মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৭:১৭ অপরাহ্ন

মাহামান্বিত রজনী লাইলাতুল ক্বদর

মাহামান্বিত রজনী লাইলাতুল ক্বদর

তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

শবে ক্বদর এমন একটি মহা পূণ্যময় রজনী যা আল্লাহ তা‘আলা বিশেষ অনুগ্রহে একমাত্র উম্মতে মুহাম্মাদীকে প্রদান করেছেন। অন্য কোন উম্মত উক্ত পবিত্র রজনী পায়নি।

*শবে ক্বদরের ফযীলতঃ*

*১)* উক্ত রজনীর অধিক গুরুত্ব, মর্যাদা ও ফযীলত বুঝানোর জন্য আল্লাহ তা‘আলা তাঁর পবিত্র কুরআনে কারীমে স্বতন্ত্র একটি সূরা অবতীর্ণ করেছেন। যার নাম সূরাতুল ক্বদর।

*২)* শবে ক্বদরে আল্লাহ তা‘আলা পবিত্র কুরআনে কারীম লাউহে মাহফূয থেকে প্রথম আকাশ অবতীর্ণ করেন। *[সূরাতুল ক্বদর: ১]*

*৩)* শবে ক্বদরের এক রাত্রির ইবাদাত তিরাশি বছর চার মাসের ইবাদতের চেয়েও অধিক উত্তম। *[সূরাতুল ক্বদর:৩]*

*৪)* হযরত আবূ হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত নবীয়ে পাক সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেনঃ যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে সওয়াবের আশায় লাইলাতুল ক্বদর ইবাদতের মাধ্যমে কাটাবে আল্লাহ তা‘আলা তার অতীত জীবনের সকল গুনাহ মাফ কবে দিবেন। *[বুখারী শরীফ হাদীস নং ১৯০১, মুসলিম শরীফ হাদীস নং ১৭৫]*

*৫)* এই রাত্রে আল্লাহ তা‘আলার অনুমতিক্রমে হযরত জিবরীল আলাইহিস সালাম ফেরেশতাদের একটি জামা‘আত নিয়ে পৃথিবীতে শুভাগমন করেন এবং আল্লাহ্ তা‘আলার ইবাদতগুযার বান্দাদেরকে সালাম ও রহমতের দু‘আ করতে থাকেন। *[তাফসীরে ইবনে কাসীর:৮/৪১৪]*

*ক্বদরের রাত কোনটিঃ*

আল্লাহ্ তা‘আলা পবিত্র কুরআনে কারীমে ইরশাদ করেন, আমি কুরআনে কারীমকে ক্বদরের রাত্রে অবতীর্ণ করেছি। *[সূরাতুল ক্বদর: ১]*

অন্যত্র ইরশাদ করেনঃ রমাযান মাসে কুরআনে কারীমকে অবতীর্ণ করা হয়েছে। *(বাকারা:১৮৫)*
উক্ত আয়াতদ্বয় দ্বারা বুঝা যায় যে, শবে ক্বদর রমাযান মাসেই সংঘটিত হয়।
আম্মাজান হযরত আয়েশা রাযি. থেকে বর্ণিত রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেনঃ তোমরা রমাযানের শেষ দশকের বেজোড় রাত্রগুলোতে লাইলাতুল ক্বদর তালাশ কর। *[বুখারী শরীফ: হাঃ নং ২০১৭, মুসলিম শরীফ হাঃ নং ১১৬৯]*
যির ইবনে হুবাইশ রহ. বর্ণনা করেন, আমি হযরত উবাই ইবনে কা‘আব রা. কে লাইলাতুল ক্বদর সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম এবং বললাম আপনার ভাই আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. বলে থাকেন, যে ব্যক্তি পূর্ণ এক বৎসর জাগ্রত থাকবে সে লাইলাতুল ক্বদর পাবেই। উত্তরে হযরত উবাই ইবনে কা‘আব রা. বলেনঃ আল্লাহ তার উপর রহম করুণ তিনি ইচ্ছা করেছেন লোকেরা যেন এক রাতের উপর ভরসা করে বসে না থাকে। নিশ্চয় তিনি জানেন তা রমাযানে এবং তাও জানেন যে তা রমাযানের শেষ দশকে এবং ২৭ তারিখে। অতঃপর হযরত উবাই ইবনে কা‘আব রা. শপথ করে বললেনঃ অবশ্যই তা ২৭ তারিখের রজনীতেই হয়ে থাকে। যির ইবনে হুবাইশ বলেনঃ আমি বললামঃ হে আবুল মুনযির! (উবাই ইবনে কা‘আব এর উপ নাম) এটা কিসের ভিত্তিতে বলছেন? তদুত্তরে তিনি বললেনঃ আলামত বা নিদর্শনের ভিত্তিতে যা রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদেরকে বলে দিয়েছেন; সে দিন সূর্যের কিরণ থাকে না। *[মুসলিম শরীফ হাঃ নং ৭৬২]*

*শবে ক্বদর হাসিল করার উপায়ঃ*

*ক.* রমাযানের শেষের দশকে ই‘তিকাফ করা অর্থাৎ, ২০শে রমাযান সূর্য ডোবার পূর্ব হতে ঈদুল ফিতরের চাঁদ দেখা পর্যন্ত মসজিদে অবস্থান করা। পেশাব পায়খানা বা ফরয গোসলের প্রয়োজন ছাড়া মসজিদ থেকে বের না হওয়া।

*খ.* এটা সম্ভব না হলে অন্তত শেষ দশকের শুধু রাত গুলোতে মসজিদে নফল ই‘তিকাফ করা। দিনে দুনিয়াবী জরুরত পূর্ণ করা।

*গ.* এটাও যদি সম্ভব না হয় তাহলে শেষ দশকের ইশা ও ফজরের নামায গুরুত্ব সহকারে জামা‘আতের সাথে আদায় করা। এবং বেজোড় রাতগুলোতে নফল নামায, তিলাওয়াত ইত্যাদি তুলনামূলকভাবে বেশী করা।

*শবে ক্বদরে করণীয় কাজসমূহঃ*

*১)* এ পূণ্যময় রজনীতে অবহেলা না করে গুরুত্ব ও ইখলাসের সাথে ইবাদত বন্দেগীতে লেগে থাকা চাই। চাই নফল নামায বা তিলাওয়াত যিকির আযকারে হোক কিংবা দু‘আয় মশগুল থাকার মাধ্যমে হোক।

*২)* নিজের জীবনের পাপরাশির কথা স্মরণ করে আল্লাহ তা‘আলার নিকট কাকুতি মিনতি ও রোনাজারীর সাথে তাওবা করা ও ক্ষমা চাওয়া। *[সূরা নূহ: ১০]*

*৩)* ইখলাসের সাথে সাওয়াবের আশায় উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে নেক আমলে লিপ্ত থাকা। *[বুখারী: হাঃ নং ১৯০১, মুসনাদ আহমাদ: হাঃ নং ১৭১৪৫]*

*৪)* এ রাত্রিতে বেশী বেশী নিম্নোক্ত দু‘আটি পড়তে থাকা-

   *اَلّلهُمَّ إِنَّكَ عَفُوٌّ تُحِبُّ الْعَفْوَ فَاعْفُ عَنِّى*

*[আমালুল য়াউমি ওয়াললাইলাহ: হাঃ নং ৭৬৭ ইবনে মাজাহ: নং ৩৮৫০]*

*৫)* উক্ত রাত্রির কিছু অংশ কুরআনে কারীমের তিলাওয়াতে নিমগ্ন থাকা। কিছু অংশে নফল নামায বিশেষ করে সালাতুত তাসবীহ আদায় করা। আর কিছু অংশে যিকির আযকার দু‘আ মুনাজাত করা। *[সূরা আনকাবূত:৪৫]*

*শবে ক্বদরে বর্জনীয় কাজসমূহঃ*

*১)* মসজিদে নিঃপ্রয়োজনে মোমবাতি জ্বালানো ও আলোক-সজ্জা করা। কারণ এটা অপব্যয়। আর অপব্যয় করা নাজায়িয। *[সূরায়ে আ‘রাফ: ৩১, বনী ইসরাঈল:২৭]*

*২)* জামা‘আতের সাথে সালাতুল তাসবীহ, তাহাজ্জুদ কিংবা অন্য কোন নফল নামায পড়া। কারণ নফল নামায জামা‘আতের সাথে নাজায়িয। *[রদ্দুল মুহতার: ১/৫৫২]*
*৩)* ঘোষণা করে মসজিদে সম্মিলিত দু‘আর আয়োজন করা। হ্যাঁ ! ঘোষণা বা ডাকাডাকি ছাড়া এমনিতে যারা উপস্থিত ছিল তারা দু‘আ করে নিলে তা জায়েয।

*৪)* এই রাতে মসজিদে প্রচলিত মীলাদ-ক্বিয়াম করা। কারণ ইহা সুস্পষ্ট বিদ‘আত। *[মুসনাদে আহমাদ: হাঃ নং ১৭১৪৯]*

*৫)* এত অধিক রাত্র পর্যন্ত জাগ্রত থাকা, যাতে ঘুমের তাড়নায় ফজরের জামা‘আত ছুটে যায় কিংবা কাযা-ই হয়ে যায় বা এমন হয়ে যায় যে নামাযে কি সূরা কালাম পড়ছে তা নিজেরও খবর নেই। *[মুআত্তা ইমাম মালেক: হাঃ নং ১৫৫, আল ইসাবা: ৩/২০০]*

*বি:দ্র:-* মসজিদে ইমাম ও খতীবগণের কর্তব্য ঐদিন লম্বা সময় ওয়াজ ও বয়ানে না কাটানো। বরং তার আগে জুমু‘আয় বা কোন একদিন শবে ক্বদরের আহকাম বলে দেয়া। একান্ত ঐ দিনই কথা বলার প্রয়োজন হলে সংক্ষেপে এই রাত্রের গুরুত্ব ও ফযীলত সম্পর্কে কিছু কথা বলে মুসল্লীদেরকে উৎসাহ দিয়ে ইবাদতের প্রতি নিবিষ্ট করার চেষ্টা করবে। তবে সর্বাবস্থায় জ্বাল হাদীস ও ভিত্তিহীন ঘটনাবলী বর্ণনা থেকে বিরত থাকা চাই। *[মুকাদ্দামায়ে মুসলিম: হাঃ নং ৭]*
পটকাবাজী, আতশবাজী ইত্যাদি কুসংস্কার থেকে বিরত থাকা। বিশেষ করে অভিভাবকদের কর্তব্য হলো ছোটদেরকে উক্ত ব্যাপারে সাবধান করে দেয়া এবং তাদের হাতে টাকা পয়সা না দেয়া। কারণ এই অপকর্মে লিপ্ত হওয়ার কারণে নিজেকে যেমন উক্ত রাতে অনেক ফযীলতপূর্ণ ইবাদত থেকে বঞ্চিত রাখা হয়, ঠিক তেমনই উক্ত জিনিসগুলোর বিকট ও ভয়ংকর শব্দের দরুন আল্লাহর বান্দাদেরকে আতংকের মধ্যে ফেলে কষ্ট দেয়া হয়। তাই উক্ত শরীয়ত পরিপন্থী জঘন্য কাজে লিপ্ত হওয়া কবীরা গুনাহ ও হারাম। *[সূরা বাকারা: ১১৪, বনী ইসরাঈল: ২৭]*
এই রাত্রকে উপলক্ষ করে অধিক ও উত্তম খানা ও তাবারকের আয়োজন থেকে বিরত থাকা। মসজিদে শিরনী, মিষ্টি ইত্যাদির আয়োজন থেকে বেঁচে থাকা।

ইয়া আল্লাহ্!আমাদেরকে মাফ করে দেন। আমাদের সকলের জন্য এই মহিমান্বিত রাত্রিটি মঞ্জুর করে নেন।এই রাতের *কদর করার এবং ফযীলত* বুঝে আদব রক্ষা রেখে করনীয় প্রতিটি আমল করার খুব তাওফিক দান করুন।এবং *শিরিক ও বিদআ’ত* যুক্ত আমল করা থেকে বেঁচে থাকার খুব তাওফিক দান করুন।আমীন…..!

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!