শুক্রবার, ০৯ এপ্রিল ২০২১, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন

মাত্র ১টি প্রশ্ন নিয়ে দেওবন্দ যাওয়া হচ্ছে; ধর্মমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত

মাত্র ১টি প্রশ্ন নিয়ে দেওবন্দ যাওয়া হচ্ছে; ধর্মমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সিদ্ধান্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম। তাবলীগের সঙ্কট নিরসন ও মাওলানা সাদ কান্ধলভীর ব্যপারে জানতে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ সফরের বিষয়ে বৈঠকে বসেছিলো ধর্মমন্ত্রণালয়। আজ (১৩ই জানুয়ারী) বিকাল ৩ টায় এক জরুরী বৈঠকে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মুহাম্মদ আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে দেওবন্দ সফরকারী প্রতিনিধি দলের এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে কী নিয়ে দেওবন্দে প্রশ্ন করা হবে তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। তখন সিদ্ধান্ত হয়, মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর যে সাতটি ‘খণ্ডিত’ কথার উপর দেওবন্দ আপত্তি তুলেছিলো এবং পরবর্তীতে দেওবন্দের শর্ত মেনে মাওলানা সা’দ কান্ধলভী রুজু করেছিলেন তা দেওবন্দ গ্রহণ করেছে কিনা তা জানতে চাওয়া হবে। এতে সফরের চূড়ান্ত প্রস্তুতি, কর্মসূচি ও কী বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে তা নির্ধারণ করা হয়। বৈঠকে এই একটি প্রশ্ন নিয়েই আলোচনার সিদ্ধান্ত হয়।

উল্লেখ্য যে, গত ২৫শে ডিসেম্বর ২০১৭ বাংলাদেশ থেকে প্রথম প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের নির্দেশে দেওবন্দ গেলে মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর ব্যপারে দেওবন্দের মুহতামিম আবুল কাসেম নুমানী জানান, “লিখিত রুজু আমরা পেয়েছি। শুধু মৌখিকভাবে প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়ে রুজু করে নিলে দেওবন্দের আর কোন আপত্তি থাকবে না।” তখন প্রতিনিধি দলের উপস্থিতিতেই সেদিন রাতে নিযামুদ্দীন মারকাযের মিম্বর থেকে ‘হায়াতুস সাহাবা’র পর সারাবিশ্বের হাজার হাজার মানুষের সামনে মাওলানা সা’দ কান্ধলভী স্পষ্টভাষায় রুজু করেন। পরে এই ‘রুজু’র খবর মূহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম সহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। যা প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে ফিরে স্বরামন্ত্রণালয়ের বরাবর লিখিত প্রতিবেদনেও উল্লেখ করে। পরবর্তীতে মাওলানা সা’দ কান্ধলভী বাংলাদেশের বিশ্ব ইজতেমায় এলে হেফাজতপন্থী আলেমদের বাঁধার মুখে পড়েন। তখন তিনি কাকরাইলে অবস্থান করে বাংলাদেশের আলেমদের সাথে সাক্ষাত করার জন্য বারবার আপ্রাণ চেষ্টা করে ব্যর্থ হোন। উল্টো আলেমরা মাদরাসার ছাত্রদের দিয়ে কাকরাইল মসজিদের বাহিরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এই পরিস্থিতিতে সারা বাংলাদেশের প্রায় ২০ হাজার তাবলীগের জিম্মাদার সাথী ১২ই জানুয়ারী ‘১৮ রোজ শুক্রবার কাকরাইলে উপস্থিত হন। সেদিন বা’দ জুম্মা মাওলানা সা’দ কান্ধলভী তার উপর আরোপিত দেওবন্দের অভিযোগ নিয়ে পুণরায় দীর্ঘ সময় নিয়ে খোলামেলাভাবে রুজু (বক্তব্য প্রত্যাহার) করেন। যা পরদিন বাংলাদেশের শীর্ষ জাতীয় গণমাধ্যম ও আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচারিত হয়।

এ বিষয়ে আজকের বৈঠকে উপস্থিত কাকরাইলের মুরুব্বী ও প্রতিনিধি দলের সদস্য মাওলানা আশরাফ আলী জানান, মাওলানা সা’দ কান্ধলভী দেওবন্দের কাছে তাদের শর্ত মেনে রুজু করেছেন। যা সারা দুনিয়াবাসী জানে। এটি মূলত একটি মীমাংসিত বিষয়।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা রবিউল হক, সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম ও মাওলানা আশরাফ আলী। এছাড়া ধর্মসচিব মো. আনিসুর রহমান ও এডিশনাল ডিআইজি মো. মনিরুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

তাবলীগের সঙ্কট নিরসনে গত ৬ জানুয়ারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠক করেন। সেখান থেকে প্রতিনিধি দলকে দেওবন্দ পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়। তারা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফিরলে বিশ্ব ইজতেমার তারিখ এবং কিভাবে হবে তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সবার সাথে আলাপ করে পরবর্তীতে নির্ধারণ করবেন।

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com