটগাছ প্রতীকে প্রার্থী হয়েছেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা মীর ইদরীস।

মুফতী আমিনী রহ এর দল ইসলামী ঐক্যজোট এর যুগ্ন মহাসিব ও হেফাজতের আরেক নীতিনির্ধারক কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা মহিউদ্দিন রুহী মিনার প্রতীকে হাটহাজারী আসন থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন।

চরমোনাইর পীর সাহেবের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলন এর মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ রফিক হাটহাজারীর আসনে নির্বাচন করছেন হাতপাখা প্রতীকে।

বাংলাদেশ ইসলামী ফন্ট (যুবায়েরগ্রুপ) মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্জ্ব মোহাম্মদ নাঈমুল ইসলাম হাটহাজারী আসনে দাঁড়িয়েছেন মোমবাতি মার্কা নিয়ে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হাটহাজারী আসনে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী অধ্যাপক ছৈয়দ হাফেজ আহমদ চেয়ার প্রতীকে দাঁড়িয়েছেন।

হাটহাজারীর সকল ইসলামী দলের প্রার্থীই মূলত নিজেদেরকে একমাত্র সঠিক এবং হক্কানীর প্রতীক বলে ভোট চাচ্ছেন। এ নিয়ে ধর্মপ্রান মুসল্লী ও দ্বীনদার মানুষজন চরম বিবর্তকর অবস্থায় পড়েছেন। তারা কাকে ছেড়ে কাকে ভোট দিবেন?

অপরদিকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হেফাজত ও আহমদ শফীর সাথে তাদের সুসম্পর্ক ও দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে আল্লামা আহমদ শফীর নেতৃত্বে ‘কওমী জননী’ উপাধীর কথা খুব ফলাও করে ভোটারদের সামনে তুলে ধরছেন।

এ দিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ধানের শীর্ষের প্রার্থী মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম ইতোমধ্যেই আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সাথে সাক্ষাৎ করে দোয়া নিয়ে মিডিয়াতে ফলাও করে প্রচার করছেন। তিনি হাটহাজারীর আসনে ধর্মপ্রাণ মানুষকে আকৃষ্ট করতে, হেফাজত নেতা মাওলানা নুর হুসাইন কাসেমী সহ ২৩ দলীয় জোটের শরীক আলেমদের তুলে ধরছেন।

উল্লেখ্য যে, সারাদেশে হাফেজ্জী হুজুর প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ খেলাফাত আন্দোলনের মোট ২৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। তাদর মধ্যে মনোনয়ন পেয়েছেন ২২ প্রার্থী। এ দলের প্রতীক বটগাছ। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে লড়ছে ২৯৮ জন।

এককভাবে তারা সারাদেশে সবচেয়ে বেশি প্রার্থী দিয়েছে। ৩০০ আসনের মনোনয়ন জমা দিলেও দলটির দু’জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হওয়ায় ২৯৮ এ দাঁড়িয়েছে। ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী রয়েছেন ২৪ জন এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের প্রার্থী ১২ জন।

বাকি হেফাজত সমর্থিত দুটি দল রয়েছে ২০ দলীয় জোটে। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের দুই অংশের প্রার্থী ৫ জন এবং খেলাফত মজলিসের প্রার্থী ১২ জন। ২০ দলীয় জোটে শরীক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (শায়খ মুমিন) ৩ টি আসন পেয়েছে। ১ টি আসনে উন্মুক্ত নির্বাচন করবে খেজুর গাছ প্রতীকে।

জোট থেকে ধানের শীষ প্রতীকে রয়েছেন অ্যাডভোকেট শাহীনুর পাশা চৌধুরী সুনামগঞ্জ-৩, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক সিলেট ৫ এবং মাওলানা মনির হোসেন কাসেমী নারায়ণগঞ্জ- ৪। জোটের আরেক শরিক খেলাফত মজলিস বিএনপি থেকে দুটি আসন পেয়েছে। এরা হলেন, ড. আহমদ আবদুল কাদের (হবিগঞ্জ- ৪) ও মাওলানা আবদুল বাসিত আজাদ ( হবিগঞ্জ-২) ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করবেন।

কেন আজ ইসলামী দলগুলো শতধাবিভক্ত? অনৈক্য, বিভেদ, বিভক্তি, দলাদলি ইত্যাদি শব্দগুলো কি ইসলামী রাজনীতিকদের রক্ত কণিকায় মিশে আছে? প্রশ্ন করা হয়েছিলো একজন মুবাল্লিগ আলেমকে। উত্তরে তিনি বলেন, “যেখানেই স্বার্থের কামড়াকামড়ি থাকবে সেখানেই বিভাজন ও বিভক্তি থাকবে। আর রাজনীতি পুরোটায় স্বার্থ রক্ষার যুদ্ধ। অপরদিকে নিঃস্বার্থবাদিতা, পরোপকারিতা ও পরমতসহিষ্ণুতাই হলো ‘ঐক্য’ এর মূল ভিত্তি। যা পূর্ণমাত্রায় কেবল ‘দাওয়াত ও তাবলীগ’ এর মেহনতেই পাওয়া যায়।”

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “হ্যা, এটা অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় যে, যারা নিজেরাই স্বার্থের টানে উম্মাতাল উন্মাদ হয়ে আছে তারাই ‘জুমহুর’ পরিচয় ধারণ করে এই নিঃস্বার্থ তাবলীগের মেহনতের হাল ধরতে এসেছে। ‘চালুনি-সুঁই’ গল্পের এমন জলজ্যান্ত উদাহরণ হয়তো আর দ্বিতীয়টি পাওয়া যাবে না।”

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com