বৃহস্পতিবার, ১১ Jul ২০১৯, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
তাবলীগের মূলধারার অনুসারীদের সংবাদ সম্মেলন : জমি দখল পরিকল্পনাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি মসজিদ মাদরাসায় যৌন হয়রানী বন্ধে কয়েকটি পরামর্শ দাওয়াতের পথ: দাঈদের যেসব মুসীবতের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে হাইয়াতুল উলিয়ার দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষার ফল প্রকাশ মাসিক আত-তাহকীক বাজারে এসেছে: শুরুতেই প্রথম সংস্করণ শেষ আজ শহীদ আব্দুর রহিমের বাড়িতে গেলেন সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম ইজতেমা নিয়ে ধর্মব্যাবসায়ীদের গাথদাহ কেন? এক নজরে মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের বণাঢ্য কর্মময় জীবন দেওবন্দের মুহতামিমকে মোদি- সরকার ও ‘র’ এর যথার্থ মূল্যায়ন আমলে মাশগুল থাকুন, দলাদলি পরিহার করুণ : সাজ্জাদ নূমানী
মেসওয়াকের যত উপকার ও ফজিলত

মেসওয়াকের যত উপকার ও ফজিলত

মুফতী মুয়াজ্জেম হোসেন : বর্তমানে প্রায় সবাই দাঁত পরিষ্কার করার জন্য ব্রাশ ব্যবহার করে থাকে। তবে ধর্মপ্রাণ মুসলমানেরা কিন্তু এখনো মেসওয়াক ব্যবহার করে থাকেন। কারণ ইসলামে মেসওয়াকের আলাদা গুরুত্ব ও ফজিলত রয়েছে। মেসওয়াকের। বিষয়ে ইসলাম কি বলছে, তার আলোচনা নিম্নে বিস্তারিত বর্ণনা করা হলো।

মিসওয়াক কি? মিসওয়াক হলো গাছের ডাল বা শিকড়। যা দিয়ে দাঁত মাজা ও পরিষ্কার করা হয়। দাঁত মাজাকেও মিসওয়াক বলা হয়।

মিসওয়াকের গুুরুত্ব : মিসওয়াক মুখের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টির উপায়। (বুখারি, নাসাঈ, মিশকাত) অন্য হাদিসে এসেছে, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, এমনটি কখনা হয়নি যে, জিব্রাইল আলাইহিস সালাম আমার নিকট এসেছেন আর আমাকে মিসওয়াকের আদেশ দেননি। এতে আমার আশঙ্কা হচ্ছিল যে, মিসওয়াকের কারণে আমার মুখের অগ্রভাগ ছিলে না ফেলি। (মুসনাদে আহমদ, মিশকাত)

কি দ্বারা মিসওয়াক করবো : যেসব গাছের স্বাদ তিতাসেসব গাছের ডাল দিয়ে মিসওয়াক করা মুস্তাহাব। যায়তুনের ডাল দিয়ে মিসওয়াক করা উত্তম। মিসওয়াক হাতের আঙ্গুলের মতো মোটা ও নরম হওয়া ভালো। লম্বায় হবে এক বিঘাত।

মিসওয়াক করার নিয়ম : মুখের ডানদিক থেকে শুরু করে দাঁতের প্রস্থের দিক থেকে মিসওয়াক করা। দৈর্ঘ্যরে দিক থেকে নয়। ডান হাতের কনিষ্ঠাঙ্গুলী মিসওয়াকের নিচে আর মধ্যমা ও তর্জনী মিসওয়াকের ওপর এবং বৃদ্ধাঙ্গুলী দ্বারা এর মাখার নিচ ভালভাবে ধরা। এ নিয়মটি হজরত ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রয়েছে।

মিসওয়াক কখন করবো : অধিকাংশ ওলামায়ে কেরামের মতে, ওজুতে কুলি করার পূর্বে কোনো কোন আলিম ওজুর পূর্বে মিসওয়াক করার কথা বলেছেন। নামাজের পূর্বে। ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়ার পর। কোনো মজলিসে যাওয়ার পূর্বে। কুরআন ও হাদিস তিলাওয়াতের পূর্বে মিসওয়াক করা মুস্তাহাব।

মেসওয়াকের গুরুত্ব ও ফজিলত : মেসওয়াক রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের একটি বিশেষ সুন্নাত। বিভিন্ন হাদিস শরীফে মিসওয়াক করার প্রতি গুরুত্ব প্রদান করা হয়েছে। আল্লাহ তাআলা তাঁর রাসূল হযরত মুহাম্মাদ (সা.) কে বেশি বেশি মিসওয়াক করার নির্দেশ দিয়েছেন। যেমন হাদিস শরীফে হযরত আবু উমামা বাহেলী (রাযি.) থেকে বর্ণিত হয়েছে, রাসূল (সা.) ইরশাদ করেছেন, যখনই জিবরাঈল (আ.) আমার নিকট আসতেন, তখনই আমাকে মিসওয়াক করার জন্য আদেশ দিতেন। আমার ভয় হতে লাগলো যে, মিসওয়াক করতে করতে আমি। আমার মুখের সম্মুক দিক ক্ষয় করে দিব। (মেশকাত শরীফ- ১/৪৫) রাসূল (সা.)ও উম্মতগণকে মেসওয়াকের গুরুত্ব বোঝাতে, যেয়ে বলেন, “যদি উম্মতের কষ্ট ও অসুবিধার কথা চিন্তা না করতাম, তাহলে প্রত্যেক নামাজের সময় মিসওয়াক তাদের ওপর আবশ্যক করে দিতাম।” (মুসলিম শরীফ- ১/১২৮),

অন্যত্র বর্ণিত হয়েছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “মিসওয়াক সম্পর্কে আমি তোমাদেরকে অতি গুরুত্বারোপ করছি।” (নাসাঈ শরীফ পৃ. ৩)। মিসওয়াক সকল আম্বিয়ায়ে কেরামের শরীয়তে সুন্নাত ছিলো। যেমন, হাদিস শরীফে হযরত আবু আইয়ুব আনসারী (রাযি.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, চারটি বস্তু সকল নবীগণের সুন্নাতের অন্তর্ভুক্ত। (১) মন্দ কাজ থেকে লজ্জা করা (২) সুগন্ধি ব্যবহার করা (৩) মিসওয়াক করা (৪) বিবাহ করা। (তিরমিযি শরীফ-১/২০৬) রাসূল (সা.) উম্মতগণকে মিসওয়াকের প্রতি গুরুত্বারোপ করার সাথে সাথে নিজেও মিসওয়াকের আমলের প্রতি অধিক যতœবান ছিলেন। যেমন হাদিস শরীফে বর্ণিত হয়েছে, তাবেয়ী হযরত শুরাইহ ইবনে হানী (রাযি.) বলেন, একবার আমি উম্মুল মুমিনীন হযরত আয়েশা (রাযি.) কে জিজ্ঞেস করলাম, রাসূল (সা.) যখন ঘরে প্রবেশ করতেন তখন কোন কাজ সর্বপ্রথম করতেন? হযরত আয়েশা (রাযি.) বললেন, মিসওয়াক। (মুসলিম শরীফ-১/১২৮) অন্যত্রে হযরত আয়েশা (রাযি.) বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ (সা.) যখনই ঘুমাতেন রাতে হোক বা দিনে, অতঃপর জাগ্রত হতেন, তখনই মিসওয়াক করতেন ওযু করার পূর্বে।’ (আবুদাউদ-১/৪)

ইসলামী শরীয়তে মিসওয়াক করার মধ্যে অনেক বরকত ও ফজিলত রযেছেঃ ওলামায়ে কেরাম উল্লেখ করেছেন যে, মিসওয়াকের ফজিলত প্রসঙ্গে প্রায় চল্লিশটি হাদিস বর্ণিত হয়েছে। কয়েকটি উল্লেখ করা হলো, হযরত আয়েশা (রাযি.) থেকে বর্ণিত রযেছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘মিসওয়াক মুখের পবিত্রতা ও আল্লাহ তা’আলার সন্তুষ্টি লাভের মাধ্যম।(নাসাঈ শরীফ-পৃ:৩) অন্যত্রে হযরত আয়েশা (রাযি.) থেকে বর্ণিত আছে, রাসূল (সা.) ইরশাদ করেছেন, যে নামাজের জন্য মিসওয়াক করা হয়, তার ফজিলত মিসওয়াকবিহীন আদায় কৃত নামাজের তুলনায় সত্তর গুণ অধিক। (মেশকাত শরীফ-১/৪৫)

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!