মঙ্গলবার, ২৫ Jun ২০১৯, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন

একটি জনগোষ্ঠীর অর্ধঃপতনের নির্মম ট্যাজিডি

একটি জনগোষ্ঠীর অর্ধঃপতনের নির্মম ট্যাজিডি

শহিদুল ইসলাম মিলন, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

মোহতারামদের কত সম্মান করতাম! সুবহানআল্লাহ! কত দূর পর্যন্ত রান করে ইনাদের বয়ান শুনতে যেতাম ! ইনাদের বয়ানকে কত তথ্যবহুল ও নির্ভরযোগ্য মনে করতাম!

এদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বললে চুল পরিমাণ ছাড় দিতাম না। পারলে সাথে সাথে মুখ চেপে ধরতাম।

নিজের হালাল কামাইয়ের মধ্যে উনাদেরকে অংশীদার মনে করতাম।

যারা এই মোহতারামদের বিপক্ষে কথা বলতো বিনা তাহকীকে তাদেরকে নাহক ও ভন্ড মনে করতাম। ইনাদের কথার তাহকীক করার মানসিকতা আমাদের কখনোই ছিল না।

আর আজ?

আহ্হাআআ! আমি বাসায় ঘুমাচ্ছি। বাজে সকাল ১০ টার মত। জামালপুর ইজতেমার পেন্ডেল প্রায় শতভাগ রেডি।

কথিত জমহুরগণ ইজতেমা করতে দিবে না। ইজতেমা বন্ধের জন্য বিক্ষোভ মিছিলে অংশগ্রহণ করতে আসছে সরিষাবাড়ী থেকে কিছু আলেম। তারা ইজতেমার মাঠের সামনে গাড়ী থেকে নেমে ইজতেমার মাঠে কাজ করনেওয়ালাদের হুমকি দিয়েছে, ‘আসতেছি তোদেরকে জবহ করমু , ইজতেমা জ্বালিয়ে দিমু, পুড়িয়ে দিমু’!
এলাকার লোকজন দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে মহিলা পুরুষ মিলে উত্তম মধ্যম কিছু দিয়েছে।

ইনারা বিক্ষোভ মিছিলের ষ্টেজে এসে বললো কি? মোস্তফা কামাল আর মিলনের উপস্থিতিতে ও নেত্রীত্বে তারা নাকি আহত হয়েছেন। উপস্থিত সবাইকে বললেন, মিলনের কাপড়ের দোকান থেকে কাপড় কেনা যাবে না। মিলনের ফাঁসি চাই দিতে হবে! অথচ তখন আমি আমার বেলটিয়াস্ত বাসায় ঘুমে। কয়টা বলবো? আরো অনেক কথা! থাক।

মাওলানা সাদ সাহেব সাল লাগিয়েছেন নব্বইয়ের দশকে। এর পর থেকে সারা জীবনই ধরতে গেলে আল্লাহর রাস্তায় ই ফিরছেন।
যিনি শেষ বিশ্ব আমীর কর্তৃক ১০ জন বিশ্ব শুরা হযরতদের মধ্যে একজন। উল্লেখ্য যে, বর্তমানে সেই ১০ জন বিশ্ব শুরাদের মধ্যে উনি একাই বেঁচে আছেন। প্রবীন মুরুব্বি হওয়া সত্ত্বেও যেখানে মাওলানা আহমদ লাট ও মাওলানা ইব্রাহিম দেওলা সাহেবদের নাম বিশ্ব শুরার মধ্যে আসেনি।

প্রত্যক্ষদর্শী সকলেই অবগত যে, ধরতে গেলে যিনি বিগত ২২ বছর যাবৎই একক বিশ্ব আমীরের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

ইঞ্জিনিয়ার আঃ মুকীত সাহেব রহঃ এর ছেলে মাওলানা আঃ বার সাহেব প্রায় ২০ বছর আগে মাওলানা সাদ সাহেবের সাথে বিদেশে ১ চিল্লা দিয়েছেন।

আর আন্তর্জাতিক আলেম হিসেবে পরিচিত মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী সাহেব বিভিন্ন জায়গায় ওয়াযাহাতীর নামে গলা ফাটাচ্ছেন যে, মাওলানা সাদ সাহেব তাবলীগের কোন লোকই না, সাদ সাহেব নাকি তাবলীগে এক চিল্লাও লাগান নাই!

ছিঃ এদের মত অদূরদর্শী ও মারাত্মক ধরণের তথ্যসন্ত্রাস লোককে বর্তমান জমানার মহা কিছু মনে করতাম! দুঃখে বুকটা ফেটে যায়!তিনি হলেন জমহুর আলেমদের খতিবে আজম। আজম (প্রধান খতিবের) এই অবস্থা হলে চুনোপুঁটিদের ভয়ংকর মিথ্যাচার কেমন হতে পারে।

বাংলার প্রখ্যাত আলেম নামে খ্যাত মাওলানা মুস্তাকুন্নবী সাহেবকে জীবন্ত আল্লাহর ওলী মনে করতাম।
কিছু দিন আগে উনি নিখোঁজ হলে প্রথমদিকে উদ্ধারের জন্য মোবাইলে হয়তো শত শত মিনিট কথা বলেছি বিভিন্ন প্রশাসনের লোকদের সাথে। অথচ উনার সাথে আমার ব্যক্তিগত কোন পরিচয় আজো পর্যন্ত নাই।

পহেলা ডিসেম্বরে কথিত আলমী শুরা পক্ষীয় নামে বাংলার কওমী মাদ্রাসার কিছু তলাবা ও ওলামা টঙ্গীর মাঠকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে দখল করে।
তাবলীগের মূল ধারার এক বছর আগে নির্ধারিত তারিখে ৫ দিনের জোড়ে আসা সাথীদের উপর প্রথমে ইটপাটকেল ও পরে লাঠি নিয়ে হায়েনার মত ঝাপিয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত আল্লাহ পাকের কুদরতে আমাদের খালি হাত থাকা সত্ত্বেও আমরা কম সংখ্যক আহত হলাম, তারা অনেক বেশী সংখ্যক আহত হলো। স্পটেই আমাদের একজন নিহত হলেন। পরে হাসপাতালে আরেকজন। শতভাগ সঠিক তথ্য হলো, উনাদের একজনও নিহত হননি।

আমিও সেদিন সেখানে ছিলাম। খোদার কসম ১০০% সুযোগ থাকা সত্ত্বেও কারো উপর হাত তুলি নাই। তবে হ্যাঁ, আমাদের অনেকেই আত্মরক্ষার জন্য মারতে আসা লম্ফঝম্প মার্কার উপর উপায়ান্তর না দেখে বাধ্য হয়ে হাত তুলেছে।

সেদিন যদি আমাদের মারার ইচ্ছা থাকতো মাঠ থেকে একটাও হয়তো জীবন নিয়ে বের হতে পারতো না।
সেদিক থেকে দল মত নির্বিশেষে আমাদেরকে ধন্যবাদ দেয়ার কথা ছিল।
কিন্তু দুঃখের সাথে জানাচ্ছি যে, সারা বাংলায় কথিত আমাদের মাথার তাজরা আসল বিষয়কে গোপন রেখে বর্তা কাচা মিথ্যার বস্তা খুলতে লাগলো! আর সবাই তা সত্য হিসেবে গিলতে লাগলো। সেমতে, আমরা ধন্যবাদ প্রাপ্তির পরিবর্তে অনেকের কাছে হলাম চরম অপরাধী!!!
আমাদের পক্ষীয় অনেক লোকই কথিত জমহুরদের তথ্য সন্ত্রাসের শিকার হয়ে তাদের পক্ষে চলে গেলো।
কারণ ওয়াজাহাতীদের মিথ্যা তথ্যানুযায়ী আমরা তাবলীগী নয়, ডাকাত!

সেই মাওলানা মুস্তাকুন্নবী সাহেব বার বার ওয়াজে বলছেন, তুরাগ নদীতে নাকি শত শত ওলামা তলাবার লাশ ভাসছে!
ছিঃ লজ্জা রাখার জায়গা নেই।

বললে থুথু নিজের দিকেই আসে, কি বলি, আমাদের কাকরাইলের শুরা মাওলানা ওমর ফারুক সাহেব কয়দিন আগে বলেছেন, সেদিন নাকি ৫,৫০০ জন টঙ্গীর মাঠে নিহত হয়েছে!!!

অথচ এ পর্যন্ত তাদের একজন ব্যক্তির মৃত্যুর সঠিক তথ্যও দিতে পারেননি।

মাঝে মাঝে মনে হয় কি জানেন? ঘটনা কি? যাদেরকে কত্ত বড় বিজ্ঞ মনে করতাম, এরাই আজকে বিশাল বড় অজ্ঞ! তাহলে কেয়ামত কি অতি সন্নিকটে?

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!