রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৩০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
কওমী মাদরাসার ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা সময়ের দাবী : জাতীয় কওমী শিক্ষাবোর্ড আল্লামা শফীর ইন্তেকালে আরশাদ মাদানীর শোক আল্লামা আহমদ শফী রহ. এর মাগফিরাত কামনায় সাভারের মারকাজুল উলুমে বিশেষ দোয়া আল্লামা শফীর ইন্তেকালে মাহমুদ মাদানীর শোক আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড এর শোক হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ ঘোষনা এক আল্লাহ জিন্দাবাদ… হাটহাজারী মাদরাসায় ছাত্রদের বিক্ষোভ ভাঙচুর : কওমীতে নজিরবিহীন ঘটনা ‘তাবলিগের সেই ৪ দিনে যে শান্তি পেয়েছি, জীবনে কখনো তা পাইনি’ তাবলীগের কাজকে বাঁধাগ্রস্থ করতে লাখ লাখ রুপি লেনদেন হয়েছে: মাওলানা সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী দা.বা. (অডিওসহ)
বিশ্ব ইজতেমার জামাতকে সারাদেশে বাঁধা প্রদান ও মারধর। কোন পথে হাটছেন কথিত জমহুরগন?

বিশ্ব ইজতেমার জামাতকে সারাদেশে বাঁধা প্রদান ও মারধর। কোন পথে হাটছেন কথিত জমহুরগন?

ষ্টাফ রিপোর্টার, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

৫৪তম বিশ্ব ইজতেমা থেকে বের হওয়া মূলধারার সকল চিল্লার জামাতকে সারাদেশে মসজিদে প্রবেশ করতে বাঁধা দিচ্ছেন কথিত জুমহুর নামক পাকিস্তান শূরাপন্থীরা। গত চার দিনে বাংলাদেশের নানানা স্থানে অন্তত ৫শতাধিক জামাতকে বাঁধা দেয়া হয়েছে।

অনেক জায়গায় তাবলীগ জামাতের সাথী ও মূলধারার উলামায়ে কেরামের উপর সন্ত্রাসী আক্রমন করে তাদের মারাত্মক আহত করা হয়েছে। এসব পরিস্থিতিতে সারাদেশের তাবলীগ জামাতের হাজার হাজার চিল্লার সফররত সাথীরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় আছেন।

হবিগঞ্জ, ময়মনসিংহ, শেরপুর, নরসিংদী, চট্টগ্রামসহ নানান স্থানে মসজিদে জামাত প্রবেশ করতে বাঁধা প্রদান ও মারধর করছে ওজাহাতিরা। হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে দুটি জামাতকে বাঁধা প্রদান ও একজন আলেমসহ তিনজন সাথীকে ব্যাপক মারধর করা হয়।

গত বুধবার মাওলানা আবুল খায়ের (৭০) নিজ শহর চুনারুঘাটে নিজ মসজিদে মাগরিবের পর আওয়াবিন নামাজ পড়ছিলেন একাকী। তখন তাবলীগের বিদ্রোহীগ্রুপের মুরুব্বী মাওলানা আব্দুল মতিনের নির্দেশে কয়েকজন সন্ত্রাসী তাকে মসজিদের ভিতর কাঠের টুকরো দিয়ে বেদম প্রহার করতে থাকে। মাওলানা আব্দুল মতিনের ভাই মাওলানা লুৎফুর, মাওলানা আব্দুল কাইয়ূমসহ কয়েকজন সন্ত্রাসী হামলায় নেতৃত্ব দান করে। তারা এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে দুটি আলেমদের জামাতকে মসজিদ থেকে বের করে দেয়। একটি জামাতের আমীর সাহেবের গায়ে হাত তুলে। এতে তিনি গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে এলে চিকিৎসা নিতেও বাঁধা প্রদান করে। তখন তাবলীগের জেলা মারকাজের সাথীরা থানায় যোগাযোগ করলে চুনারুঘাট থানার ওসি নিজে গিয়ে তাকে উদ্ধার করেন। উল্লেখ্য যে, মাওলানা আবুল খয়ের একজন নিরিবিলি নিরীহ প্রকৃতির বুজুর্গ আলেমেদ্বীন হিসাবে এলাকায় সর্বমহলে পরিচিত। তার উপর এমন জঘন্যতম ন্যাক্কারজনক হামলায় নিন্দা জানিয়েছেন শান্তিকামী দ্বীনদার মানুষ।

চুনারুঘাট এবার বিশ্ব ইজতেমা থেকে নিজ জেলায় পয়দল জামাতে এসেছেন, হবিগঞ্জের প্রবীণ আহলেশুরা, প্রখ্যাত মুহাদ্দিস, সর্বজন শ্রদ্ধেয় ওলীয়ে কামেল, উস্তাদুল উলামা, মাওলানা আব্দুল হক সাহেব বাহুবলী। হযরতকেও মসজিদে ঢুকতে বাঁধা দেয়। এবিষয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। প্রসাশনের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে কয়েকদফা বৈঠক হয়েছে। প্রসাশনের আশ্বাসের পেক্ষিতে পরিস্থিতিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের মতো নরসিংদী, ও শেরপুরে জামাতের উপর হামলা করেছে পাকিস্থানী শূরাপন্থী সন্ত্রাসীরা। সচেতন মহলকে তাদের এই জঙ্গীপনা হতবাক করে তুলছে। তারা প্রশ্ন তুলছেন, ওজাহাতিদের এই উগ্রতার শেষ কোথায়? তারা কি বাংলাদেশে ধর্মীয় সংঘাত ও ভয়াবহ গৃহযুদ্ধ লাগিয়ে ক্লান্ত হবেন?

এ প্রসঙ্গে মাওলানা মু’আয বিন নূর বলেন, ইসলামবিরোধীরা তাবলীগের ভিতরে খারেজীদের মত একটি চক্র ঢুকিয়ে দিয়েছে। এরা তাবলীগ নিয়ে সংঘাত বাঁধিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে চাচ্ছে। যেন গণদাবীর ফলে তাবলীগ নিষিদ্ধ হয়ে যায়। ঠিক যেমনিভাবে উসমান ও আলী রাযি.দের জমানায় করা হয়েছিলো। এদের ব্যপারে রাসূল বলেছিলেন, “তাদের নামাজ দেখলে তোমাদের নামাজকে তোমরা তুচ্ছ মনে করবে, তাদের রোজা দেখলেও তোমাদের রোজাকে তোমরা তুচ্ছ মনে করবে (তাদের নামাজ-রোজা সাহাবীদের নামাজ রোজার চেয়েও সুন্দর ছিলো) অথচ তারা ইসলাম থেকে এমনভাবে বেরিয়ে যাবে, যেভাবে ধনুক থেকে তীর বের হয়ে যায়। বুখারী ও মুসলিমের এক হাদিসে খারেজীদের ব্যপারে রাসুল বলেন, لئن أدركتهم لأقتلنهم قتل عاد অর্থাত আমি যদি এদেরকে পাইতাম তাহলে ‘আদ জাতির মত হত্যা করতাম।

আজকের অজাহাতি আলেমদের অবস্থাও অনুরূপ। তারা লেবাস-পোশাকে ইসলামী হলেও কথাবার্তা, চালচলনে সম্পূর্ন খারেজীদের উত্তরসূরী। তাদের দাঁড়ি-টুপি দেখে সরলমনা মুসলমানরা বিভ্রান্ত হচ্ছে। অথচ তাদের ভিতরে ইসলামের বিন্দু পরিমাণ দরদ থাকলেও এই মুবারক মেহনত নিয়ে ছিনিমিনি খেলার সাহস করতো না।

তাদের উদ্দেশ্যে মু’আয বিন নূর বলেন, দাঈ ও মুবাল্লিগ ভাইদের সরলতাকে দূর্বলতা ভাবলে ভুল করবেন। মনে রাখবেন, সবসময় পাশে তুরাগ নদী থাকবেনা।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com