মঙ্গলবার, ১৩ অগাস্ট ২০১৯, ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজ সমর্থকদের হাতে লাঞ্চিত সাবেক শূরা রবিউল হক

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজ সমর্থকদের হাতে লাঞ্চিত সাবেক শূরা রবিউল হক

রাজশাহী প্রতিনিধি; তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ওজাহাতি জোড় করতে গিয়ে চরম লাঞ্চিত হয়েছেন কাকরাইলের সাবেক শূরা মাওলানা রবিউল হক। গতকাল (০৯/০৩/২০১৯) মাগরিবের নামাজের পর মাওলানা রবিউল হক বয়ানের জন্য আসন গ্রহণ করার সাথে সাথে এক ছাত্র অভদ্রোচিতভাবে এলোপাতারি প্রশ্ন ছুড়তে থাকে। প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে জানা যায়, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্র রবিউল হক সাহেবের বরাবর ৩টি প্রশ্ন ছুড়ে দেয়।
(১) মুশফিক স্যারের মুহিব্বীনদের জামাতকে এখনও কেন মসজিদ থেকে পিটিয়ে বের করে দেয়া হচ্ছে, এবং এ বিষয়ে কাকরাইলে কোন মাশওয়ারা হয়েছে কিনা?
(২) ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে কাকরাইল মসজিদ থেকে ‘জঙ্গী’ আখ্যায়িত করে ৪৭ জন সাথীকে জেলে প্রেরন করা হয়েছিল কেন?
(৩) তাবলীগের সংকট সমাধানে মুশফিক স্যার একটা প্রকাশ্য মাশওয়ারার প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। এ বিষয়ে কাকরাইলের আহলে শুরাদের পদক্ষেপ কী?

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, প্রশ্ন শেষ হতে না হতেই আরেকজন অজাহাতি এসে জোড়পূর্বক মাইক ছিনিয়ে নেয়। শুরু হয় চরম হট্টগোল ও ধাক্কাধাক্কি। দীর্ঘক্ষণ চেষ্টা করেও পরিস্থিতি আর স্বাভাবিক করা যায় নি। তখন কিছু ছাত্রকে সরিয়ে দিতে বাধ্য হয় জোড় আয়োজক কমিটি। নিজ কর্মীদের এমন আচরণে হতভম্ব হয়ে পড়েন মাওলানা রবিউল হক ও সফরসঙ্গী মাওলানা আবদুল মতিন।

উল্লেখ্য যে, ২০০৩ সালে কাকরাইল মার্কাজের জন্য ১৬সদস্য বিশিষ্ট একটি ‘আহলে শূরা’ গঠন করা হয় নিযামুদ্দীন বিশ্ব মার্কাজে। শায়খুল ইসলাম আল্লামা সাদ কান্ধলভী সহস্রাধিক বাংলাদেশীর সামনে একে একে ১৬জন শূরার নাম পাঠ করেন। নিজের নাম শূরা তালিকায় না দেখে চরম ক্ষুব্ধ হন প্রফেসর মুশফিক আহমদ। সাথে সাথে তিনি তাবলীগের সাথে নিজ সম্পর্ক ছিন্ন করে নতুন একটি ফেরকা কায়েমের ঘোষণা দিয়ে নীরব আন্দোলন চালিয়ে যেতে থাকেন। বিভিন্ন কলেজ ও ভার্সিটির নওজোয়ান ছাত্রদেরকে তিনি তাবলীগ জামাত ও তাবলীগের মুরুব্বীদের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তুলে নিজের সাথে জুড়াতে থাকেন। খুব অল্প সময়ে গড়ে তোলেন তাবলীগ বিরোধী একটি উগ্র ও বেয়াদব বাহিনী। চলমান সঙ্কটের সূচনায় তারা মূলধারাচ্যুত সাবেক শূরাদেরকে বাহবা সমেত হাত তালি দিলেও এখন সনাতন নিয়মে আবারো লাঞ্চনা শুরু করেছে।

আজকের হট্টগোলে উপস্থিত ছিলেন এমন একজন জানান, এই উগ্র মুশফিকগ্রুপটি মূলত মুনাফিকদের মিলনসভা। তাবলীগের বর্তমান সঙ্কটকে এরাই উলামায়ে কেরামের হাতে পায়ে ধরে সৃষ্টি করেছে। কিন্তু অজাহাতি অঙ্গনের ক্রান্তিলগ্নে তারা ১৮০ ডিগ্রী পল্টি দিয়ে বসেছে। এদেরকে না দেখলে আমরা বুঝতেই পারতাম না, রাসূলের যুগে মুনাফিকরা কিভাবে মুসলিম নাম ধারণ করে রাসূলের বিরোধিতা করতো।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!