মঙ্গলবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন

মিঃ ওলীপুরী! তাহলে কি দিল্লীর জুহাইরুল হাসানের নামাজ হয়?

মিঃ ওলীপুরী! তাহলে কি দিল্লীর জুহাইরুল হাসানের নামাজ হয়?

আবু ইলিয়াস: তাবলীগ নিউজ বিডি.কম

বর্তমানে সারাবিশ্বে ইমারত ও মারকাজিয়াত বিরোধী যে ক’জন আলমী শূরার চিহ্নিত (পেইড) এজেন্ট আছে তাদের মধ্যে হবিগঞ্জের মাওলানা নূরুল ইসলাম ওলীপুরী অন্যতম। জনগণকে খাওয়ারিজদের ত্বরিকায় উত্তেজিত করে উম্মাহর ভিতরে ভয়াবহ ফাটল তৈরিতে এই মিথ্যাবাদি লোকটির জুড়ি নেই। ইসলামের কয়েক শতাব্দীর ইতিহাস পর্যালোচনা করলে এমন রগচটা মিথ্যুক আরেকজন আলেমের নাম খোঁজে পাওয়া দুস্কর।

সম্প্রতি সময়ে তার জঘন্য ফতোয়া ইতাআতী (সাদ কান্ধালভীর অনুসারী) ইমামদের পেছনে মুসলমানদের নামাজ হয় না।

তাবলীগের বিশ্ব আমীরের বিরুদ্ধে নানান মিথ্যা বানোয়াট অপবাদ লাগিয়ে এর বিরুদ্ধে কুরআন হাদীসের মনগড়া দলীল পেশ করতে লোকটির জুড়ি নেই। ফলে সাধারণ জনগণ এখানেই সবচেয়ে বেশি প্রতারিত হন। সে তাবলীগের বর্তমান বিশ্ব আমীরকে প্রথমে আল্লাহ বিরোধী, তারপর নবী-রাসুল বিরোধী, তারপর সাহাবা বিরোধী এবং সবশেষে কুরআন-হাদীস বিরোধী প্রমাণ করার জন্য জঘন্য জঘন্য অপবাদ লাগিয়ে চলেছেন। যার শতকারা ৯৯টি কথাই মিথ্যা, বানোয়াট ও কল্পিত অপবাদ।

হয়তো ওলীপুরীর ভক্তরা এই কথাগুলো শুনে মর্মাহত হবেন। কিন্তু তিনি মিথ্যা বলে “উলামায়ে ছু” এর যে নিকৃষ্টতর উদাহরণ হচ্ছেন ইতিহাস কিন্তু তাকে ক্ষমা করবে না। যারা অন্ধভাবে তার এসব কথা শুনছেন ও দেশের বিভিন্ন কওমী মাদরাসায় তাকে নিচ্ছেন সবাই মিথ্যা বলার একই অপরাধে অপরাধী। কেয়ামতের দিন এই মিথ্যাচার করে ফেৎনা সৃষ্টির জন্য আপনাদের আল্লাহর আদালতে জিজ্ঞাসিত হতে হবে।

কারো সমালোচনা করার অধিকার আপনার আছে। কিন্তু কারো নামে তোহমত বা অপবাদ লাগানো বা একের পর এক মিথ্যা বলার এবং কারো বয়ানকে নিজের মতো করে অপব্যাখ্যা দিয়ে উম্মতকে বিভ্রান্ত করার অধিকার আপনার নাই।

মিঃ অলিপুরী গতকাল হবিগঞ্জের প্রচীনতম শিক্ষা প্রতিষ্টান বাহুবল কাসিমূল উলুম মাদরাসার বার্ষিক মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্য অসংখ্য মিথ্যা অপবাদ লাগিয়ে বয়ানের পর বলেন,! “ইতাআতীদের পেছনে যারা নামাজ পড়বে তাদের নামাজ হবে না।

এখন মিঃ ওলীপুরীর কাছে একটি পশ্ন?

তাবলীগ করতে হলে আপনার কথা মত যারা সাদ সাহেবকে মানেন তাদের পেছনে নামাজ হবে না। নামাজ হতে গেলে আমীরকে বাদ দিয়ে আমীর বিহীন আলমী শূরাকে অনুসরণ করে তাবলীগ করতে হবে।

মিঃ ওলীপুরী আপনি কী জানেন? এই আলমী শূরার অন্যতম কান্ডারী মাওলানা জুহাইরুল হাসান সাহেব। যিনি আলমী শূরার দিল্লীর নেরুল মারকাজে জুম্মার নামাজ পড়ান। গত টঙ্গী ইজতেমায়ও নামাজ পড়িয়েছেন। বিভিন্ন দেশের শূরাই জোড় ইজতেমায় গেলে তিনি নামাজ পড়ান?

আমাদের প্রশ্ন তার পেছনে কী আপনাদের নামাজ হয়?

হলে কোন ফতোয়ার আলোকে? কেননা মাওলানা জুহাইরুল হাসান প্রতিদিন ৫ওয়াক্ত এখন নিজামুদ্দীন মারকাজে আমীরুল মুমিনি ফিত তাবলীগ হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধালভী দামাত বারাকাতুহুম এর পেছনে নামাজ পড়ে থাকেন।

নাকি জুহাইরুল হাসানকেই চিনেন না।তবে ইসরাইলে কে আসে যায় সেখবর আপনি রাখলেও দিল্লীর খবর আপনার অজানা। তাবলীগের ইমারত বিরোধী ফেতনায় আপনি কেবল ” আলমী শূরার” টাকায় কেনেলা একজন প্রেইড এজেন্ট ছাড়া আর কিছুই নন। ইতিহাস কিন্তু আগামী দিনে আপনার নোংড়া, মিথ্যা বয়ানগুলোকে এভাবেই বিশ্লেষণ করবে।

এই তথ্যটি শূনে আপনি কী আঁতকে উঠলেন? যে বেফাক সাদ সাহেবকে অনুসরনেব জন্য তাবলীগের মূলধারা মাদরাসাগুলোর পরিক্ষা নিচ্ছে না। আপনাদের আলমী শূরার অন্যতম নীতিনির্ধারক জুহাইর সাহেব কিন্তু ঠিকই সাদ সাহেবের মাদরাসার শিক্ষকও বটে।

আপনাদের মুরুব্বী দিল্লীর জুহাইর সাহেবের সাদ সাহেবের পেছনে প্রতিদিন ৫ওয়াক্ত নামাজ পড়লে তার নামাজ নষ্ট হয় না। তার নামাজ বাতিলও হয় না, কিন্তু যারা সাদ সাহেবকে অনুসরণ করেন তাদের পেছনে নামাজ হয় না! মিঃ ওলীপুরী আজীব আপনার ফতোয়াবাজি!! আজীব আপনাদের ফেতনাবাজি!!! কাদের স্বার্থে কোন এজেন্ডা নিয়ে মাঠে নেমেছেন জানতে বড় ইচ্ছে করে?

জুহাইর সাহেবের পেছনে আপনাদের নামাজও আবার হয় বটে! তিনি সাদ সাহেবের সাথে একই ছাত্রদের একই মসনদে বসে দরস দিতে পারেন। আর বাংলাদেশে আলাদা মাদরাসায় সাদ সাহেবের অনুসারীরা আপনাদের বোর্ডে থাকতে পারেন না। আজীব তামাশা বটে। দ্বীনের নামে আর কত ভাওতাবাজী করবেন মি ওলীপুরী ও বাংলার ওজাহাতিগন।

আল্লাহ আপনাদের হেদায়ত দান করুন। আমীন

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!