রবিবার, ২০ Jun ২০২১, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চলতি মাসেই চালু হচ্ছে ৫০ মডেল মসজিদ অনলাইনে বিভিন্ন গ্রুপ ও পেইজ এডমিনদের নিয়ে মাশোয়ারার  বাংলাদেশে আরবি বিস্তারের মহানায়ক আল্লামা সুলতান যওক নদভী (দা.বা) দেওবন্দে গেলেন হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধলভী দা.বা. মনসুরপুরীকে নিয়ে সাইয়্যেদ সালমান হুসাইনি নদভির স্মৃতি চারণ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীর ইন্তেকালে বিশ্ববরেণ্য আলেমদের শোক আমীরুল হিন্দ আল্লামা ক্বারী উসমান মানসুরপুরীঃ জীবন ও কর্ম আমার একান্ত অভিভাবক থেকে বঞ্চিত হলাম : মাহমুদ মাদানী মানসুরপুরীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের গভীর শোক প্রকাশ দেওবন্দের কার্যনির্বাহী মুহতামিম সাইয়েদ কারী মাওলানা উসমান মানসুরপুরী আর নেই
তাবলীগ থেকে ছিটকে পড়ে একের পর এক বিতর্কের মূখে তারিক জামিল

তাবলীগ থেকে ছিটকে পড়ে একের পর এক বিতর্কের মূখে তারিক জামিল

মুফতী হেলাল আহমদ | তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

হাজী আব্দুল ওয়াহাব রহ তারিক জামিলের বয়ান মিম্বরে বন্ধ করেছিলেন দেড় যুগ আগেই। না তাকে দেয়া হত ইজতেমার বয়ান, না শবগুজারীর বয়ান,  না তিনি পেতেন মারকাজের কোন আমল। না ছিল কোন জোড়ে তার কথা বলা। কেন?

 

কারণ, তাবলীগের চিরচায়িত নিয়ম উসুলের বাহির তিনি নিজের মতো করে চলতেন। তাবলীগের মুরুব্বীগন যেসব উপকরণকে হারাম মনে করতেন, তিনি এসবকে জরুরী মনে করতেন। নারীদের সাথে টকশো আর ভিডিও ও ইউটিউব প্রচারণা তার মূল মোহনতে পরিণত হল।

 

তাবলীগের মিম্বরে  কথা বলতে না পারা লোকটি হঠাৎ করে হয়ে গেলেন পাকিস্তানের কথিত আলমি শুরার একজন। এর ভিতরেই শিয়াদের মজলিসে বয়ান ও তাদের পেছনে নামাজ পড়ে তিনি পাকিস্তানের উলামাদের চরম রোষানলে পড়েন। একের পর এক মূলধারাচ্যুত ও  আকাবির আসলাফের পথ এবং সিরাত থেকে দূরে সড়ে বির্তকৃত হতে থাকলেন। মুফতি জার ওয়ালী খান ছাহেব তাকে “জিন্দিক” বললেন।

 

হাজী সাহেবের খাদেম মৌলভী ফাহিমকে নিয়ে যে তিনি আলমি শুরা ঘটন করলেন। সেই ফাহিম হাজী সাহেবের জানাজার মিম্বর থেকে তাকে জোর করে বয়ান থামিয়ে নামিয়ে দিল। তারপর পাকিস্তানের আমির হওয়া নিয়ে ফাহিম ও তারিক জামিলের ক্ষমতার দন্ধ প্রকাশ্যে বির্তকের জন্ম দেয়।

 

 

সর্বশেষে সালাফিদের মতো রফে ইয়াদাইন করে তিনি হানাফি মাযহাব থেকে সড়ে দাড়ানোর স্পষ্ট ইঙ্গিত দিলেন।  এনিয়ে আবার তিনি নতুন বিতর্কের মধ্যে পড়লেন। অনেকেই বলছেন, মূল থেকে ছিটকে পড়ার কারনেই তিনি আজ পথ হারিয়েছেন।

 

একবার টঙ্গীর ইজতেমায় এলে ঢাকার সাথীরা মাওলানা জুবায়েরকে চাপ দিচ্ছিল, ইজতেমায় বয়ান করার ব্যবস্থা করতে। তিনি মাশওয়ারার ভরা মজমায় বললেন, “যারা তারিক জামিলের বয়ানের জন্য আগ্রহ দেখান, তাদের ভিতরে তাবলীগ প্রবেশ করেনি, তারা এসে তাবলীগে প্রবেশ করছেন। এরা মেহনতই বুঝানে। তাবলীগ কাকে বলে?”

 

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com