বৃহস্পতিবার, ০৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৩৯ পূর্বাহ্ন

ওলীপুরী ও পাকিপন্থীদের কাটপিস সেই জঘন্য বয়ানে দেওবন্দের ফতোয়া

ওলীপুরী ও পাকিপন্থীদের কাটপিস সেই জঘন্য বয়ানে দেওবন্দের ফতোয়া

মুফতী জামিল আহমদ কাসেমী, তাবলীগ নিউজ বিডিডটকম

দারুল উলুম দেওবন্দের ফতোয়া দ্বারা প্রমানিত- “হেদায়াত” নিয়ে মিথ্যা অপবাদ রটিয়েছেন বাংলাদেশের কথিত তরজুমানে দেওবন্দ নামক বাজারি বক্তা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী। যিনি সাদ সাহেবের ভুলগুলো বনর্ণা করে ইমোশনাল গ্রাম্য সহজসরল স্রোতাদের বুক ফুলিয়ে বলেন, আমি যা বললাম সাদের এসব ভুলের প্রমান দারুল উলুম দেওবন্দের কাছে আছে।

 

গণ্ডমূর্খের মতো এমন আজগুবী ওজাহাতি কুজাতি কথা বাজারে চালানোর চেষ্টা করলেও খোদ দারুল উলুম দেওবন্দ ফতোয়া আছে  তাদের এমন বক্তব্য কতোটা বানোয়াট। ওলীপুরীর ওজাহাতি বিদ্ধেষমূলক, আক্রমনাত্তক, উগ্রবাদী বয়ানগুলোর অন্যতম হল “সাদ বলে আল্লাহর কাছে হেদায়ত নেই”। এটি বলে তিনি মাওলানা সাদ কান্ধালভীকে আল্লাহ বিরোধী প্রমানের ওজাহাতি দলীল পেশ করেন।  আর কথার দলীল হিসাবে পেশ করেন সম্পূন্ন মিথ্যাচারমূলক দারুল উলুম দেওবন্দের নাম।

 

প্রিয় পাঠক এবার শুনুন ওলীপুরীর বয়ান করা ” সাদ বলেছে আল্লাহর হাতে  হেদায়ত নেই” এর ব্যাপারে খোদ দারুল উলুম দেওবন্দের ফতোয়া।

 

http://www.darulifta-deoband.com/home/ur/Dawah–Tableeg/69264

 

তারিখ: আগস্ট ০৩, ২০১৬

ফতোয়ার আইডি নম্বর : 1058-1136/L=10/1437

 

প্রশ্ন নম্বরঃ ৬৯২৬৪

 

এই বয়ান মাওলানা সাদ করেছেন, নিজামুদ্দিন মারকাজে করেছেন আর কোন দৃষ্টিভঙ্গিতে এই কথা জায়েজ ধার্য করা যেতে পারে (সেই দৃষ্টিভঙ্গির কথায় আশ্চর্যান্বিত হয়ে গেলাম) যে আল্লাহর হাতে হিদায়াত নাই নতুবা তিনি নবীদেরকে দুনিয়াতে কেন পাঠাতেন?

 

আমি দেওবন্দের উলামাদের থেকে দ্বীনের উপর চলা শিখেছি। এটা একটা বয়ানে বলা হয়েছে যার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা এটাই যে আল্লাহর হাতে হেদায়াত নাই নতুবা তিনি নবীদেরকে দুনিয়াতে কেন পাঠাতেন? এই কথা আপনাদের নিকট কি ইসলামি মর্যাদা রাখে? আর সেই বয়ানকারীকে এরকম কথা বলা থেকে নিবৃত্ত রাখার জন্য বর্তমানের উলামায়ে হজরতগণের কি দায়িত্ব রয়েছে? এই দুইটি কথা জানা উদ্দেশ্য ছিল। যদি জবাব পাওয়া যেত তাহলে অনেক মেহেরবানী হত।

 

উত্তর নম্বরঃ ৬৯২৬৪

 

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম। আগের প্রশ্নে আপনি চারটি বাক্য নকল করেছিলেন। সেটা পুরা ইবারত বা বর্ণনা নয়। এর জন্য সেটা পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা অনুভব হল। এটার জন্য আপনার উচিত ছিল যে বয়ানের ঐ ইবারত বা বর্ণনা পুরোটা লেখা যার দ্বারা এই বাক্যের উদ্দেশ্য নিজে নিজেই স্পষ্ট হয়ে যেত। দৃষ্টিভঙ্গি জিজ্ঞেস করার এটাই উদ্দেশ্য ছিল।

 

আপনি আপনার আগের বাক্যগুলোর মধ্যে শুধু একটি বাক্য লিখেছেন যা প্রথম প্রশ্নে এমন ছিল “তুমি এই খেয়ালে আছ যে হিদায়াত আল্লাহর হাতে। যদি আল্লাহর হাতে হত তাহলে আল্লাহ তায়ালা নবীদেরকে কেন পাঠাতেন?” আর এখন দ্বিতীয় প্রশ্নেও সেই বাক্য এমন ছিল “আল্লাহর হাতে হিদায়াত নাই নতুবা তিনি নবীদেরকে দুনিয়াতে কেন পাঠাতেন?”

 

প্রথম বর্ণনাকে যদি এভাবে লেখা যায় “ তুমি এই খেয়ালে আছ যে হেদায়াত আল্লাহর হাতে। অতএব, আমাদের মেহেনত করার কি প্রয়োজন? যদি ব্যাপারটি এমনই হত তাহলে আল্লাহ নবীদেরকে কেন পাঠাতেন?” তো আপনি নিজেই চিন্তা করুন যে এই বর্ণনায় দোষের কি আছে? আর যদি বয়ানের উদ্দেশ্য সেটাই হত যেটা আপনার দ্বিতীয় বর্ণনার দ্বারা প্রকাশ পেল তো সেটাকে কে সঠিক মনে করতে পারে? তাই এই ব্যাপারে উত্তম এটাই ছিল যে বয়ান মনোযোগের সাথে শুনে নেওয়া যেত বা বয়ানকারীকেই জিজ্ঞেস করে নেওয়া যেত।

 

ওয়াল্লাহু তায়ালা ইয়ালাম

দারুল ইফতা

দারুল উলুম দেওবন্দ

 

عقائد و ایمانیات – دعوت و تبلیغ

سوال  #  69264

یہ بیان مولانا سعد نے کیا ہے مرکز نظام الدین میں کیا ہے اور پس منظر ایسا کون سا ہوگا جس میں یہ لفظ جائز ٹھہرایا جاسکے۔ (پس منظر کی بات سے حیرانی ہوئی) کہ اللہ کے ہاتھ ہدایت نہیں ورنہ وہ نبیوں کو دنیا میں کیوں بھیجتا۔ میں نے دیوبند علماء کو پڑھ کر دین کی طرف چلنا سیکھا۔ آج ایک سیدھی سی بات پر جواب نہ ملتا دیکھ کر دکھ ہوا۔ یہ ایک بیان میں کہی گئی باتیں ہیں جن میں سے سب سے اہم بات یہی ہے کہ اللہ کے ہاتھ ہدایت نہیں ورنہ وہ نبیوں کو دنیا میں کیوں بھیجتا۔ یہ الفاظ آپ کے نزدیک کیا اسلامی حیثیت رکھتے ہیں اور اسے بیان کرنے والے کے لیے وقت کے علماء حضرات کی کیا ذمہ داریاں ہیں اسے ایسی باتوں سے روکنے کے لیے؟ یہ دو باتیں جاننا مقصود ہیں اگر جواب مل سکے تو بڑی مہربانی ہوگی

 

Published on: Aug 3, 2016

بسم الله الرحمن الرحيم

 

Fatwa ID: 1058-1136/L=10/1437

 

پچھلے استفتاء میں آپ نے چار جملے نقل کیے ہیں وہ پوری عبارت نہیں ہیں اس لیے تنقیح کی ضرورت محسوس ہوئی اس کے جواب میں آپ کو چاہئے تھا کہ بیان کی وہ عبارت پوری لکھتے جن سے ان جملوں کا مقصد خود بخود واضح ہوجاتا، پس منظر پوچھنے کا یہی مقصد تھا آپ نے اپنے سابقہ جملوں میں سے صرف ایک جملہ لکھا ہے جو پہلے سوال میں یوں ہے ”تم اس

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com