সোমবার, ০২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:১৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সোমালয়িার ছবি দিয়ে হযরতজীর ফাঁসি চওয়া হযেছিল বাংলাদেশে

সোমালয়িার ছবি দিয়ে হযরতজীর ফাঁসি চওয়া হযেছিল বাংলাদেশে

ষ্টাফ রিপোর্টার | গত বছরের এই দিন টঙ্গীর  ময়দানে তাবলীগের সাথীদের সাথে হেফাজত ও মাদরাসার ছাত্রদের মাঝে সংঘর্ষে একেরপর এক মিথ্যাচার আর গুজব ছড়িয়ে নির্বাচনের আগে দেশকে অস্থিতিশীল করে তোলার চেষ্টা করা হয়েছিল ।

গত ডিসেম্বরে  হেফাজতি আলেমরা দেশের নানান স্থানে ব্যানার পেষ্টোন ও  পোষ্টারিং এর ছবিতে তাবলীগের সাথীদের হাতে মাদরাসার ছাত্র নির্যাতনের ছবি হিসাবে হেফাজতের ৫মের ছাত্রদের ছবি, আরকানে রোহিঙ্গা  মুসলমান ও আফ্রিকার মুসলিম শিশু নির্যাতনের ছবি ব্যাবহার করে সরলমনা জনগনকে উসকে দিয়েছিল ।

 

অনলাইনে গুজব  ছড়ানোর পাশাপাশি এতদিন চলছিল অফলাইনে  মিছিল মিটিংএ গুজবের কাজ। এটিকে ওজাহাতি আলেমরা এবার পূর্ণতা দিলেন পোষ্টারিং করে। দুই হাজার ১৫সালে সুমালিয়ায় মুসলিম নিধনের ভাইরাল হওয়া ছবিকে টঙ্গীর ময়দানের ছবি হিসাবে ছেপে পোষ্টার করা হয়েছিল ।

 

আর একই পোষ্টারে নির্যাতনকারী হিসাবে বিশ্বআমীর হযরতজী সাদ কান্ধলভী দা.বা. বরণ্য আলেমদ্বীন, শোলাকিয়া ঈদগাহের গ্র্যান্ড ইমাম, জাতীয় দ্বীনী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান  আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ ও বিশ্ব বিখ্যাত মুবাল্লীগ তাবলীগের আহলে শুরা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, লেখক গবেষক সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহসহ  নবীণ প্রবীণ আলেমের ফাঁসি  ছেয়েছেন।

টঙ্গীর ময়দানে তাবলীগের সাথে হেফাজতপন্থীদের সংঘর্ষের পর হেফাজতীদের মূলপুঁজি  ছিল গুজব। একাধিক ছাত্রের মৃত্যুর গুজবের পাশাপাশি  ৫মে শাপলা চত্তরের ছবি ও বার্মা, আরাকানের মুসলমানদের নির্যাতনের ছবিকে টঙ্গীর ময়দানের হামলার ছবি বলে প্রচার করা হয়েছিল।

 

অনলাইনের পাশাপাশি সারাদেশের সভা সমাবেশ, মিছিলে ব্যানার ও ফেস্টুনে হেফাজত নেতারা ৫মে ও রোহিঙ্গা নির্যাতনের এসব ভূয়া ছবিকে  প্রচার  করে দেশকে সাম্প্রদায়িক সংঘর্ঘের দিকে উষ্কে দিচ্ছে।

উপরের ছবিটা নিজেই কথা বলবে ।  যারা নিজেদেরকে “আলেম পক্ষ”  বলে দাবী করেন তারা কতদূর জালিয়াতির আশ্রয় নিতে পারেন তার ছোট্ট একটা নমুনা এই ছবিটি । এখানে  Muhammadullah Faruk  ভাইয়ের পোস্টটা দেওয়া হলো, উনি শুরাপন্থীদের  প্রপাগান্ডা মেশিন ( Propaganda  machine)  এর অন্যতম নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিত্ব । কিন্তু একই ছবি নিয়ে একই ধরণের জালিয়াতি পোস্ট আরও অনেকে দিয়েছেন, যার মধ্যে তথাকথিত আলেমও আছেন ।

 

 

৬জুলাই ২০১৫সালে ‘এ্যান্টি নাজ্দ’  (Anti Najd) নামে এক ব্যক্তি আফ্রিকার কোন এক অঞ্চলের এক মুসলিম শিশু নির্যাতনের ছবি আপলোড করেন। সেই ছবিটিই Muhammadullah Faruk, Hasan Muhammad Zamil এর মতো আলেম, হেফাজত নেতারা পোষ্ট করে প্রচার করছেন, এটি নাকি টঙ্গীর ময়দানে তাবলীগওয়ালা কতৃক মাদরাসার ছাত্রদের নিযার্তনের ছবি।

 

দলভারী করতে আর কত গুজব ছড়াবেন হেফাযতীরা?

তাদের উদ্ভট  দাবী আর বানোয়াট ছেলেখেলার এই মিথ্যাচার দেখে বিস্মিত আজ গোটা জাতী। অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন, কথিত জমহুরগন আর কত মিথ্যাচার করলে ক্লান্ত ও লজ্জিত হবেন?

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!