বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৫৬ অপরাহ্ন

সৈয়দ সাহেবের কথা রাখতে শুরু করেছেন মাওলানা যুবায়ের

সৈয়দ সাহেবের কথা রাখতে শুরু করেছেন মাওলানা যুবায়ের

ষ্টাফ রিপোর্টার, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম| অবশেষে মাওলানা যুবায়ের সাহেব কথা রাখলেন। তাবলীগের আহলে শুরা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামের গলা জড়িয়ে কাঁদলেন আবেগ তাড়িত হয়ে, অঝোরধারায়। চোখের পানি পড়লো সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামেরও। দুজনের এই কান্নায় উপস্থিত তাবলীগের মুরুব্বীরাও হেঁচকি দিয়ে কাঁদতে থাকেন। নির্বাক ছিলেন তৃতীয় পক্ষের আলেমরা।

গত ১৫জানুয়ারী সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামসহ কাকরাইলের আহলে শুরা ও সাধারণ মুবাল্লিগ সাথীদের পক্ষ থেকে মাওলানা যুবায়ের সাহেবকে ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে একটি হৃদয়গ্রাহী খোলা চিঠি লেখা হয়েছিলো। চিঠিতে তৃতীয় পক্ষকে বাদ দিয়ে মাওলানা যুবায়ের সাহেবকে নিয়ে একত্রে বসার আহ্বানও জানানো হয়েছিলো।

আজ সেই ফায়সালাই হয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ে। বিশ্ব ইজতেমা করার জন্য উভয় পক্ষের শুরাদের নিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজকের এই মিলন কতোটা ফলপ্রসূ হবে তা সময়ই বলে দেবে। তবে আজকের এই ঘটনাকে অনেকেই পজিটিভ দেখছেন।

সেই চিঠিতে লেখা ছিলোঃ

“মাওলানা যুবায়ের সাহেব, আপনার কাছে বিনীত অনুরোধ, আপনি আবার ফিরে আসুন আপন অঙ্গনে, দাওয়াতের কাজের মোবারক পরিবেশে। আপনার সাঁজানো বাগান আপন মালীর অপেক্ষায় চেয়ে রয়েছে। সাথীরা ইনশা আল্লাহ সব ভুলে আবার আপনাকে পরম শ্রদ্ধা ও বুকভরা ভালবাসা দিয়ে মাথার তাজ হিসাবে হৃদয়ে আগলে নিবে।

আমাদের পরম মহব্বতের ক্বারী সাহেবকে কি আমরা এত সহজেই ভুলে যেতে পারি? আপনার জন্য আমাদের নিরন্তর মহব্বত আর শ্রদ্ধা চিরকাল আগের মতোই থাকবে, ইনশা আল্লাহ।

তৃতীয় শক্তি আজ আপনার নাম ভাঙ্গিয়ে মেহনতকে তছনছ করতে তৎপর। ওরা আজ আমাদের অবর্তমানে আপনার কানকে ভারী করছে। আমরা আশা করি, আপনি আবার আপনার পুরানো মেজাজ, স্বাভাবিক জীবন, দাওয়াতের কাজের সহী নেহাজ, তারতিব ও উসুলের মাঝে ফিরে আসবেন।

আমরা আশাবাদি, আপনি আবার সঙ্গীদের নিয়ে আপন জায়গায় ফিরে আসবেন। আমরা কাকরাইলের শুরা হিসাবে মাথার তাজ করেই রাখবো। আসুন না, এক বিছানায় বসে আবার আলোচনা করি। বহিরাগত তৃতীয় পক্ষের  হস্তক্ষেপ ছাড়া আমরা নিজেরা বসে আলোচনা করে উম্মতকে এক কঠিন মসিবত থেকে উদ্ধার করি। পথ বের করি। কেন আমরা যোজন যোজন দূরে থাকবো। এক হই, নেক হই। আল্লাহর হুকুমের উপর উঠি। এই ইজতেমাইয়াত হয়তো লাখো কোটি উম্মতের হেদায়তের যরিয়া হতে পারে। হেদায়তের পথ খুলে দিতে পারে।

আমরা এক হয়ে গেলে, মাদরাসাওয়ালারা দরসগাহে চলে যাবেন, খানকাওয়ালারা ফের খানকায় চলে যাবেন। সিয়াসী হযরতরা তাদের দ্বীনী শু’বাতে মশগুল হয়ে যাবেন। তাবলীগের উলামারাই দ্বীনী সাথী ভাইদের নিয়ে পূর্বের ন্যায় কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে উম্মতের দ্বারে দ্বারে বারেবারে গিয়ে এখলাসের সাথে দাওয়াতের মুবারক নবীওয়ালা মেহনত করতে থাকবেন, ইনশা আল্লাহ।”

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com