রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আল্লামা শফীর ইন্তেকালে আরশাদ মাদানীর শোক আল্লামা আহমদ শফী রহ. এর মাগফিরাত কামনায় সাভারের মারকাজুল উলুমে বিশেষ দোয়া আল্লামা শফীর ইন্তেকালে মাহমুদ মাদানীর শোক আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকালে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড এর শোক হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ ঘোষনা এক আল্লাহ জিন্দাবাদ… হাটহাজারী মাদরাসায় ছাত্রদের বিক্ষোভ ভাঙচুর : কওমীতে নজিরবিহীন ঘটনা ‘তাবলিগের সেই ৪ দিনে যে শান্তি পেয়েছি, জীবনে কখনো তা পাইনি’ তাবলীগের কাজকে বাঁধাগ্রস্থ করতে লাখ লাখ রুপি লেনদেন হয়েছে: মাওলানা সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী দা.বা. (অডিওসহ) নিজামুদ্দীন মারকাজ বিশ্ব আমীরের কাছে বুঝিয়ে দিতে আদালতের নির্দেশ
৩১৩জনের সেই জিন্দাদিল কাফেলা

৩১৩জনের সেই জিন্দাদিল কাফেলা

তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

১৭ রামাদানের, ৬২৪ সালের রাত শুরু হয়েছে । এর মধ্যে ৩১৩ জন মানুষ রাত কাটাচ্ছে মদিনার এক মরুভূমিতে । কারো ভাগ্যে তাবু জুটেছে, কারও ভাগ্যে জুটেনি । তারা মরুভূমির রাতের ঠাণ্ডায় খোলা আকাশে নীচেই আছে ।

এই মানুষগুলোর এক পাশে বিশাল মরুভূমি । আরেক পাশে আধুনিক অস্ত্র-শস্ত্রে সজ্জিত তাদের সংখ্যার চেয়েও প্রায় ৫ গুন বড় এক সেনাবাহিনী । সকাল হলেই এক প্রচন্ড যুদ্ধের দামামা বেজে উঠবে ।

এই ৩১৩ জন মানুষের জন্য এটা অস্তিত্বের লড়াই । হেরে যাওয়া মানে সব কিছু চিরতরে শেষ হয়ে যাওয়া । এই যে এত বছর ধরে যে স্ট্রাগল, শত অত্যাচার-নির্মমতা সহ্য করে যাওয়া, শেষ-মেষ জীবনের সকল সম্পদ, আয়-রোজগার ছেড়ে দিয়ে দেশ ত্যাগে বাধ্য হওয়া সবকিছু বিফলে যাবে ।

তারপরও মানুষগুলো কেমন যেন নিশ্চিন্ত । তাদের ভাব-সাব দেখে মনে হচ্ছে এটা কোন ঘটনাই না । রাত বাড়ার সংগে সংগে প্রায় সবাই নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে পড়লো ।

শুধু একজন জেগে রইলেন । তাদের কমান্ডার ইন চিফ । এই ৩১৩ জনের সবকিছু । যাকে তারা মন্ত্রমুগ্ধের মত অনুসরণ করে চলে ।

সেই মানুষটি সারারাত তার চোখ দুটোকে বিশ্রাম দিলেন না । কখনও সিজদায় পড়ে কাঁদছেন, কখনও নামাজে দাঁড়িয়ে কাঁদছেন, কখনও হাত দুটি শুন্যে তুলে ধরে কাঁদছেন ।

একেবারে শেষ রাতে উনি নিজেকে উজার করে দিয়ে সর্বশক্তিমানের কাছে হাত পাতলেন ।

হে আকাশ ও পৃথিবীর মালিক, তুমি দেখেছো, এই জালিম সেনাবাহিনীর অত্যাচার । তাদের জুলুমের সাক্ষী তুমি নিজে । তারা আমাদেরকে আমাদের দেশ থেকে বিতাড়িত করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি, আজ এসেছে আমাদেরকে সমূলে শেষ করে দিতে ।

হে দয়ালু সত্তা, আমাদের অপরাধ তো কেবল এইটুকুই যে, আমরা শুধু তোমার উপর ঈমান এনেছি । তোমাকেই জীবনের সবকিছু বলে মেনে নিয়েছি ।

আজ যদি এই মরুভূমিতে ৩১৩ জনের ছোট দলটি হেরে যায়, ধ্বংস হয়ে যায়, তাহলে এই পৃথিবীতে তোমার নাম নেয়ার মত আর কেউ বাকী থাকবে না ।

এই মানুষগুলো শুধু তোমার উপর ভরসা করে এখানে চলে এসেছে । এদেরকে তুমি নিরাশ করো না । আজ তোমার সাহায্য ছাড়া, তোমার দয়া ছাড়া এই অসম যুদ্ধে আমরা টিকে থাকতে পারবো না । আমরা তোমার সাহায্যের দিকে তাকিয়ে আছি ।

এ কথা বলতে বলতে তার গায়ের চাঁদরটি খুলে পরে যাচ্ছিল । এ দৃশ্য দেখে দৌড়ে এলেন সারারাত সেই মানুষটির নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকা আবু বকর (রা) । উনি বললেন, হে আল্লাহর নবী(সা), শান্ত হোন । নিশ্চয়ই, আপনার রব আপনাকে ত্যাগ করবে না ।

সত্যিই সেদিন ঐ ৩১৩ জনকে তাদের রব একা ছেড়ে দেননি । তাদের রবের সাহায্যে তারা সেদিন বিজয় ছিনিয়ে এনেছিলেন । সেই ৩১৩ জনের ওয়ারিশরা সারা পৃথিবীর অর্ধেক শাসন করেছিল । ধর্ম-বর্ন নির্বিশেষে সকলের জন্য মানবতার অধিকার প্রতিষ্ঠা করে দেখিয়েছিল ।

ব্যাটল অফ বদর !
দ্যা রাইস অফ অ্যা ফেইথ !

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com