শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ১১:১৬ অপরাহ্ন

জমিয়তের মামলায় এক বছর পর খুলল বিশ্ব মারকাজ : আজ তারাবি পড়াবেন বিশ্ব আমীর

জমিয়তের মামলায় এক বছর পর খুলল বিশ্ব মারকাজ : আজ তারাবি পড়াবেন বিশ্ব আমীর

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | দিল্লী: তাবলীগ নিউজ বিডি.কম
দিল্লির নিজামুদ্দিনের তবলিগের বিশ্ব মারকাজ বা সদর দপ্তর করোনার সংক্রমণের জন্য ষড়যন্ত্রমূলকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল ২০২০ সালের মার্চ মাসে। তার প্রায় এক বছর পরে আজ ৪ এপ্রিল ২০২১ খুলে দেওযা হলো। তবলিগ জামাত ও মাওলানা সাদ কান্ধলভীকে নিয়ে মিডিয়া ঘৃণ্য প্রচার করছে, এই অভিযোগ তুলে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছিল জমিয়ত-এ উলামায়ে হিন্দ। সেই মামলার রায়ে মূলত আজ নিজামুদ্দীন মারকাজ খুলল। আদালতের এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ছেন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ এর সভাপতি মাওলানা সৈয়দ আরশাদ মাদানী।

জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ এর সভাপতি মাওলানা সৈয়দ আরশাদ মাদানীর সার্বিক তত্বাবধানে মামলাটি দায়ের করেন জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের আইন বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ গাজিউর আহমদ নুর মাহমুদ আজমী ইন্ডিয়া ইউনিয়ন ও তথ্য মন্ত্রানালয়ের  বিরুদ্ধে এই মামলাটি করেছিলেন।

তাবলীগ জামাতের ওয়াল্ড সদর দপ্তর নিজামুদ্দিন মারকাজ ও তাবলীগ জামাতের বিশ্ব আমীর শায়খুল ইসলাম হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধলভীর বিরোদ্ধে লাগাতার লাগামহীন পরিকল্পিত তথ্য সন্ত্রাস ও মানহানিকর মিথ্যা অপপ্রচার করার কারনেই জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ আইনি লড়াইয়ের নেমেছিল।

মামলার আইনজীবি এড এজাজ মাহমুদ মিডিয়াকে বলেন, জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ আজ মামলাটি দাখিল করে গোদি দালাল মিডিয়া ও সরকারী মিথ্যাচারকে চ্যলেঞ্জ করছিল। আমরা আইনি লড়াইয়ে বিজয়ী হয়েছি। এখন মারকাজ খুলতে কোন বাধা নিষেধ নেই।

আজ সকালে তাবলীগ জামাতের বিশ্ব আমীর হযরতজী মাওলানা সাদ কান্ধলভী স্ব পরিবারে সেখানে আসেন।  দীঘ আইনি পক্রিয়ার পর আদালতের র্নিদেশে বিশ্ব আমীরের হাতে দিল্লি প্রসাশন আনুষ্টানিকভাবে সমস্ত চাবি বুঝিয়ে দেয়। গত সাপ্তাহে নিজামুদ্দিন মারকাজের স্থায়ী বাসিন্দাদের মারকাজের আবাসিক অংশে বসবাসের জন্য মাওলানা সাদ কান্দলবীকে বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য দিল্লি সরকারকে দিল্লির আদালত আজ নির্দেশ প্রদান করেন।বিগত ৫০ বছরেরও বেশি সসময় ধরে দিল্লির নিজামুদ্দীন মার্কাজে তাবলিগ জামাতের কার্যক্রম চলে আসছে। তা নিয়ে অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা অযৌক্তিক নিন্দেনীয়  বলেও মন্তব্য করে আদালত।
ভারতের জাতীয় পত্রিকা হিন্দুস্থান টাইমস জানায় নিজামুদ্দিন মারকাজের পক্ষ থেকে আদালতে আবেদন করলে গত শুক্রবার এই আবেদনের উপর আদালতে দীর্ঘ শুনানির পর আদালত আজজ এই রায় প্রদান করেন। আদালত আরো জানায় এই আদেশ পাওয়ার পাঁচ দিনের মধ্যে মারকাজের চাবি মারকাজের প্রধান মাওলানা সাদ সাহেবের কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দেন।
জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ এরদাবী ছিল ,যেখানে অন্য ধর্মস্থানগুলিতে অবাধে যেতে দেওয়া হচ্ছে সেখানে তবলিগি বিশ্ব মারকাজের ক্ষেত্রে এই কড়াকড়ি কেন।
তবে, নিজামুদ্দিন তবলিগি মারকাজের পক্ষ থেকে জানানো হয়, করোনা বিধি মেনে আজ থেকে সবাইকে মারকাজের নিয়মিত আমলের জন্য ভিতরে প্রবেশ করানো হচ্ছে। সামাজিক দূরত্বও বজায় রাখা হবে। এনিয় স্বাস্থ্যবিধ মানার আহবান জানিয়ে গতকাল রাতে মাওলানা সাদ কান্ধলভী একটি অডিও ভয়েজ প্রেরন করেন।

 

জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ এর মামলায় বুধবার দিল্লি হাইকোর্ট দিল্লি সরকারের কাছে জানতে চেয়েছিল তাদের মতামত কি। এ প্রসঙ্গে দিল্লির কেন্দ্রীয় সরকার হাইকোর্টকে জানিয়েছে তাবলীগের বিশ্ব মারকাজ নিজামুদ্দিনের খুলে দিতে এবং তাবলীগী কাজ করতে  আর কোনও আপত্তি নেই।

এ ব্যাপারে দিল্লি সরকারের আইনজীবী রাহুল মেহরা দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি মুক্তা গুপ্তার এজলাশে বলেছেন, বহু বিদেশি তবলিগি যারা নিজামুদ্দিন মার্কাজে অংশ নিয়েছিলেন। তাদের বিরুদ্ধে সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখার অভিযোগ করা হয়েছিল। তাদের কাউকে বেকসুর কিংবা ছেড়ে দেওযা হয়েছে। সব কিছুই ছিল ভিত্তিহীন।

উল্লেখ্য, জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ ও দিল্লির ওয়াকফ বোর্ডের তরফে প্রবীণ আইনজীবী রমেশ গুপ্ত ও আইনজীবী ওয়াজিহ শফিক হাইকোর্টে আর্জি জানিয়েছিলেন মসজিদ, মাদ্রাসা, হস্টেল সহ নিজামুদ্দিনের তবলিগি মার্কাজ চত্বর যেন অবিলম্বে খুলে দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে নিজামুদ্দিন মার্কাজ খুলে দেওয়ার ব্যাপারে যেন দিল্লি সরকার ও দিল্লির পুলিশকে এই মর্মে নির্দেশ দেয়।

জমিয়ত-এ উলামায়ে হিন্দ মামলায় জমিয়তের অভিযোগছিল এক শ্রেণির মিডিয়া তবলিগি জামাতের সদরদপ্তর নিজামুদ্দীন মারকাজ ও প্রধান মাওলানা সাদ কান্ধলভীকে কেন্দ্র করে মিথ্যা সম্প্রদায়কে ঘৃণ্যভাবে দেখানোর চেষ্টা করেছে। তাই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আদলত বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথ আমলে নিয়েছে। এবং সাদ কান্ধলভীর মতো একজন বিশ্ব বরেণ্য ইসলাম প্রচারকের বিরোদ্ধে মিডিয়া ও সরকারে ভিত্তিহীন অপপ্রচারকে দেশর ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছে বলে উল্লেখ করে আদলত্।

উল্লেখ্য, দিল্লির নিজামুদ্দিন মারকাজে তবলিগি জামাতের সম্মেলনের পর তাদের দিকে আঙুল ওঠে যে তারাই নাকি দেশে করোন সংক্রমণের জন্য দায়ী। তবলিগি জামাতকে দায়ী করে এক শ্রেণির মিডিয়া এক সম্প্রদায়কে নিশানা করে বলেও অভিযোগ তোলে জমিয়ত। তা্ই মিডিয়ার এই অপপ্রচার বন্ধ করতে ও ঘৃণ্য প্রচারের জন্য সংশ্লিষ্ট মিডিয়ার বিরুদ্দে ব্যবস্থা নিতে এবং মারকাজ খুলে দিয়ে বিশ্ব আমীরকে ফিরিয়ে আনতে সুপ্রিম কোর্টে জমিয়তে উলামা হিন্দ।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com