শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সিরাত থেকে ।। কা’বার চাবি দেওবন্দের বিরোদ্ধে আবারো মাওলানা আব্দুল মালেকের ফতোয়াবাজির ধৃষ্টতা:শতাধিক আলেমের নিন্দা ও প্রতিবাদ একান্ত সাক্ষাৎকারে সাইয়্যেদ আরশাদ মাদানী :উলামায়ে হিন্দ নিজামুদ্দীনের পাশে ছিলেন, আছেন, থাকবেন তাবলীগের হবিগঞ্জ জেলা আমীর হলেন বিশিষ্ট মোহাদ্দিস মাওলানা আব্দুল হক দা.বা. হযরতজীর চারপাশের মানুষগুলো (পর্ব-১) সকল তবলিগি মামলা আট সপ্তাহে শেষের নির্দেশ ভারত সুপ্রিম কোর্টের!  যে ৭ শ্রেণীর মানুষ আরশের ছায়া পাবে মূলধারায় ফিরে আসা এক আলে‌মের জবানবন্দি -০১ এক আবেগী মাওলানা ও হযরতজী ইলিয়াস রহঃ ঘটনা আলী মিয়া নদভীর আম্মার বয়ান: ‘তোমরা দুআর প্রতি যত্নবান হও
পাকিস্তানে দুই শুরাপন্থী দন্দের শেষ কোথায়? রায়বেন্ডে চলছে চরম অস্থিরতা

পাকিস্তানে দুই শুরাপন্থী দন্দের শেষ কোথায়? রায়বেন্ডে চলছে চরম অস্থিরতা

আন্তর্জাতিক ডেক্স, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম | পাকিস্তানের কথিত শুরাপন্থীদের মাঝে শুরু হয়েছে চরম গন্ডগোল। হাজী আব্দুল ওয়াহাব সাহেব রহ এর মৃত্যুর সাথে সাথে রায়ভেন্ড মার্কাজ ত্রিমূখি লড়াই চলছে।

পাঠান, বেলুস্থানী, সীমান্ত প্রদেশের তাবলীগের সাথী ও দেশের জমহুর উলামায়ে কেরাম শুরু থেকেই আমীর ছাড়া শুরাই প্রদ্ধতির বিরোধীতা করে আাসছিলেন।

এরই মাঝে হাজী সাহেবের খাছ খাদেম আলমী শুরার নেপথ্যের নায়ক ফাহিম ও আলমী শুরার অপর সদস্য মাওলানা তারিখ জামিলের মাঝে ক্রমশ দন্দ সংঘাত প্রখট হয়ে উঠছে।

ইতোমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে মাওলানা তারিক জামিলের রায়বেন্ডের পরবর্তী আমীর ঘোষণা করেছেন তার ভক্তরা।

অমর দাঈ এবং এই কাজের সকলের রুহানী অভিভাবক হযরত হাজী সাহেব রহমাতুল্লাহি আলাইহির ইন্তেকালে রায়বেন্ড মারকাজে অস্থিরতা এবং বিবাদ যদিও মোটেই অবাক করার মতো কিছুই নয়। বরং এমনটাই আশঙ্কা করা হচ্ছিল।

সর্বশেষ তাই ঘটল সেখানে? রায়বেন্ডের আমীর কে হলেন? আলমী শূরা আন্দোলনের নেতৃবৃন্দই বা কোথায় গা ঢাকা দিলেন?

একদিকে আমরা মাওলানা তারিক জামীল সাহেবকে বলতে শুনেছি পরবর্তী আমীর হযরত মাওলানা নাজরুর রহমান সাহেব (২ : ৩৬ অডিওটি শুনুন) অন্যদিকে তরুণ মৌলভী ফাহিম তার শূরাইজমের গপ্পোই শুনাচ্ছেন (৫ : ৩৬ অডিওটি শুনুন)। কিন্তু সাথে সাথেই আবার রায়বেন্ড মারকাজের বিবাদমান পক্ষ সমূহের মধ্যে অন্য আরেকটি পক্ষ ১ নম্বর মাইক দখল করে ইমারাতের ঘোষণা দেয়। অর্থাৎ মাওলানা নজরুর রহমান সাহেবই হলেন রায়বেন্ডের আমীর।

নিঃসন্দেহে এটা অসংখ্য প্রশ্ন এবং বিতর্কের সুচনা করেছে। প্রথমতঃ আলমী শূরা আন্দোলন কি কখনোই তাঁদের মূল এজেন্ডা ছিল? যদি তাই হত তাহলে একজন ফয়সাল তথা সিদ্ধান্তদাতা (বলা চলে আমীরের) ঘোষণা দেয়ার কি দরকার ছিল? কথিত আলমী শূরা তো ইতিমধ্যে বিদ্যমান আছেই।

দ্বিতীয়তঃ একক ফয়সালের এই ঘোষণা তাঁদের প্রথম যে ঘোষণা ছিল অর্থাৎ মেহনত একটি আলমী শূরার মাতাহাতে ও পরিচালনায় চলবে, তার সাথে সাংঘর্ষিক।

এখন এটা প্রমানিত যে আলমী শূরার পুরা ব্যাপারটাই ছিল একবিংশ শতাব্দীতে মুহাম্মাদ সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উম্মতের জন্য এক বিরাট কলঙ্ক, প্রতারণা, বোগাস এবং ফাউল একটা জিনিস।

সর্বশেষ, হযরত হাজী সাহেব রহমাতুল্লাহি আলাইহির ইন্তেকালের পর আলমী শূরার হর্তাকর্তাগণ কোথায় গা ঢাকা দিলেন?

বরং আলমী আমীর হযরতজী মাওলানা সাদ সাহেব দামাত বারকাতুহুমই কৃতিত্ব ও অভিনন্দন পাওয়ার যোগ্য যে তিনি কাল বিলম্ব না করে নিজামুদ্দিন থেকে হাজী সাহেবের জানাজা ও রায়বেন্ডের মুকিমীনদের সমবেদনা জানানর জন্য জামাত পাঠিয়েছেন, হযরত হাজী সাহেব রহমাতুল্লাহি আলাইহির দারাজাত বুলন্দির জন্য বিশেষ দুআ করেছেন এবং সমগ্র উম্মতকে হযরত হাজী সাহেব রহমাতুল্লাহি আলাইহির নকশা কদম অনুসরণের বিশেষ তাকীদ দিয়েছেন। এটা অবশ্যই হযরতজীর কবুলিয়তের আলামাত যে বিরোধীদের সকল অভিযোগ সহ্য করেও চুপ থাকা এবং উম্মতকে আমালে দাওয়াত ও আমালে নবুওয়াতের দিকে আহবান করতে থাকা।

উম্মতের প্রতি একটা শেষ আরজ, এখনই সময় জাগ্রত হবার এবং উপলব্ধি করার, আলমী শূরা প্রচারণার পিছনের সত্য উদঘাটন করার।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com