রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ১১:৫২ অপরাহ্ন

কাকরাইল মসজিদে হেফাযতপন্থীদের ভয়াবহ লুটতরাজ

কাকরাইল মসজিদে হেফাযতপন্থীদের ভয়াবহ লুটতরাজ

সিনিয়র রিপোর্টার। তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম। রাজধানীতে তাবলিগ জামাতের কাকরাইল মারকাজের দোকান থেকে ৮ লাখ টাকার মালামাল ও নগদ ৬ লাখ টাকা সরিয়ে নিয়েছে ‘হেফাযত’ নিয়ন্ত্রিত পাকিস্তানী শুরাপন্থীরা। এছাড়া মূলধারার শুরা সদস্য সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামের কক্ষের পার্টিশন ভাঙা, মারকাজের রান্নাঘরের ফ্রিজ, মালামাল নিয়ে যাওয়ার অভিযোগও উঠেছে মূলধারা থেকে বিচ্যুতদের বিরুদ্ধে।
কাকরাইল মসজিদের ভেতরের চিত্র
কাকরাইল মসজিদের আভ্যন্তরীণ দোকানের চিত্র

মূলধারা সাথীদের অভিযোগ, কাকরাইল মারকাজের উত্তর পাশের ভবনের নিচ তলার রান্নাঘরের ফ্রিজ ও রান্নার উপকরণ সরিয়ে নিয়েছে হেফাযতপন্থীরা। একই ভবনের দ্বিতীয় তলায় মারকাজের দোকানের মালামালও সরিয়ে নিয়েছে তারা। এমনকি দোকানটির ক্যাশ টাকাও সরিয়ে ফেলেছে কারী যুবায়েরের লুটেরা বাহিনী। অন্যদিকে কাকরাইল মসজিদের দক্ষিণ পাশের ভবনে মূলধারার শুরা সদস্য সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামের রুমের পার্টিশন ভাঙা হয়েছে।

মূলধারার তাবলিগের সাথী মুরসালিন বলেন, ‘গত ২০ বছর ধরে মারকাজের তত্ত্বাবধানে একটি দোকান পরিচালিত হয়ে আসছে। এখানে যারা আসেন তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিক্রি করা হয়। একই সঙ্গে নিচ তলায় তাবলিগে আসা মানুষদের খাওয়ার জন্য একটি জায়গা রয়েছে, এটিও মারকাজের তত্ত্বাবধানে পরিচালনা করা হয়।’

দোতলার দোকানের দায়িত্বে থাকা সাথী মুহাম্মদ সেলিম বলেন, ‘ইতোপূর্বে দুই সপ্তাহ অবস্থান শেষে আমরা যখন কাকরাইল মারকাজ ছেড়ে গিয়েছিলাম, তখন তাদের (হেফাযতপন্থী) সব হিসেব বুঝিয়ে দিয়েছি। তখন আমরা ছয় লাখ টাকা নগদ এবং আরও আট লাখ টাকার মালামাল দোকানে রেখে যাই।’

মুহাম্মদ সেলিম আরও বলেন, ‘গত ২১ ডিসেম্বর সকাল ৮ টার পর আমরা এসে দেখি কোন কিছু নেই। দোকান পুরো খালি, ফ্রিজের মালামালও নিয়ে গেছে। বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়েছে। আমরা তাদের হিসাব বুঝিয়ে দিলেও তারা আমাদের কোন কিছুই বুঝিয়ে দেয়নি। দোকানের কোন কিছুই কারও ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়, মারকাজের সম্পত্তি।’

রান্না ঘরের দায়িত্ব থাকা সাথী আজিজুর রহমান বলেন, ‘রান্না ঘরে একটি ফ্রিজ ছিল, কিন্তু এখন এসে পাচ্ছি না। এছাড়া, বড় বড় গামলাসহ অনেক কিছুই নেই।’

তাবলিগের সাথী হুমায়ুন বলেন, ‘ওয়াসিফুল ইসলামের ঘরে তালা দেওয়া ছিল। কিন্তু উপরের পার্টিশন ভেঙে অনেক জিনিসপত্র নিয়ে গেছে।’

তাবলীগের মালামালে অবৈধ হস্তক্ষেপের ব্যপারটিতে চরম উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সাধারণ মুসল্লিরা। তারা সর্বাত্মক গুরুত্বের সাথে অতিদ্রুত বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদেরকে আইনের আওতায় আনার জোড়ালো দাবী জানিয়েছেন।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com