মঙ্গলবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৫০ অপরাহ্ন

১লা ডিসেম্বরের খুনীদের আড়াল করতে আবারো রাজধানীতে ভুয়া পোষ্টারিং

১লা ডিসেম্বরের খুনীদের আড়াল করতে আবারো রাজধানীতে ভুয়া পোষ্টারিং

ষ্টাফ রিপোর্টার, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম:

আবারো রাজধানীতে কোটি কোটি টাকার ভুয়া পোষ্টারিং করে ১লা ডিসেম্বরের খুনীদের আড়াল করার চেষ্টা ও ধর্মীয় সংঘাত তৈরি করে ফের দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে । টঙ্গীর ময়দানে হেফাজত সমর্থকদের হাতে দু’জন মূলধারার তাবলীগের সাথী খুন হয়। সেই খুনীদের আড়াল করতে মূলধারার তাবলীগের সাথী ও কাকরাইলের আহলে শূরা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, মাওলানা সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ সহ কয়েকজনের নামে মিথ্যা ও ভুয়া এই পোষ্টার রাজধানীতে লাগানো হয়েছে।

যে মুহুর্তে সরকারে আন্তরিকতা ও মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের একান্ত প্রচেষ্টায় তাবলীগের উভয়পক্ষের আলাদা আলাদা শান্তিপূর্ন জোড় ও ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে, সেই মুহুর্তে এমন ভূয়া পোষ্টারিং করে আবারো পরিস্থিতিকে উত্তপ্ত করে তোলার ও বাংলাদেশে অরাজকতা সৃষ্টির চক্রান্ত করছে একটি কুচক্রী মহল।

উল্লেখ যে গত পহেলা ডিসেম্বর ২০১৮ পাঁচ দিনের জোড় বানচাল করতে গিয়ে মাদরাসার ছাত্রদের ব্যবহার, বাঁধা প্রদান ও মাঠ দখলের ঘৃণিত রাজনীতি এবং জোড়ে আসা তাবলীগের সাথীদেও উপর উগ্র ও নৃশংস হামলার পরপরই ‘আলমী শূরা ’নামক ফেসবুক পেইজ থেকে ১১জন মাদরাসা ছাত্র নিহত হওয়ার খবর মূহুর্তে সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া হয়।

তুরাগ নদীতে শতশত লাশ ভেসে যাওয়ার খবর ছড়িয়ে দিয়ে সারা দেশে মিছিল মিটিং করে অপপ্রচার চালানো হয়।

সোমালীয়া ,আফ্রিকা ,বার্মা ,আরকান/রোহিঙ্গা মুসলমান নির্যাতন ও ২০১৩ সালের ৫ই মে শাপলা চত্বরের নানান ছবি দিয়ে রংবেরঙ্গের কোটি কোটি টাকার পোষ্টার ছাপিয়ে সারা দেশে টাঙ্গিয়ে নিরপরাদ আলেম ও মুরুব্বিদের ফাঁসি চাওয়া হয়।

উল্লেখ গত পহেলা ডিসেম্বর ২০১৮ ‘টঙ্গি ট্রজেডি’এর মাঝে। সে দিন নিজামুদ্দীন অনুসারী তাবলীগের সাথীদের পূর্বনির্ধারীত জোড় ছিল। কিন্তু কয়েকদিন আগথেকে মাঠের কাজের নামে মাদারাসার অবুঝ ছাত্রদের ভুল বুঝিয়ে মাঠ দখলের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এনিয়ে তাবলীগের মুলধারার সাথীরা দুদিন আগে তারিখে সাংবাদিক সম্মেলন করে (শিশু-কিশোরদের ব্যবহার করে ইজতেমার মাঠ দখলের অপরাজনীতি যা আন্তর্জাতিক শিশু আইনে মারাত্মক অপরাধ) তাদের কে মাঠ ছাড়ার অনুরোধের পাশাপাশি সরকারের হস্তক্ষেপও কামনা করেন। আমরা যুগযুগধরে দেখে আসছি কেবল শক্রবার বা বন্ধের দিন মাদরাসার কিছু ছাত্র ময়দানে এসে কাজ করে। কিন্তু সে দিন সপ্তাকাল ব্যাপী ছাত্রদেরকে সশস্ত্র অবস্থায় বিভিন্ন গেটে পাহাড়ায় বসানো হয়। তাবলীগের সাথীরা তাদের নির্ধারিত তারিখের জোড় করতে ফজরের পরে ময়দানে গিয়ে দেখেন সকল গেট তালাবব্ধ ভেতরে দেশী অস্ত্রশস্ত্র সহ পাহাড়া। তখন তাবলীগের সাথীরা রাস্তার পাশে চতুর্দিকে ফুটপাতে বসে ফাজায়েলে আমালের তালিম শুরু করেন।

  • দীর্ঘ ৫ঘন্টা আমলে কাটানো অবস্থায় প্রশাসনের কাছে ময়দান খুলে দেয়ার দাবী জানাতে থাকেন। এঅবস্থায় ময়দানের চারপাশে থাকা ৩/৪ তলা উচু টয়লেটের উপর থেকে মাদরাসার ছাত্ররা বাবা, চাচার বয়সী মুরুব্বীদের উপর বৃষ্টির মত ইটপাটকেল মারতে থাকে।এতে করে লক্ষাধিক ভরা মজমায় খোলা আকাশের নীচে শত শত সাথী আহত হতে থাকে।এঅবস্থায় তাদের আক্রমনে সেখানে শাহাদাত বরণ করেন মুন্সিগঞ্জের তাবলীগের জিম্মাদার সাথী ভাই মো: ঈসমাইল মন্ডল রহ.। সাথীদের রক্তাত্ব আহত ও নিহত অবস্থায়দেখে যুবকসাথীরা সহ্য করতে পারেনি তখন খালি হাতেই লোহার গেট ধাক্কাদিয়ে ভেঙ্গে প্রবেশ করলে দ্বীমুখী সংর্ঘষ বাধে। ছাত্রদের আঘাতে হাজার হাজার সাথী জখম হন সাথে কিছু মাদরাসার ছাত্রও। সামছুদ্দিন বেলাল নামে নোয়াখালীর মুলধারার আরেক মুবাল্লিগ ভাই ছাত্রদের আক্রমনে মারাত্মক আহত হয়ে হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। অপরদিকে ১১জন ছাত্র নিহত হওয়ার খবর ও শতশত ছাত্রের লাশ তুরাগ দিয়ে ভেসে যাওয়ার গুজব ছড়িয়ে দিয়ে কথিত আলেমরা আন্দোলন ও পোষ্টারিং করলেও আজ পর্যন্ত একজন ছাত্রও নিহত হওয়ার প্রমান দিতে পারেননি।

চিন্তাশীল আলেম সমাজ মনে করছেন, দেশকে পাকিস্তানি কায়দায় ধর্মীয় সংঘাত তৈরির লক্ষ্যে আবারো উগ্রবাদীদের এটি একটি পরিকল্পিত মিশন। যার পুরোটাই মিথ্যার উপর এবং পহেলা ডিসেম্বরের খুনিদের আড়াল করার রাজনীতি। আবারে ভুয়া ও মিথ্যার পথে হাটছেন ওজাহাতি নেতারা। গতকাল রাজধানীর মোহাম্মদপুর সহ নগরীর নানান স্থানে একই কায়দায় নতুন করে ভুয়া পোষ্টারি করা হয়।

অনেকেই মনে করছেন, কারী জুবায়ের, মামুন, মাহফুজদের নামে মানহানী মামলা করলেই এসবের থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসবে। মূলধারার আলেম ও তাবলীগের সাথীরা এব্যাপারে প্রসাশনের দৃষ্টি কামনা করছেন।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2019 Tablignewsbd.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!