শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ ঘোষনা এক আল্লাহ জিন্দাবাদ… হাটহাজারী মাদরাসায় ছাত্রদের বিক্ষোভ ভাঙচুর : কওমীতে নজিরবিহীন ঘটনা ‘তাবলিগের সেই ৪ দিনে যে শান্তি পেয়েছি, জীবনে কখনো তা পাইনি’ তাবলীগের কাজকে বাঁধাগ্রস্থ করতে লাখ লাখ রুপি লেনদেন হয়েছে: মাওলানা সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী দা.বা. (অডিওসহ) নিজামুদ্দীন মারকাজ বিশ্ব আমীরের কাছে বুঝিয়ে দিতে আদালতের নির্দেশ সিরাত থেকে ।। কা’বার চাবি দেওবন্দের বিরোদ্ধে আবারো মাওলানা আব্দুল মালেকের ফতোয়াবাজির ধৃষ্টতা:শতাধিক আলেমের নিন্দা ও প্রতিবাদ একান্ত সাক্ষাৎকারে সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী :উলামায়ে হিন্দ নিজামুদ্দীনের পাশে ছিলেন, আছেন, থাকবেন তাবলীগের হবিগঞ্জ জেলা আমীর হলেন বিশিষ্ট মোহাদ্দিস মাওলানা আব্দুল হক দা.বা.
মাদরাসার শিক্ষার্থীরা অংশ নিচ্ছেন না এবারের বিশ্ব ইজতেমায়

মাদরাসার শিক্ষার্থীরা অংশ নিচ্ছেন না এবারের বিশ্ব ইজতেমায়

তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

আগামী ১৫, ১৬, ১৭ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব ইজতেমার সময় কওমী মাদরাসার বাৎসরিক পরীক্ষার সময় নিকটবর্তী থাকায় অধিকাংশ মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাই অংশ গ্রহণ করতে পারবেন না, এমন তথ্য জানিয়েছে কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র।

এছাড়া বিগত কয়েক মাস যাবত তাবলীগের ওজাহাতি জোড়ের নামে দিনের পর দিন মাদরাসার ছাত্রদের মাঠে নামিয়ে তাবলীগ বিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে কওমী মাদরাসাগুলোতে পড়ালেখার ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। অধিকাংশ মাদরাসারই পাঠ্যবইয়ের এক তৃতীয়াংশ শেষ করতে পারে নি বলে ঢাকার একাধিক কওমী মাদরাসার শিক্ষক জানিয়েছেন।

ঢাকার একটি ঐতিহ্যবাহী মাদরাসার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন শিক্ষক তাবলীগ নিউজ বিডিডটকমকে জানান, মাদরাসায় পড়ানোই আমাদের মুল কাজ। কিন্তু গত ১ বছরে তাবলীগের ওজাহাতি জোড় ও নানান কার্যক্রমে বিভিন্ন জেলায় সফর করতে গিয়ে আমি কয়েক পৃষ্ঠাও পড়াতে পারি নি। যেকোন মূল্যে বার্ষিক পরীক্ষার ১মাস আগে কিতাব শেষ করতে হবে। নতুবা পরীক্ষায় ছাত্রদের অকৃতকার্য হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এরই ভিতরে বিশ্ব ইজতেমার তারিখ নির্ধারিত হওয়ায় আমরা হয়তো ইজতেমায় অংশগ্রহণ করতে পারবো না। তিনি আরো জানান, এই আশঙ্কা থেকেই মুলত মাওলানা যুবায়ের সাহেব ওজাহাতি জোড়ে যেভাবে মাদরাসার ছাত্রদেরকে কাছে পেয়েছিলেন সেভাবে ইজতেমায় পাবেন না। তাই খুব দ্রুত বিপক্ষের সাথে আলেম-উলামাকে বাদ দিয়েই তিনি মিলে গেছেন।

এছাড়া গত ১লা ডিসেম্বর টঙ্গীর ময়দানে ছাত্রদের মারামারির ঘটনায় অভিভাবকরা নিজেদের সন্তানের নিরাপত্তার স্বার্থে এ বছর ইজতেমায় না আসতে মাদরাসার কতৃপক্ষের উপর চাঁপ সৃষ্টি করেছেন বলে কয়েকটি মাদরাসাসূত্রে জানা যায়। গতকাল তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম এর প্রতিনিধি ঢাকার বিভিন্ন মাদরাসায় ঘুরে দেখতে পান, বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে ছাত্রদের মধ্যে তেমন কোন আগ্রহ নেই। এমনকি শিক্ষকদের মাঝেও চরম বিরক্তি ও ক্ষোভ কাজ করছে। তাদের অনেকেই বলেছেন, মাত্র ক’দিন আগে যাদের ফাঁসি চেয়ে লক্ষ লক্ষ পোষ্টারিং করলাম, আজ তাদের নেতৃত্বেই আবার ইজতেমায় অংশ গ্রহণ করতে হবে, এটা মেনে নেওয়ার নয়। তাই আমরা ইজতেমায় যাচ্ছি না। তাবলীগের দু’পক্ষ মিলে ইজতেমা করে ফেলুক।

এ ব্যপারে ঢাকার মাদসারাতুস সুফ্ফার মুহতামিম, বেফাক বোর্ডের অন্যতম দায়িত্বশীল মাওলানা শফিউল্লাহ বলেন, ধর্মমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে তাবলীগের শূরাদের নিয়ে ইজতেমা ও তাবলীগ পরিচালনার কথা বলা হয়েছে। এ বছরের বিশ্ব ইজতেমায় গত ১ বছর ধরে যেসব আলেম ওজাহাতি জোড় ও মাওলানা যুবায়ের সাহেবকে নিয়ে কাজ করেছেন তাদেরকে বাদ দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি ভালো চোখে দেখছেন না কওমী মাদরাসার উলামায়ে কেরাম। আলেমদের কোন কর্তৃত্ব না থাকায় স্বাভাবিকভাবেই কওমীর আলেমদের এই বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে তেমন কোন আগ্রহ নেই। হাটহাজারী থেকে আল্লামা আহমদ শফী বেশ ক’দিন আগে স্পষ্ট ঘোষণা করেছিলেন, এ বছরের ইজতেমা আলেমদের তত্বাবধানে হবে। কিন্তু সরকার ও তাবলীগের মুরুব্বীরা আলেমদের ঘোষণাকে সম্মান দেখান নি। ফলে কওমী মাদরাসাগুলো এ বছরের বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণের প্রশ্নই আসে না।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com