সোমবার, ১২ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২৪ অপরাহ্ন

আল্লাহর রাস্তায় ঈদ করছে হাজারো মাদরাসার ছাত্র

ফাইল ছবি:

সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ , তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম: ঈদুল আজহার দিন সাধারণত এদেশের কওমী মাদরাসার ছাত্ররা বাড়িবাড়ি হেটে পশুর চামড়া কালেকশন করে থাকেন। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানাগেছে জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড এর অধিনে পরিচালিত ৫শতাধিক কওমী মাদরাসা গুলো চামড়া কালেকশনে ছাত্রদের না পাঠিয়ে আল্লাহর রাস্তায় দ্বীনের মেহনতের জন্য পাঠিয়ে দিয়েছে। এসব মাদরাসা মনে করে এভাবে চমড়া কালেকশন করা আহলে এলেমদের জন্য অপমানজনক ও আকাবির আসলাফের নীতি আর্দশ বিরোধী। তাই ঈদের ছুটিতে এসব মাদরাসার কয়েক হাজার মাদরাসার ছাত্র ৩দিন /৭দিনের জন্য আল্লাহর রাস্তায় সময় লাগাচ্ছে। তারা সাথে করে মহল্লার সাধারণ সাথীদেরও নিয়েছেন।

এবিষয়ে কথা হয়, জাতীয় কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড এর অন্যতম নীতিনির্ধারক, দারুল উলুম উত্তরার প্রতিষ্ঠাতা, ইত্তেহাদুল উম্মাহ ফাউন্ডশনের চেয়ারম্যান ও মাসিক আত তাহকীকের নির্বাহী সম্পাদক মুফতী মু’আজ বিন নূরের সাথে। তিনি বলেন, আমাদের মাদরাসার বড় বড় সকল ছাত্র তিন দিনের জন্য আল্লাহর রাস্তায় সময় লাগিয়েছে ঈদুল আজহার বন্ধের সময়। আমরা আমাদের সকল মাদরাসাকে এই নির্দেশ দিয়েছি। ছাত্ররা সারা বছর এইভাবে বিভিন্ন মওকায় মোবাল্লিগ উস্তাদের সোহবতে সময় দিয়ে দায়ী হিসাবে বেড়ে উঠবে।

এবিষয় মারজাুল উলুম আশ শরীয়্যাহ সাভারের মহা পরিচালক, মাসিক আত তাহকীকের প্রধান সম্পাদক মাওলানা জিয়া বিন কাসেম বলেন, আমার মাদরাসা থেকে তিন শতাধিক ছাত্র ও শিক্ষক এই ঈদের ছুটিতে আল্লাহর রাস্তায় সময় দিয়েছেন। এখনো কক্সবাজার শহরে ছাত্রদের একটি বড় জামাত কাজ করছে। এই জামাতের সাথে মাদরাসার নাজিমে তালিমাত সুলেখক মাওলানা নিজামুদ্দিন মিসবাহ ও প্রধান মুফতি নুরুল ইসলাম সিরাজী সাহেব আছেন। এবাবে প্রত্যেক জামাতেই ছাত্রদের শিক্ষকরা নিগরানী করছেন দাওয়াতের লাইনেও। মাদরাসা থেকে প্রতিমাসে ৭/৮টি বড় জামাত ২৪ঘন্টার জন্য বের হয়। ছাত্ররা ঈদে চামড়া কালেকশন করপ নিজেদের জাতির সামনে এইভাবে হেয় না করে আমরা চাই আলেম হয়ে তারা উম্মতের পিপাসা নিবারন করুক আর মাথা উঁচু করে দাড়াক।

এবিষয়ে গতকাল ঢাকা থেকে আসা একটি মূলধারার কওমী মাদরাসার ছাত্র জামাতের সাথে কথা হয়, ছেলেরা আল্লাহর রাস্তায় ঈদ করতে পেরে সিমাহীন খুশি। তারা আলেম হওয়ার পাশাপাশি মুবাল্লীগ হয়ে, উম্মাহর নব সৃষ্ট আমীর বিহীন শুরাইজম ফেতনার মোকাবেলায় উম্মতকে সহী দ্বীনের উপর তোলার জন্য নিজেদের এলেম, আমল ও দাওয়াতের প্রশিক্ষনের মাধ্যমে গড়ে তুলতে চায়।

ইউসুফ হাবিব নামক এক ছাত্র জানায়, তার বাবা মা তাবলীগের পুরানো সাথী। সে আগেই তিন চিল্লা দিয়েছে। এবার মায়ের প্রেরণায়ই সে আল্লাহর রাস্তায় এসেছে।তার মায়ের স্বপ্ন বিশ্ব আমীর হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধালভী হাফিজাল্লাহুর মতো বিশ্ব বরেণ্য তাকওয়া ওয়ালা আলেম ও দরদী দায়ী যেন হতে পারে। সে নিজেকে সেভাবেই গড়ে তুলছে।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!