বুধবার, ০৩ Jun ২০২০, ০৯:১১ পূর্বাহ্ন

হাজী সাহেবের জানাযায় কেন দিল্লীর বিদ্রোহীরা যান নি?

হাজী সাহেবের জানাযায় কেন দিল্লীর বিদ্রোহীরা যান নি?

তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম | যখন হাজী সাহেব রহমাতুল্লহি আলাইহির কবরের জারি থাকা খুশবু রায়বেন্ড মারকাজের মুকিমীনদের জন্য চ্যালেঞ্জ তৈরি করছে, তখন মাল ও ক্ষমতা লোভী চক্র বিশ্বজুড়ে দুর্গন্ধের সয়লাব বইয়ে দিচ্ছে।

সবার মনেই এক বিরাট বিস্ময়বোধক চিহ্ন নিজামুদ্দিন থেকে দলছুট বিদ্রোহীরা হযরতদের কেউই ভিসা থাকা সত্ত্বেও কেন হাজী সাহেব রহঃ এর জানাজা ও দাফন কাফনে অংশ নিলেন না? হতে পারে যে সময় হয়ত খুব কম ছিল, কিন্তু তিনদিনের মধ্যেও কেউ তাজিয়াতের (শোক পরবর্তী সান্ত্বনা) জন্য কেন আসলেন না? অনেকের মধ্যে এটাও প্রশ্ন যে, ডাক্তার আগেই ঘোষণা করেছিলেন যে হাজী সাহেবের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন, তবুও ইজতেমার ২য় ধাপ শেষে দুই একজন কেনই বা থেকে গেলেন না? অনেকেই জানাচ্ছেন যে আসলে বুধবারই হাজী সাহেব চির বিদায় নিয়ে গেছেন, কিন্তু কৃত্রিম ভাবে তাঁর শ্বাস প্রশ্বাস চালু রাখা হয়েছিল, যা রোববার খোলা হয়।

এই মাওলানা আহমাদ লাট সাহেব, মাওলানা ইবরাহীম দেউলা সাহেবরাই হাজী সাহেবের নাম ব্যবহার করে রায়বেন্ডের শরণার্থী হিসাবে আশ্রয় গ্রহণ করেছিলেন, অথচ তাজিয়াতের জন্য আসা প্রয়োজনও বোধ করলেন না! ইসলামের শিয়ারাও (খারেজী) হাজী সাহেব রহঃ এর জন্য অধিক সম্মান পোষণ করে যতটুকু আমাদের তাবলীগের শিয়া তথা দলছুটরা করত, এটা এখন উন্মোচিত হয়ে গেছে যে ওরা আসলে নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য হাজী সাহেবের (রহঃ) নাম ব্যবহার করত। আসলে তাদের মধ্যে কি বিশ্বস্ততা থাকবে যখন যখন তাঁরা নিজামুদ্দিনের প্রতিই বিশ্বস্ত নন? মাওলানা ইলিয়াস রহমাতুল্লাহি আলাইহির পরিবারের কথা তো বাদই দিলাম!

এই দুর্ভাগা হযরতদের (মাওলানা আহমাদ লাট, মাওলানা ইবরাহীম দেউলা, মাওলানা ফারুক চাপ্পাল) হাজী সাহেব রহঃ এর উপর সর্বশেষ অসদাচরণের নমুনা দেখা গেছে যখন তাঁরা এই আস্পর্ধা দেখান যে, তাঁরা হাজী সাহেব রহঃ কে বলেন যে, ডঃ নাদীম, ডঃ সালীম এদের রায়বেন্ডের শূরাদের অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এর উত্তরে হাজী সাহেব সাফ জানিয়ে দেন, “আপনাদের কুরবানীর প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে আমরা আপনাদের রায়বেন্ডে বয়ানের জন্য ডাকি। কিন্তু আমাদের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে আপনাদের মাথা গলানোর দরকার নেই।”

এমনকি জানাজা নিজেই অনেকের চোখ খুলে দিয়েছে, যখন একটি ভিডিও ক্লিপে দেখা গেছে মৌলভী ফাহিম মিম্বর থেকে মাওলানা তারিক জামিল সাহেবকে বক্তব্যরত অবস্থায়, বক্তব্য শেষ করার সুযোগ না দিয়েই দৃষ্টিকটু ভাবে সরিয়ে দেয় এবং এক টুকরা কাগজ বের করে। এমন কি মৌলভী বাটলাও (১৯৯৮ সালের সি আই এ ফাইল স্ক্যান্ড্যালের সাথে জড়িত) বিষয়টি জানতেন না। তাঁকেও উৎসুক ভাবে ঐ কাগজের টুকরার দিকে উঁকি মারতে দেখা গেছে। মৌলভী ফাহিম নিজে পরবর্তী দায়িত্বশীল কে হবেন ঘোষণা না করায় মৌলভী বাটলা সুযোগ গ্রহণ করেন এবং পরিষ্কার ভাষায় ঘোষণা করেন পরবর্তী দায়িত্বশীল হবেন মাওলানা নজরুর রহমান। তিনি তখন হাজী সাহেব রহঃ এর জানাজার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এভাবে মুলতঃ হাজী সাহেব রহঃ এর জানাজার সাথে সাথে তাঁদের বহুল আলোচিত “রোটেশন পদ্ধতির ফয়সাল” তত্ত্বের জানাজাও হয়ে যায়।

পরবর্তী দিন নিজামুদ্দিনের জামাতের আগমনের সংবাদে রায়বেন্ডের মধ্যে এক আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে।  মৌলভী ফাহিম তাঁদের প্রবেশ রোধের জন্য বাড়তি পাহারা বসায়। (যদিও তারা পরবর্তীতে শিয়াদেরও স্বাগত জানিয়েছে, মধ্যস্থতাকারী… … জী, ঠিকই ধরেছেন যথারীতি তারিক জামিল সাহেব। ) তবে মেওয়াতীরা এগিয়ে আসেন। তারা শুধু নিজামুদ্দিনের জামাত ওয়াগা বর্ডার থেকেই স্বাগত জানান নি, বরং সমস্ত গেট পার হয়ে রায়বেন্ডে নিয়ে আসেন। এবং পরিষ্কার ভাষায় জানান দেন  আহলে ইলিয়াস এবং নিজামুদ্দিনের বিরুদ্ধে কোন ধরণের অর্থহীন আচরণ সহ্য করা হবে না।

কর্নেল সাহেব থেকে একটি বিস্তারিত অডিও পাঠানো হবে যেখানে সর্বসাধারণের সামনে সবকিছু খোলাসা করা হবে।

 

তাই আমরা আশা করছি রায়বেন্ডে খুব শীঘ্রই এক পরিছন্নতা অভিযান শুরু হবে এবং নিজামুদ্দিনের সাথে আজ হোক বা দুই একদিন দেরি হোক এক মজবুত ও অন্তরঙ্গ বন্ধন শুরু হবে। ইনশাআল্লাহ

আল্লাহ আমাদেরর জিম্মাদারদের হিম্মত যোগান, ফিত্তিনদের হিদায়েত ফরমান এবং অসহায় প্রত্যক্ষদর্শীদের আরো কিছুদিন সবরের তৌফিক দান করেন।

 

আমীন

টীম নিজামুদ্দিন, রায়বেন্ড

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com
error: Content is protected !!