শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৩৩ পূর্বাহ্ন

সাধারণ মানুষ কোথায় গিয়ে দ্বীন শিখবে

সাধারণ মানুষ কোথায় গিয়ে দ্বীন শিখবে

মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম মিলন:

এই লোকটা আমাদের এলাকার না। তবে বেশ কিছু দিন যাবত এই এলাকায় ভাড়া থাকে। নামাজ পড়ে পাঁচ ওয়াক্তই। বেশীরভাগ সময়ই দেখি ওজু বাসা থেকেই করে আসে। গতকাল এশার আগে আমি মসজিদের পশ্রাব খানায় ১ নাম্বার সারতে গেলে দেখলাম, উনিও একটু পর গেলো। কিন্তু কাজ সেরে চলে আসলো আমার আগে।
ওজু খানায় এসে দেখি উনি নাই। আমি অবাকই হলাম। এত তাড়াতাড়ি ওজু শেষ করারতো কথা না। পশ্রাব করতে কি তাহলে কাপড় নষ্ট করে ফেললো? সেজন্য বাসায় চলে গেলো?

আমি ওজু করে মসজিদে ঢুকে দেখি, উনি সামনের কাতারে ইমাম সাহেবের কাছাকাছি দাঁড়ানো। নামাজ শুরু হয়ে গেলো। নামাজ শেষ করে চলে আসলাম। দোকানে বসে আছি, উনি সামনে দিয়ে যাচ্ছে। সালাম দিয়ে ইশারা দিলাম আমার কাছে আসতে।
আসলো। এক কোণে বসে বললাম, এত তাড়াতাড়ি ওজু করলেন কেমনে? উনি কয়, ‘আমি পশ্রাব করতে সময় লুঙ্গি হাঁটুর উপর তুলি নাই, তাই ওজু করি নাই’! আমি অবাক হলাম, এমন মুসলমানও তাহলে বাংলাদেশে আছে?
আমি বললাম, ‘আপনারে এই মসলা কেরা শিখাইলো’!!!?
আমারে কয়, ‘ক্যা? আফনে ইডা জানুইন না’???

একটা চিন্তা মাথায় আসলো, মুসলমান জামাতে না গেলো, কিন্তু কতদিন যাবৎ শুক্রবারে খতিব সাহেবদের বয়ান শুনে এতটুকুও এলেম হয় নাই??

একজনের সাথে ঘটনাটা শেয়ার করলাম। বললাম, ‘এ লোকটাকেতো শুক্রবারে প্রায় দিনই সবার আগে আসতে দেখি’!!

ঐ লোক কয়, ‘আরে ভাই শুক্রবারে খতিব সাহেবদের এগুলা বলার সময় আছে? কোনদিন দেখছেন আল্লাহ পাকের কুদরতের কথা, বড়ত্বের কথা বলতে?
উনারা উনাদের এলমি ঝনঝনানি দেখাইয়েই সারতে পারে না, অন্যের গীবত কইরেই সারতে পারে না, ঐগুলা বলবো কখন? তাছাড়া উনাদের চিন্তা থাকে, জুম্মা নামাজ পড়াইয়া মাসে বেতন পাই পাঁচ/ছয় হাজার, অর্থাৎ প্রতি শুক্রবারে ২০ মিনিটের বয়ানেই এক/দেড় হাজার পরে, ছেদরভেদর বয়ান করলে চলবো? তাই টেহা ওয়াশিলের জন্য গলা ফাটাইয়া ফালায়।
মিলন ভাই আমিতো এতকিছু জানিনা, একটা কথা কই, শুক্রবারে ফরজ নামাজের পর এত লম্বা দোয়া বেঠারা পাইলো কৈ? দোয়ার পরে সুন্নতে মোয়াক্কাদা না পইড়েই মসজিদ যে খালি হয়ে যায়গা, হুজুরতো এ বিষয়ে কিছুই কয় না’ ? আমি কইলাম, ‘আলেম বিদ্বেষী কথা বন্ধ কর’!!

আমার আরেকটা চিন্তা আসলো, হাইরে হাই, তাবলীগের মেহনতটা ছিল আমাদের মত জাহেল লোক গুলোর নূন্যতম দ্বীন শিখার একটা রাস্তা। এ রাস্তাটাও কিছু আলেম সমাজ নেতৃত্বের লোভে ও হীন স্বার্থে বন্ধ করে দিচ্ছেন।
সাধারণ মানুষ এখন কোথায় গিয়ে দ্বীন শিখবে?
দ্বীন ছাড়া ঝাঁকে ঝাঁকে মানুষ যে জাহান্নামে যাচ্ছে যাবে এর জন্য কে বা কারা দায়ী?

Facebook Comment





© All rights reserved © 2020 TabligNewsBD.Com
Design & Developed BY PopularServer.Com