সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:২৭ অপরাহ্ন

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ

টঙ্গী প্রতিনিধি, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম |যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলের বিশ্ব ইজতেমা মাওলানা সাদ কান্ধলভীর আসা নিয়ে  বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাধারণ তাবলীগের সাথীরা। প্রতিবাদ লিপিতে তারা বলেন।

 

গত ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইংরেজিতে টঙ্গীর ময়দানে তাবলীগের উভয় পক্ষকে নিয়ে মাননীয় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ও গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বৈঠক করেন। বৈঠকটি মূলত: টঙ্গী ইজতিমা ময়দানে সুষ্ঠুভাবে ইজতিমা অনুষ্ঠিত হওয়া সংক্রান্ত ছিল।

 

টঙ্গী  ইজতিমা ময়দানে বিদেশী মেহমান কারা আসবেন বা আসবেন না- তা  বৈঠকের আলোচ্য বিষয় ছিল না। অথচ অপ্রাসঙ্গিকভাবে হজরত মাওলানা সা’দ সাহেবের ইজতিমায় না আসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা  হয়েছে- যা অপ্রত্যাশিত ও অগ্রহণযোগ্য।

 

বৈঠক শেষে মাননীয় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ১০টি সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন- যা বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে ভাইরাল  হয়। ঐ ঘোষণায় মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ৯ নম্বর সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানান যে, “গত ২৪ তারিখ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর  সভাকক্ষে টঙ্গী ইজতিমা নিয়ে যে বৈঠক হয়, সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়: এবার টঙ্গী ইজতিমায় হজরত  মাওলানা সা’দ সাহেব আসবেন না।”

 

তাঁর এই ঘোষণার বিষয়ে সারাদেশের নিজামুদ্দীন মার্কাজের অনুসারী সাথীগণ চরম মনোক্ষুন্ন ও হতবাক  হয়েছেন! কারণ: বৈঠকে উপস্থিাত ছিলেন এমন একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা বলে জানা যায়, ঐ বৈঠকে  এরকম কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বরং নিজামুদ্দীনের অনুসারী বাংলাদেশের শুরা সৈয়দ ওয়াসিফ ইসলাম বৈঠক  চলাকালীন জানান যে, নিজামুদ্দীন থেকে হজরত মাওলানা সা’দ সাহেব-এর পক্ষ থেকে একটি বার্তা এসেছে,  যাতে হজরত মাওলানা সা’দ সাহেব জানিয়েছেন, বাংলাদেশে তাঁর আসার বিষয়ে সম্মানজনক পরিবেশ তৈরি  না হলে তিনি আসতে আগ্রহী নন। এই বিষয়ে এরচেয়ে বেশি আর কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

 

পরের দিন, অর্থাৎ ২৪ জানুয়ারি, ২০১৯ ইংরেজিতে মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মহোদয় বাংলাদেশের প্রায় সব  প্রচার মাধ্যমের সামনে ইজতিমার বিষয়ে বক্তব্য দিলে উপস্থিাত সাংবাদিকগণ প্রশ্ন করেন, এবার ইজতিমায়

মাওলানা সা’দ সাহেব আসবেন কিনা? উত্তরে মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী জানান যে, বাংলাদেশের ইজতিমায়  আসার বিষয়ে কাউকে তাঁরা নিষেধ করেননি। যদি কেউ আসার কারণে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিাতির অবনতি ঘটার সম্ভাবনা থাকে, তাহলে প্রশাসনের লোকেরা সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।

 

পরবর্তীতে গত ৫  ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইংরেজি রোজ মঙ্গলবার মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী সময় টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে  বলেন যে, মাওলানা সা’দ সাহেব এই বছর বাংলাদেশের ইজতিমায় আসবার বিষয়ে তাঁর নিজের ব্যস্ততার  কারণে অপারগতা প্রকাশ করেছেন।

 

তাই আমরা মাননীয় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মহোদয়কে বিশেষভাবে অনুরোধ করছি, গত ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইংরেজিতে টঙ্গীর ময়দানে দেয়া আপনার বক্তব্যে যে ১০টি সিদ্ধান্তের কথা বলেছেন, তারমধ্যে ৯  নম্বর সিদ্ধান্তটি ২৪ তারিখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের সভাকক্ষের সিদ্ধান্ত এবং ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের বক্তব্যের  সাথে সাংঘর্ষিক। কাজেই এই ৯ নম্বর সিদ্ধান্তটি বাতিল করে সেই বিষয়ে ঘোষণা দেয়ার জন্য সারাদেশের নিজামুদ্দীনের অনুসারী সাথীদের পক্ষ থেকে আপনাকে বিশেষভাবে অনুরোধ করছি।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com