শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন

সরকারী প্রতিনিধি দল যা জানতে দেওবন্দ যাচ্ছে!

সরকারী প্রতিনিধি দল যা জানতে দেওবন্দ যাচ্ছে!

ষ্টাফ রিপোর্টার, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম | আগামী ১৫ জানুয়ারী, তাবলীগ জামাতের চলমান সংকট নিরসনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ, ধর্মসচিব আনিসুর রহমান, তাবলীগের দুজন মুরুব্বী ও শীর্ষ আলেমদের সমন্বয়ে একটি প্রতিনিধি দল ভারত সফরে যাবে। তারা কি বিষয়ে জানতে দেওবন্দ যাচ্ছেন এ নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে চলছে নানান বিশ্লেষ।

ভারতের উত্তর প্রদেশে অবস্থিত দেওবন্দ মাদরাসায় গিয়ে তাবলীগ জামাতের বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ কান্ধলভীর ব্যাপারে বাংলাদেশের আলেমদের মতবিরোধে দেওবন্দের দৃষ্টি ভঙ্গি জানতে চাইবে প্রতিনিধিদল এমন তথ্য দিয়েছেন প্রতিনিধি দলের এক সদস্য।

আসলে বাংলাদেশের সরকারের উচ্চপর্যায়ের এই প্রতিনিধি দল দেওবন্দের কাছে কি জানতে চায়? সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, মূলত বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধি দল আলেমদের উপস্থিতে জানতে চাইবে, মাওলানা সাদ কান্ধলভী আহলে সুন্নতওয়াল জামাত থেকে বের হয়ে গিয়ে গুমরা হয়ে গেছেন, বাংলাদেশের আলেমদের আরোপিত এই অভিযোগ দেওবন্দ সমর্থন করে কি না? বাংলাদেশের ইজতেমায় মাওলানা সাদ সাহেবের আসতে বা তাকে আমীর হিসাবে মানতে দেওবন্দের কোন বাধা আছে কি না?

জানা যায়, দেওবন্দ যদি জানায় যে, তিনি আহলে সুন্নাত জামাতের বাহিরে নন, গোমরাহ হননি বা বাংলাদেশে যেতে কোন বাঁধা নেই, তাহলে মাওলানা সাদ কান্ধলভী আসন্ন বাংলাদেশের বিশ্ব ইজতেমায় আসতে কোন বাঁধা থাকবে না। বিষয়টি পরিস্কার হওয়ার জন্যই দেওবন্দে যাওয়া।

এ বিষয়ে প্রতিনিধি দলের এক শীর্ষ আলেম মিডিয়াকে বলেছেন, দেশের আলেমদের একটি প্রতিনিধি দল দারুল উলূম দেওবন্দ যাবে মাওলানা সাদ কান্ধলভীর বিষয়ে, আমাদের দেশের আলেমরা যা বলছেন দেওবন্দ তা সমর্থন করে কি না? দেওবন্দ কি বলেছে সেটাতো এখন পরিস্কারই। এদেশে যা বলা হচ্ছে দেওবন্দের অবস্থান এর দ্বারে কাছেও নেই। দেওবন্দ কি বলেছে সেটাতো তাদের ওয়েবসাইটেই দেয়া আছে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ওজাহাতি আলেম এই প্রতিবেদককে বলেন, দেওবন্দ যদি তার পক্ষেও কোন মতামত দেয়, তারপরে কুরআন হাদীসের আলোকে বাংলাদেশের আলেমরা সাদ সাহেবকে মেনে নিবেন না। তাহলে দেওবন্দ কেন যাওয়া হচ্ছে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এজন্যই তো মাওলানা যুবায়ের সাহেব সহ বাংলাদেশের বড় কোন আলেম দেওবন্দ যেতে চাচ্ছেন না। যেন তারা দেওবন্দের কোন কথায় আটকা না পড়ে, বাংলাদেশে চলমান সাদ বিরোধী আন্দোলন ধরে রাখতে পারেন।

এদিকে মাওলানা যুবায়েরের পুত্র হাফেজ হানজালা জানান, প্রতিনিধি দল মূলত দেওবন্দ যাবে, “দারুল উলুম দেওবন্দ মাওলানা সাদের উপর এতমিনান কি না” এই একটি বিষয় জানতে চাইবে। দেওবন্দ আগেও বলেছে মাওলানা সাদের উপর এতমিনান/সন্তুষ্ট না, এখনো হয়ত তাই বলবে। এই একটিমাত্র প্রশ্নের জবাব জানতেই মূলত দেওবন্দ যাচ্ছে প্রতিনিধি দল।

এ বিষয়ে কাকরাইল মসজিদের ইমাম মাওলানা মুফতী আজিমুদ্দীনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এক প্রশ্নের উত্তরেই কি এত বড় জটিল একটি বিষয়ের সমাধান হবে? এটি অবাস্তব কথা। বাংলাদেশের আলেমরা মাওলানা সাদ কান্ধলভীকে নিয়ে যা বলছেন, তা দারুল উলুম দেওবন্দ বিশ্বাস করে কি না বা বাংলাদেশের আলেমদের চলমান আন্দোলনে দেওবন্দের সমর্থন আছে কি না তা সরকারি ভাবে পরিস্কার হওয়ার জন্যই দেওবন্দ যাওয়া হচ্ছে।

এবিষয়ে তাবলীগের আরেক অন্যতম মুরুব্বী, গত প্রতিনিধি দলের সদস্য, মাওলানা জিয়া বিন কাসিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রতিনিধি দল যে সিদ্ধান্ত নিয়েই ফিরুক, উলামায়ে কেরাম যদি আলাদাভাবে ইজতেমা করতে চান, আমাদের কোনো আপত্তি থাকবে না। আমরা কোনো ধরনের সংঘর্ষে আর জড়াব না। আমরা চাই, তাঁরা তাঁদের মতো কাজ করুন, আমরা আমাদের মতো কাজ করি। দেওবন্দ আমাদের এলমি মারকাজ। নিজামুদ্দিন দাওয়াতের মারকাজ। তাবলীগের ইজতেমা নিয়ে, বা ইজতেমায় কে আসবেন বা আসবেন না এবিষয়ে দেবন্দের সিদ্ধান্ত দেয়ার কিছু নেই। তাবলীগ চলে নিজামুদ্দিন মারকাজের সিদ্ধান্তে। আমরা নিজামুদ্দিন মারকাজের সকল সিদ্ধান্তকে বাস্তবায়ন করি। দেওবন্দ যাওয়া হচ্ছে বাংলাদেশের আলেমদের অসংখ্য মিথ্যাচার সম্পর্কে দেওবন্দের দৃষ্টিভঙ্গি জানতে।

বাংলাদেশে তাবলিগের চল। চলমান সঙ্কট নিরসনের জন্য সরকার ও বিবাদমান উভয়পক্ষের সমন্বয়ে গঠিত একটি প্রতিনিধি দল ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ যাচ্ছে আগামী ১৫ জানুয়ারি।

এর আগে গত মাসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয় গঠিত ৬ সদস্যের কমিটিতে ৬জন প্রতিনিধির দেওবন্দ যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। আলেমদের পক্ষ থেকে ২জন। সরকারের পক্ষ থেকে ২জন। ও তাবলীগের পক্ষ থেকে ২জন। মোট ছয় জন।

আলেমদের পক্ষ থেকে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, মাওলানা মাহমুদুল হাসান। তাবলীগের পক্ষে মাওলানা মুহাম্মদ যোবায়ের, তাবলীগের আহলে শূরা হযরত সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম। সরকারের পক্ষ থেকে আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ ও ধর্মসচিব মুহাম্মদ আনিছুর রহমান।

গত ৬জানুয়ারী দুপুর ১২টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের সভাকক্ষে তাবলীগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বীদের সাথে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠক সরকারের একটি প্রতিনিধি দল দেওবন্দ যাওয়ার আবার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বৈঠকে, তাবলীগের আহলে শূরা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম বলেন, আমরা সব সময় দেওবন্দে যেতে প্রস্তুত। তবে দেওবন্দ যাই বলুক আমাদের ইজতেমা করতে হবে। আমাদের ইজতেমার তারিখ আগে ছিল সেটি ফেব্রুয়ারীতে আগেই যেন তাকে। জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সেটা দেওবন্দ থেকে আসার পর চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊ, তাবলীগ জামাতের আহলে শূরা হযরত ওয়াসিফুল ইসলাম সাহেব, মাওলানা মোশারফ সাহেব, প্রফেসর ইউনুস শিকদার সাহেব, মাওলানা আশরাফ আলী সাহেব, টঙ্গীর ময়দানের জিম্মাদার ইঞ্জিনিয়ার মুহিব্বুল্লাহ সাহেব প্রমূখ।

সরকারের পক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব জয়নাল আবেদীন মিয়া, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ, পুলিশের আইজি জাবেদ পাটোয়ারী ধর্ম সচিব আনিসুর রহমান, স্বরাষ্ট্রসচিব, রেপিড একশন ব্যাটালিয়ন ডিজি বেনজির আহমেদ, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান, টঙ্গী পুলিশ কমিশনার বেলাল আহমেদ, কেবিনেট সচিব শফিউল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com